BREAKING NEWS

২ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

সুযোগের সদব্যবহার! ব্যাংকের ১০০ শতাংশ বকেয়া মেটাতে চান ঋণখেলাপী বিজয় মালিয়া

Published by: Paramita Paul |    Posted: May 14, 2020 1:49 pm|    Updated: May 14, 2020 2:48 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দেশের অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে ২০ হাজার কোটির প্যাকেজ ঘোষণা করেছে কেন্দ্র সরকার। এই পদক্ষেপের জন্য কেন্দ্রকে শুভেচ্ছা জানিয়েছে ঋণখেলাপী লিকার ব্যরন বিজয় মালিয়া। একইসঙ্গে তিনি বকেয়া ঋণের পুরোটাই ভারতের ব্যাংকগুলিকে ফিরিয়ে দিতে রাজি বলে জানিয়েছেন। বৃহস্পতিবার এই মর্মে একটি টুইট করেন তিনি। ওয়াকিবহাল মহলের ধারণা, আইনি লড়াইয়ে বারবার হার হচ্ছে মালিয়ার। ভারতের হাতে তাঁর প্রত্যার্পণ স্রেফ সময়ের আপেক্ষা। তাই সুযোগের সদব্যবহার করে বকেয়া মিটিয়ে মামলা তুলে নেওয়ার জন্য চাপ বাড়াচ্ছেন লিকার ব্যরন।

কিংফিশার বিমানসংস্থার নামে বিজয় মালিয়া ভারতের একাধিক ব্যাংক থেকে প্রায় নয় হাজার কোটি টাকা ঋণ নিয়েছিলেন। সেই টাকা না মিটিয়েই দেশ ছাড়েন। এরপরই তাঁকে দেশে ফেরাতে উঠেপড়ে লেগেছে ভারত সরকার। কিন্তু একের পর এক আইনি মারপ্যাঁচে সেই
ছক বানচাল করতে সচেষ্ট লিকার ব্যরনও।কখনও তাঁর দাবি, তিনি টাকা ফিরিয়ে দিতে ইচ্ছুক কিন্তু ভারত সরকার সেই টাকা নিয়ে চাইছেন না, আবার কখনও বলেছেন, তিনি এতটাই গরিব যে সেই টাকা ফেরত দেওয়ার ক্ষমতা নেই। কিন্তু এপ্রিল মাসে ব্রিটেনের
আদালতে মামলায় হেরে যান পলাতক লিকার ব্যারন বিজয় মালিয়ার। ভারতের হাতে প্রত্যার্পনের নির্দেশের বিরুদ্ধে ব্রিটেনের হাই কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন তিনি। তাঁর সেই আবেদন পত্রপাঠ খারিজ করে দিল আদালত।পালটা সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হতে চেয়েছিলেন তিনি। এর মাঝেই মালিয়ার এহেন টুইটে হতবাক সিবিআই কর্তারাও।

[আরও পড়ুন: মিলবে ৩ বছর কাজ করার সুযোগ, আম জনতার জন্য নয়া ভাবনা ভারতীয় সেনার]

বৃহস্পতিবার টুইটারে লিকার ব্যরন বিজয় মালিয়া লেখেন, “কোভিড-১৯ এর বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য ভারত সরকার ২০ লাখ কোটি টাকার প্যাকেজ ঘোষণা করেছে।অভিনন্দন। তাঁদের প্রয়োজন অনুসারে নোট তাঁরা ছাপাতে পারে। কিন্তু আমার মতো মানুষকেও অনুদান দেওয়ার সুয়োগ দেওয়া উচিত। আমি বকেয়া ঋণের ১০০ শতাংশ মিটিয়ে দিতে চাই। কিন্তু সরকার সেই আবেদনকে উপেক্ষা করছে।” এরপরই তাঁর আরজি, “আমার থেকে পাওনা টাকা নিয়ে বিনা শর্তে আমার বিরুদ্ধে মামলা বন্ধ করা হোক।”

[আরও পড়ুন: স্পেশাল ছাড়া ৩০ জুন পর্যন্ত অন্য ট্রেন না চালানোর সিদ্ধান্ত রেলের]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement