BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ভারতে মোদি বক্তব্য রাখলে পাকিস্তানে ইমরানের ঘাম ঝরে, কটাক্ষ যোগীর

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: May 1, 2019 6:50 pm|    Updated: May 1, 2019 7:58 pm

An Images

ফাইল ফটো

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী মোদি যখন ভারতে বক্তব্য রাখেন তখন পাকিস্তানের এসি রুমে বসে ঘামতে থাকেন ইমরান খান। বুধবার আম্বেদকর নগরের জনসভা থেকে এই মন্তব্যই করলেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। এপ্রসঙ্গে তিনি বলেন, “আজ ভারতের যে কোনও প্রান্তে প্রধানমন্ত্রী মোদি যখন বক্তব্য রাখেন তখন ইসলামাবাদের এসি রুমে থেকেও পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের শরীর থেকে ঘাম ঝরে। আসলে তিনি ভয় পান কখন ভারতীয় সেনা পাকিস্তানে ঢুকে সেখানে থাকা জঙ্গি ঘাঁটিগুলোকে ধ্বংস করবে এই ভেবে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির রাজনৈতিক বিচক্ষণতার জন্যই আজ এত শক্তিশালী হয়ে উঠছে দেশ।”

[আরও পড়ুন- ‘স্বল্পবসনা তরুণীদের ধর্ষণ করো’, ক্যামেরার সামনেই কুরুচিকর মন্তব্য মহিলার]

বক্তব্য রাখতে গিয়ে বিভিন্ন কেন্দ্রীয় প্রকল্পেরও ভূয়সী প্রশংসা করেন যোগী আদিত্যনাথ। বলেন, “দেশের জনগণের উন্নয়নের স্বার্থে বিভিন্ন এলাকায় কেন্দ্রীয় সরকার দ্রুতগতিতে যেসব প্রকল্প বাস্তবায়িত করেছে তা প্রশংসার যোগ্য। গত পাঁচ বছরে দেড় কোটি গরিব মানুষ নিজের ঘর পেয়েছেন। বিনামূল্যে বিদ্যুতের লাইন দেওয়া হয়েছে চার কোটি গরিবের পরিবারে। ৭ কোটি গরিব মানুষকে দেওয়া হয়েছে এলপিজি গ্যাসের কানেকশন।”

[আরও পড়ুন-মোদির ‘বন্দে মাতরম’ স্লোগানে নীরব নীতীশ, সমালোচনা বিরোধীদের]

এরপরই অযোধ্যার উন্নয়নের জন্য সরকারের তরফে কী কী উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে তা উল্লেখ করেন তিনি। জানান, অযোধ্যায় ভগবান রামের নামে নতুন একটি বিমানবন্দর তৈরির কাজ শুরু করা হয়েছে। এছাড়া ১৪ বছরের বনবাস কাটিয়ে রাম যেদিন অযোধ্যা ফিরে আসেন সেদিন সরকারের উদ্যোগে মহাসমারোহে দীপাবলি উৎসবও পালন করা হয়।

গত শুক্রবার কুশীনগরে সভা করতে গিয়ে বিজেপি ৪০০ আসনে জয়ী হবে বলে দাবি করেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী। প্রধান বিরোধী কংগ্রেসকে কটাক্ষ করে বলেন, “স্বাধীনতার পর কংগ্রেস প্রায় ৫৫ বছর ধরে শাসন করেছে। সেসময় অনেক দুর্নীতি প্রকাশ্যে এসেছিল। এমনকী প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং বলেছিলেন, দেশের সম্পদের প্রথম অধিকার মুসলিমদের। কংগ্রেসের আমলে ২৭০টির বেশি জেলা মাওবাদ, সন্ত্রাসবাদউগ্রবাদ অধ্যুষিত ছিল। আমাদের জওয়ান ও নাগরিকরা তাদের শিকার হতেন। কিন্তু সরকার নীরব হয়ে থাকত। পাকিস্তান আমাদের জওয়ানদের মাথা কেটে নিয়ে যেত, চিন ভারতীয় সীমান্তে ঢুকে পড়ত। কিন্তু, প্রধানমন্ত্রী মোদি ক্ষমতায় আসার পরে পরিস্থিতির পরিবর্তন হয়েছে।”

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement