২ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

এবার যত তাড়াতাড়ি সম্ভব স্কুল খুলে দেওয়া উচিত, মনে করছেন WHO’র প্রধান গবেষক

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: August 9, 2020 5:38 pm|    Updated: August 9, 2020 5:49 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: পরিস্থিতি যেমনই হোক। এবার আমাদের প্রথম কাজ হওয়া উচিত কীভাবে স্কুল খোলা যাবে, তার ব্যবস্থা করা। অনির্দিষ্টকালের জন্য স্কুল বন্ধ থাকলে আরও বড় সমস্যা অপেক্ষা করে আছে। আর কেউ নন, একথা বলছেন খোদ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (World Health Organization) প্রধান গবেষক ডঃ সৌম্যা স্বামীনাথন (Soumya Swaminathan)। সম্প্রতি এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, রাজ্যগুলির উচিত এখন থেকেই স্কুল খোলার পরিকল্পনা শুরু করে দেওয়া।

করোনা পরিস্থিতিতে সেই মার্চ মাস থেকে দেশে বন্ধ স্কুল-কলেজ। বাতিল করতে হয়েছে বহু পরীক্ষা। এমনকি পাঠক্রম শেষের পরীক্ষাও নেওয়া সম্ভব হয়নি। কেন্দ্র এবং কয়েকটি রাজ্য সরকার পরিকল্পনা করছে আগামী মাস থেকেই রোটেশন পদ্ধতিতে স্কুল চালু করার। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান গবেষকও সেকথাই বলছেন। তাঁর মতে দ্রুত স্কুল না খুললে ভারতের জন্য আরও বড় সমস্যা অপেক্ষা করে আছে। কী সেই সমস্যা? ডঃ সৌম্যা স্বামীনাথন বলছেন, “অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্লাস বন্ধ রাখলে শিশুদের শিক্ষণ ক্ষমতায় ভয়াবহ প্রভাব পড়ে। এবং সেজন্যই আগামী দিনে স্কুল খোলার দিকে বিশেষ নজর দেওয়া উচিত।” ডঃ স্বামীনাথনের মতে, এর সবচেয়ে বিপজ্জনক প্রভাব পড়বে দরিদ্র এবং প্রান্তিক এলাকার পড়ুয়াদের উপর। হয়তো ওঁদের অনলাইনে শিক্ষা নেওয়ার কোনও ব্যবস্থা নেই। এই পরিস্থিতিতে যদি এখনই স্কুল না খোলা হয়, তাহলে অনেকেরই হয়তো আর স্কুলের গণ্ডিতে ফেরা হবে না।

[আরও পড়ুন: ভারতের সঙ্গে লড়তে ধর্মই ভরসা! নেপালে রাম মন্দির তৈরির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রী ওলির]

WHO’র গবেষকের মতে, দীর্ঘদিন স্কুল থেকে বাইরে থাকলে পড়ুয়াদের হেনস্তা এবং বাল্যবিবাহের সম্ভাবনা অনেকটা বেড়ে যায়। শিশুদের উপর অত্যাচারও অনেকটা বাড়ে। কিন্তু এই পরিস্থিতিতে কীভাবে স্কুল খোলা সম্ভব? এর উত্তরে স্বামীনাথন বলছেন,”এটা একটা কঠিন কাজ। ভ্যাকসিন না আসা পর্যন্ত আমাদের হাতে যে যে ব্যবস্থা আছে সেগুলিই ভাল করে পালন করতে হবে। আরও বেশি টেস্ট, শনাক্তকরণ এবং আইসোলেশন প্রয়োজন। প্রয়োজনে যে জেলাগুলিতে সংক্রমণ কম, শুরুর দিকে সেই জেলাগুলিতে স্কুল খুলুন।”

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement