BREAKING NEWS

২৭ আষাঢ়  ১৪২৭  রবিবার ১২ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

সঙ্গম করতে মরিয়া স্ত্রী, নারাজ স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকদের হাতে প্রহৃত মহিলা

Published by: Bishakha Pal |    Posted: January 12, 2020 2:36 pm|    Updated: January 12, 2020 5:41 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: স্বামী-স্ত্রী’র মধ্যে শারীরিক সম্পর্ক যে থাকবে, এতে আর অস্বাভাবিক কী? কিন্তু এই স্বাভাবিক ঘটনা ঘটাতে গিয়েই বেধড়ক মার খেলেন এক মহিলা। স্বামীর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হতে চেয়ে শ্বশুরবাড়ির লোকেদের হাতে প্রহৃত হলেন তিনি। সম্প্রতি এমন একটি ঘটনা ঘটেছে গুজরাটের আহমেদাবাদে।

বছর তিনেক হল বিয়ে হয়েছে বছর বাইশের ওই মহিলার। স্বামী তাঁর থেকে তিন বছরের বড়। বিয়ের প্রথমদিকে সব ঠিক ছিল। আর পাঁচটা দম্পতির মতোই ছিল তাঁদের শারীরিক সম্পর্কও। গত বছর গোড়ার দিকে তাঁদের সন্তানের জন্মও হয়। তার পর থেকেই সমস্যার সূত্রপাত। ওই মহিলার বক্তব্য, প্রথম সন্তানের জন্মের পর থেকেই তাঁর স্বামী তাঁর সঙ্গে অস্বাভাবিক আচরণ করতে শুরু করেন। কোনওভাবেই ঘনিষ্ঠ হতে চাইছিলেন না। অভিযোগ, তিনি চেষ্টা করলে বিরক্ত হচ্ছিলেন স্বামী। কখনও কখনও তো ক্ষেপে উঠছিলেন। কিন্তু মহিলা এতে দমেননি। তাঁর মনে হয়েছিল, নিজের স্বামীর সঙ্গেই তো তিনি ঘনিষ্ঠ হতে চাইছেন। অন্য কারওর সঙ্গে নয়। তাহলে সমস্যা কোথায়? তাই এবার প্রায় জোর করেই বিছানায় ঘনিষ্ঠ হওয়ার চেষ্টা করেছিলেন ওই মহিলা। আর তখনই ঘটে গন্ডগোল।

[ আরও পড়ুন: পালঘড়ের বিস্ফোরণে মৃত পাঁচ, পরিবার পিছু ৫ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ ]

অভিযোগ, ঘনিষ্ঠ হওয়ার চেষ্টা করায় ওই মহিলার গায়ে হাত তোলেন তাঁর স্বামী। মহিলাকে বেধড়ক মারধর করেন। তারপর স্পষ্ট জানিয়ে দেন, তিনি এখন ব্রহ্মচারী। তাই কোনও মহিলার সঙ্গে সঙ্গম তাঁর কাছে অপরাধ। এরপর স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া শুরু হয়। একসময় ঝগড়া চরমে ওঠে। গৃহত্যাগ করেন ওই ব্যক্তি। স্বামীর গৃহত্যাগের সমস্ত দোষ এসে পড়ে স্ত্রীয়ের উপর। শ্বশুরবাড়িক লোকেদের সমস্ত ঘটনা খুলে বলেন মহিলা। কিন্তু ফল হয় হিতে বিপরীত। তাঁর উপরেই শুরু হয় অত্যাচার। স্বামীর পর শ্বশুরবাড়ির লোকেরও তাঁকে মারধর করে। তাদের দাবি, তাদের বাড়ির ছেলের উপর শারীরিক নির্যাতন চালাতেন স্ত্রী। সেই কারণেই ছেলে গৃহত্যাগী হয়েছে।

তবে এই ঘটনার পর চুপ করে থাকেননি ওই মহিলা। গোটা ঘটনার কথা পুলিশকে জানিয়েছেন তিনি। থানায় গার্হ্যস্থ হিংসার অভিযোগও দায়ের করেছেন। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

[ আরও পড়ুন: ‘হস্টেল ফি এক পয়সাও দেব না’, সিদ্ধান্ত ঘোষণা করে চাপ বাড়াল JNU ছাত্র সংগঠন ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement