১ আষাঢ়  ১৪২৬  রবিবার ১৬ জুন ২০১৯ 

BREAKING NEWS

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার
বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ

১ আষাঢ়  ১৪২৬  রবিবার ১৬ জুন ২০১৯ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: নিজের কেন্দ্রে ভোটের দিন বারবার বিক্ষোভের মুখে পড়েছিলেন। এবার নিজের ভোট দিতে গিয়েও আক্রান্ত হলেন বিজেপি নেতা তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। আসানসোল থেকে ভোটে লড়লেও তিনি উত্তর কলকাতা কেন্দ্রের ভোটার। এদিন দুপুরে উত্তর কলকাতার আর্যকন্যা বিদ্যালয়ে স্ত্রী ও মেয়েকে নিয়ে ভোট দিতে যান কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। সেখানেই বিক্ষোভের মুখে পড়েন বাবুল। তাঁকে ঘিরে গো ব্যাক স্লোগান দেওয়া হয়। অভিযোগের তির তৃণমূলের দিকে।

[আরও পড়ুন: সরাসরি বিজেপিকে ভোট দিতে বলছে কেন্দ্রীয় বাহিনী, অভিযোগ তৃণমূলের]

এদিন সকাল থেকেই একাধিক জায়গায় বিজেপি নেতামন্ত্রীদের বিক্ষোভের মুখে পড়তে হয়েছে। বিক্ষোভের মুখে পড়েছেন রাহুল সিনহা, অনুপম হাজরা, নীরঞ্জন রায়দের মতো প্রার্থীরা। বাদ গেলেন না কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়ও। অভিযোগ, বাবুল সুপ্রিয় নিজের বুথে ভোট দিতে গেলেও তাঁকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখায় তৃণমূল সমর্থকরা। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের ঘিরে ধরে বিক্ষোভ দেখানো হয় বলে অভিযোগ। বিজেপির অভিযোগ কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে রীতিমতো হেনস্তা করা হয়েছে। অশ্রাব্য গালিগালাজ করা হয় তাঁকে। তৃণমূল অবশ্য পালটা বাবুলকেই কাঠগড়ায় তুলছে। তাদের অভিযোগ, ভোট দেওয়ার পর ভোটারদের প্রভাবিত করার চেষ্টা করছিলেন বাবুল সুপ্রিয়। যার জেরে ভোটাররাই বিক্ষোভ দেখান তাঁর বিরুদ্ধে। পরে কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানরা গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

[আরও পড়ুন: বুথে এজেন্ট বসাতে গিয়ে ভাঙড়ে বিক্ষোভের মুখে বিকাশরঞ্জন]

ঘটনার পরই ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন বাবুল। তাঁর অভিযোগ মুখ্যমন্ত্রীর উসকানিতেই বাংলার ভোটে হিংসা হচ্ছে । তিনি বলেন, “বাংলায় হিংসা নতুন কিছু নয়। এর আগে বিধানসভা নির্বাচনেও একই রকমের হিংসা হয়। তৃণমূল বারবার হিংসার অভিযোগ অস্বীকার করে নিজেদেরই বিশ্বাসযোগ্যতা হারিয়ে ফেলছে। এরপর মানুষ আর ওদের বিশ্বাস করবে না।” তবে, বাবুল একা নন এদিন বিজেপি প্রার্থীরাও বিভিন্ন জায়গায় আক্রান্ত হয়েছেন বলে অভিযোগ গেরুয়া শিবিরের। খোদ প্রতিরক্ষামন্ত্রী নির্মলা সীতারমণের অভিযোগ, বাংলায় নরসংহার চলছে। কমিশনের কাছে যতদিন নির্বাচনী আচরণবিধি লাগু আছে, ততদিন বাংলায় কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন রাখারও আবেদন জানিয়েছেন তিনি।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং