৩১ শ্রাবণ  ১৪২৬  শনিবার ১৭ আগস্ট ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ন্যায্য বেতনের দাবিতে সল্টলেকের বিকাশ ভবনের সামনে ধরনায় বসেছেন প্রাইমারি শিক্ষকরা৷ শনিবার অষ্টম দিনে পড়ল তাঁদের সেই ধরনা কর্মসূচি। আর এদিনই শিক্ষকদের পাশে দাঁড়িয়ে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দাগলেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ৷ সাফ জানালেন, তাঁরা শিক্ষকদের পাশে রয়েছেন৷ রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে একটানা আন্দোলনের ফলে, শিক্ষকদের যে দুর্দশা হয়েছে তা অত্যন্ত লজ্জার৷ দ্রুত সরকারকে এই সমস্যা সমাধানের হুঁশিয়ারিও দিলেন মেদিনীপুরের সাংসদ৷

[ আরও পড়ুন: একুশের মঞ্চে থাকতে পারেন প্রশান্ত কিশোর! জল্পনা তুঙ্গে রাজনৈতিক মহলে]

শুক্রবার উস্থি ইউনাইটেড প্রাইমারি টিচার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের তরফে ঘোষণা করা হয়েছে, রাজ্য সরকার পদক্ষেপ না করলে তাঁরা অনশন চালিয়ে যাবে। আন্দোলনকারীদের বক্তব্য, অন্যান্য রাজ্যের প্রাথমিকের শিক্ষক-শিক্ষিকারা যে হারে বেতন পান, সেই হারেই এ রাজ্যের প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন কাঠামো হওয়া উচিত। তা না হলে, ন্যায্য বেতনের দাবিতে তাঁরা অনশন আন্দোলন চালিয়ে যাবেন। সূত্রের খবর, এই অনশনে প্রায় প্রতিদিনই কেউ না কেউ অসুস্থ হয়ে পড়ছেন। এ দিনও সাত জন আন্দোলনকারী অসুস্থ হয়ে পড়েন।

[ আরও পড়ুন: কল সেন্টারের আড়ালে শহরে ফাঁদ পেতেছে প্রতারণা চক্র, পুলিশের জালে আট ]

সল্টলেকের একটি হাসপাতালে তাঁদের ভর্তি করা হলে পাঁচজনকে প্রাথমিক চিকিৎসার পর ছেড়ে দেওয়া হয়। আন্দোলনকারীরা জানান, অন্যান্য রাজ্যের প্রাথমিকের শিক্ষকরা ৯৩০০ থেকে ৩৪,৮০০ টাকার মধ্যে বেতন পেয়ে থাকেন। সেখানে তাঁরা ৫৪০০ থেকে ২৫৪০০ টাকা বেতন পান। এ রাজ্যের এই বেতন কাঠামো সংস্কারের দাবি উঠেছে। অভিযোগ, আন্দোলনকারীদের ১৪ জনকে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে বাড়ি থেকে দূরে বদলি করা হয়েছে। তাঁদের আগের জায়গায় ফিরিয়ে আনারও দাবি উঠেছে। ইতিমধ্যে বিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতারা প্রাথমিকের শিক্ষকদের পাশে থাকার বার্তা দিয়েছেন। সম্প্রতি সেখানে গিয়ে শিক্ষকদের সঙ্গে দেখা করে এসেছেন কংগ্রেস নেতা ওমপ্রকাশ মিশ্র৷ শাসকদলের অস্বস্তি বাড়িয়ে অনশনকারীদের পাশে থাকার বার্তা দিয়েছেন বিধাননগরের সদ্য পদত্যাগী মেয়র সব্যসাচী দত্ত৷ শনিবার গেলেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি৷ যদিও আন্দোলনরত শিক্ষকরা জানিয়েছেন, তাঁরা সম্পূর্ণ অরাজনৈতিক। যাঁরা পাশে দাঁড়াতে চাইছেন, তাঁদের স্বাগত।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং