BREAKING NEWS

২ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

‘টাকা দিয়ে গণতন্ত্রের সর্বনাশ হয়েছে’, ভোটের ফল নিয়ে প্রতিক্রিয়া মুখ্যমন্ত্রীর

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: June 3, 2019 5:35 pm|    Updated: June 3, 2019 5:35 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: টাকা, ক্ষমতা, সাংবিধানিক পদের অপব্যবহার করে এবারের ভোট হয়েছে৷ টাকা দিয়ে গণতন্ত্রের সর্বনাশ হয়েছে৷ সোমবার বিকেলে লোকসভা ভোটে দলের আশানুরূপ ফলাফল না হওয়া নিয়ে নবান্ন সভাঘরে রাজ্য সরকারের বৈঠকের পর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে এমনই অভিযোগ তুললেন মুখ্যমন্ত্রী৷ ছকে নিলেন রাজ্য সরকার এবং তৃণমূলের পরবর্তী কর্মসূচি৷ ভোটের খবরাখবর পরিবেশনে সাংবাদিকদের দায়িত্ববোধ নিয়ে খানিকটা উষ্মাপ্রকাশও করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

[আরও পড়ুন: ‘সাবলম্বী হয়ে ওঠার উপাদান বাইসাইকেল’, বিশ্ব সাইকেল দিবসে টুইট মুখ্যমন্ত্রীর]

ভোটের ফলাফলের পর নিজের কালীঘাটের বাড়িতে দলীয় স্তরে বৈঠক করেছেন আগেই৷ সোমবার নবান্নে প্রশাসনিক স্তরে আলোচনায় বসলেন মুখ্যমন্ত্রী৷ ঘণ্টা দুয়েকের বৈঠকের পর বেরিয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েই একাধিক অভিযোগ তুললেন৷ তাঁর কথায়, ‘রাজনৈতিক আলোচনার থেকেও এবার কী কী ষড়যন্ত্র হয়েছে, তা নিয়ে বেশি কথা হয়েছে৷ এবারের ভোটে মানি পাওয়ার, মাসল পাওয়ার, সাংবিধানিক ক্ষমতা সব কিছুর অপব্যবহার করা হয়েছে৷ কত টাকা খরচ হয়েছে, লুট হয়েছে৷ আর এই টাকা দিয়ে গণতন্ত্রের সর্বনাশ হয়েছে৷ এটা সত্যি কথা৷ এনিয়ে আমাদের আরও আলোচনা করতে হবে৷ এসব সত্ত্বেও আমাদের ছেলেমেয়েরা বলিষ্ঠভাবে লড়েছে৷’ মুখ্যমন্ত্রীর আরও অভিযোগ, ইভিএম কারচুপি হয়েছে৷ তিনি বলেন, ‘ইভিএম প্রোগ্রামিংয়ের মাধ্যমে সব করেছে বিজেপি৷ কৃত্রিম মেকানিজম৷ তাই এখন ভয় পাচ্ছে৷ তড়িঘড়ি দলীয় আমাদের কার্যালয়গুলো দখলের মতো কাজ চলছে৷ বাংলার সংস্কৃতি দ্রুত বদলে দেওয়ার চেষ্টা হচ্ছে৷ কিন্তু এখানে এসব করা সহজ নয়৷ আমরা প্রতিরোধ করব৷’

এরপরই মুখ্যমন্ত্রী নিজেদের পরবর্তী কর্মসূচির কথা বলেন৷ তিনি জানান, ‘২১ জুলাই একটা নির্দিষ্ট বিষয়কে সামনে রেখে আমরা আন্দোলন করেছিলাম, নো আইকার্ড, নো ভোট৷ সময় বদলেছে৷ এবছর আমরা ২১ জুলাইয়ে স্লোগান তুলব–গণতন্ত্র বাঁচাও, ব্যালট ফিরিয়ে দাও৷ স্লোগান হবে – মেশিন চাই না, ব্যালট চাই৷’ এই ব্যালটে ভোটের দাবিতে নির্বাচনের বহু আগে থেকেই তৎপর হয়েছিল কংগ্রেস-সহ বেশ কয়েকটি বিরোধী দল৷ ফের সেই দাবিতে সরব হতে হবে বলে মনে করছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ দলের বিধায়করা এরপর থেকে বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্রচার করবেন৷ ২১ জুলাই পর্যন্ত এভাবেই রাজ্যের ২৯৪টি বিধানসভা কেন্দ্র এলাকায় প্রচার চলবে৷

[আরও পড়ুন: বিনা নোটিসে শিয়ালদহ-বেলেঘাটা রুটে বন্ধ অটো, বিপাকে যাত্রীরা]

এদিনের সাংবাদিক বৈঠকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সাংবাদিকদের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন৷ তাঁর অভিযোগ, বিজেপি ফেক নিউজ ছড়িয়ে বাংলার বদনাম করার চেষ্টা করেছে, তাতে সংবাদমাধ্যমেরও ভূমিকাও সংশয়াতীত নয়৷ আরও দায়িত্ববোধের সঙ্গে সংবাদ পরিবেশন করা উচিত৷ বিশেষত বাংলা সংবাদমাধ্যমের ক্ষেত্রে এটাই কাম্য বলে বার্তা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী৷     

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement