BREAKING NEWS

২ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

‘রাম মন্দিরের ভূমিপুজোর দিন লকডাউন প্রত্যাহার না করলে সরকারকে ভুগতে হবে’, হুঁশিয়ারি দিলীপের

Published by: Sayani Sen |    Posted: August 2, 2020 9:00 am|    Updated: August 2, 2020 9:02 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা (Coronavirus) সংক্রমণ রুখতে সপ্তাহে দু’দিন করে লকডাউনের পথে হেঁটেছে রাজ্য। আগামী ৫ আগস্ট আবারও বাংলায় সম্পূর্ণ লকডাউন। কিন্তু সেদিনই রাম মন্দিরের ভূমিপুজো। তাই ওইদিন লকডাউন করা যাবে না বলেই দাবি জানিয়েছেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh)। ওইদিন লকডাউন করলে রাজ্য সরকারকে ফল ভুগতে হবে বলেই হুঁশিয়ারি তাঁর। 

দিলীপ ঘোষ বলেন, “আমার মনে হয় এখনও সময় আছে। লকডাউন তুলে নিয়ে আগে পরে করা উচিত। ৫ আগস্ট সারা দেশের মানুষের কাছে গর্বের দিন। গৌরবের দিন। উৎসাহ, উদ্দীপনার দিন। ঐতিহাসিক দিন। ওইদিন লকডাউন করলে সরকারকে ফল ভুগতে হবে। রামচন্দ্রের মন্দির প্রতিষ্ঠা হবে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি (Narendra Modi) নিজে উপস্থিত থাকবেন। ঐতিহাসিক ক্ষণে বাংলার মানুষ শামিল হতে পারবেন না এটা দুঃখের। যাঁরা রাষ্ট্রীয় দিবসে লকডাউন করছেন, তাঁদের মানুষ কিন্তু ভুলবে না এত সহজে।”

[আরও পড়ুন: ‘গাফিলতি’তে রোগীমৃত্যু, ফের সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসককে মার রোগীর পরিবারের]

আগস্ট মাসে কবে কবে সম্পূর্ণ লকডাউন হবে, তা নিয়ে বহুবার সিদ্ধান্ত বদল করেছে রাজ্য। ইদ, রাখি, গণেশ চতুর্থীর মতো অনুষ্ঠান থাকার ফলে বারবার বদলেছে দিনক্ষণ। অবশেষে চূড়ান্ত দিনক্ষণ স্থির করা হয়। চলতি মাসে ৫, ৮, ১৬, ১৭, ২৩, ২৪ এবং ৩১ আগস্ট সম্পূর্ণ লকডাউন হবে বলেই জানিয়েছে নবান্ন। আগামী ৫ আগস্ট রাম মন্দিরের ভূমিপুজো। তার জন্য ইতিমধ্যেই সেজে উঠেছে অযোধ্যা। অকাল দীপাবলির চেহারা নেবে গোটা এলাকা। সেই ঐতিহাসিক রাম মন্দিরের ভূমিপুজোর দিনে কেন করা হচ্ছে লকডাউন, সে প্রশ্নই তুলেছেন দিলীপ ঘোষ।  বিজেপি রাজ্য সভাপতির হুঁশিয়ারি নিয়ে বিভিন্ন মহলেও চলছে জোর আলোচনা। রাজনৈতিক মহলের অনেকেই বলছেন, হিন্দুত্বকে হাতিয়ার করেই যে গেরুয়া শিবির তাদের ভোটবাক্সকে আরও শক্তিশালী করে তোলার চেষ্টা করছে তা বিজেপি রাজ্য সভাপতির হুঁশিয়ারিতেই স্পষ্ট। যদিও দিলীপ ঘোষের হুঁশিয়ারির পালটা এখনও কোনও প্রতিক্রিয়াই রাজ্য সরকারের তরফে পাওয়া যায়নি।

[আরও পড়ুন: এক মাসে প্রায় ১৫০০ করোনায় আক্রান্ত! বিধাননগরের পরিস্থিতিতে স্বস্তিতে নেই স্বাস্থ্যকর্তারা]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement