BREAKING NEWS

১২ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৯  শুক্রবার ২৭ মে ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

হয়রানির অভিযোগ তুলে হাওড়া জিআরপিতে বিক্ষোভ দৃষ্টিহীন পড়ুয়াদের

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: April 4, 2018 8:58 pm|    Updated: April 4, 2018 9:13 pm

Blind Students protest against Railway Police Force

সুব্রত বিশ্বাস: এলাকা বিভ্রাট। হাওড়া রেল পুলিশ অভিযোগ নেয়নি। অভিযোগকারী দৃষ্টিহীন ছাত্রকে গোলাবাড়ি পাঠিয়ে দেয় তারা। রেল পুলিশের এই হয়রানির অভিযোগ তুলে হাওড়া জিআরপি থানায় বুধবার দুপুরে বিক্ষোভ দেখালেন রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের দৃষ্টিহীন ছাত্রছাত্রীরা। অভিযোগ, শনিবার শিরোমণি এক্সপ্রেসে হাওড়া আসেন ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা প্রথম বর্ষের ছাত্র জীবন রক্ষিত। হাওড়া আসার পর এক ব্যক্তি সহযোগিতার আশ্বাস দিয়ে তাঁকে বাস স্ট্যান্ডে নিয়ে যাওয়ার পথে মারধর করে ব্যাগ নিয়ে চম্পট দেয়। সেদিন রেল পুলিশ ওই ছাত্রকে গোলাবাড়ি থানায় অভিযোগ করতে বলে। ঘটনাস্থলটি জেলা পুলিশের আওতায় হওয়ায় তাঁকে সেখানে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।

[আমার হাতে তরবারি দেখে বুদ্ধিজীবীদের পিলে চমকে গিয়েছে: দিলীপ ঘোষ]

এদিন বিক্ষোভকারী দৃষ্টিহীন ছাত্ররা অভিযোগ করে বলেন, দায়িত্ব এড়াতে চেয়েই রেল পুলিশের এই পদক্ষেপ। এদিন ছাত্ররা হাওড়া রেল পুলিশে অভিযোগ জানান। পাশাপাশি চুরি যাওয়া সার্টিফিকেট ও ফোন উদ্ধারের দাবি তোলেন। তাঁরা প্রশ্ন তোলেন, কেন এই হয়রানি তাও পুলিশকে জানাতে হবে। ছাত্ররা আরপিএফ হেপাজতে স্টেশনের বাইরে সিসিটিভির ফুটেজ দেখে ছাত্রকে চিহ্নিত করেন। দেখা যাচ্ছে এক ব্যক্তি তাঁকে হাতধরে নিয়ে যাচ্ছে। নিউ কমপ্লেক্স স্টেশনের বাইরের এই ফুটেজে ছবি ছাত্ররা চিহ্নিত করায় স্পষ্ট ছিল এলাকাটি গোলাবাড়ির, তাই সেখানে পাঠানো হয়েছিল বলে রেল পুলিশ জানিয়েছে। আরপিএফ জানিয়েছে, স্টেশনে কোনও যাত্রী কারও সহযোগিতা নিলে প্রশাসনের কিছু করার নেই। যা ছাত্রটি নিয়েছিলেন। আর তার সর্বস্ব চুরি করে নিয়ে যায় স্টেশনের বাইরে। ফলে পুরো বিষয়টি তাদের অধরা থেকে যাচ্ছে।

রেল পুলিশ অবশ্য এদিন অভিযোগ গ্রহণ করার পর ডিএসপি (সদর) শিশির মিত্র বলেন, যেহেতু ছাত্রটির সঙ্গে দুষ্কৃতীর প্ল্যাটফর্মেই বাক্যালাপ, তাই ঘটনার শুরু রেল পুলিশ হেপাজতে হওয়ায় তারা কেসটি গ্রহণ করে তদন্ত করবে। এদিন ছাত্ররা অভিযোগ করেন, মাঝেমধ্যেই দুষ্কৃতী হামলার শিকার হন তাঁরা। পাশাপাশি, প্রতিবন্ধীদের জন্য বরাদ্দ সিটে তাঁদের বসতে দেওয়া হয় না। ভুল করে মহিলা কামরায় উঠলে সেখান থেকে ফেলে দেন। এই অমানবিক আচরণের প্রতিবাদও করেন পড়ুয়ারা। রেল পুলিশ শনিবারের ফুটেজ সংগ্রহ করেছে। তাতে ছাত্রের সহযোগী দুষ্কৃতীকে চিহ্নিত করা সম্ভব হচ্ছে না। দাগী অপরাধী না হলে অপরাধী ধরা মুশকিল বলে স্বীকার করেছে তারা।

[আসানসোল-রানিগঞ্জের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ বাংলার বিদ্বজ্জনদের]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে