BREAKING NEWS

১২ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

বলুন তো, শহরের রাস্তায় উজ্জ্বল এই বিজ্ঞাপনে কী মারাত্মক ভুল রয়েছে?

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: August 1, 2017 5:49 am|    Updated: August 1, 2017 5:49 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সম্প্রতি sangbadpratidin.in -এ তুলে ধরা হয়েছিল বিজ্ঞাপনে ছাপার অক্ষরে বেরনো বাংলা ভাষার ভুল বানান ও ভুল বাক্য বিন্যাসের ছবি। যা নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়া তোলপাড় হয়। বাধ্য হয়ে গ্রাহকদের কাছে ক্ষমাও চেয়েছিল বিজ্ঞাপনদাতা মোবাইল পরিষেবা সংস্থাটি। কিন্তু তাতেও কি টনক নড়ল অন্যান্য সংস্থাগুলির? উপরের বিজ্ঞাপন দেখে তো তেমনটা একেবারেই মনে হয় না। ফের একটি মারাত্মক ভুল ধরা পড়ল কলকাতারই রাস্তার পাশে এক বিজ্ঞাপনে।

[বিজ্ঞাপনে বিকৃত বাংলা, এয়ারটেলের কানেকশন ছাড়লেন এই বাঙালি]

ডক্টর লালপথ ল্যাব লিমিটেড নামের একটি ডায়াগোনসিস সেন্টার তাদের বিজ্ঞাপনে যে মারাত্মক ভুলটি করে বসেছে, তাতে নিঃসন্দেহে অনেকের চাকরি নিয়ে টানাটানি পড়ে যেতে পারে। শুধু তাই নয়, ওই ডায়াগোনসিস সেন্টারের বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়েও প্রশ্ন উঠে গেল। অথচ গোটা দেশে প্রতিষ্ঠানটির ভালই নামডাক রয়েছে। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে রোগীরা চিকিৎসার জন্য হাজির হন এখানে। রাস্তার ধারে বিরাট হোর্ডিং। আর সেই হোর্ডিংয়ে জ্বলজ্বল করছে সেই ভয়ঙ্কর ভুলটি। যা খোলা চোখেই স্পষ্ট। নাহ, এ ভুল ধরতে ডাক্তারি জ্ঞান বিশেষ না থাকলেও চলবে। একটু ভালভাবে খেয়াল করলেই দেখা যাবে। কী ভুল? বিজ্ঞাপনে ডাক্তারের ভূমিকায় যে মহিলাকে দেখা যাচ্ছে, তিনি এক্স-রে প্লেটটি ধরেছেন উলটো করে। অর্থাৎ দেহের গঠন এক্কেবারে উলটে দিয়েছে এই বিজ্ঞাপন। এমন হোর্ডিং চোখে পড়ার পরই সেই ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে। এবং ফের একবার শুরু হয় সমালোচনা। অনেকেই ব্র্যান্ডের বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে দেন। এক নেটিজেন আবার মজা করে লিখেছেন, এক্স-রে প্লেটটি উলটো। এই কারণেই ডাক্তারকে এত চিন্তিত দেখাচ্ছে। আরেকজনের বক্তব্য, সত্যিকারের চিকিৎসককে বিজ্ঞাপনে না নিয়ে মডেল দিয়ে অভিনয় করালে এমনটাই হয়।

[এরকম ভুল ভবিষ্যতে হবে না, ক্ষমা চেয়ে বলল এয়ারটেল]

সোশ্যাল সাইটে বিষয়টি চাউর হতেই নড়েচড়ে বসে ডায়াগোনসিস সেন্টার। টুইট করে সংস্থার তরফে ক্ষমাও চাওয়া হয়। সঙ্গে জানানো হয়, শহরে মোট তিনটি হোর্ডিংয়ে এমন ভুল বিজ্ঞাপন ছিল। যা সরিয়ে ফেলা হয়েছে। এবং তার পরিবর্ত বিজ্ঞাপনও আনা হচ্ছে। তবে শুধু ডক্টর লালপথ ল্যাব লিমিটেডের বিজ্ঞাপন নয়, রাস্তায় হাঁটতে-চলতে এমন অনেক বিজ্ঞাপনই চোখে পড়ে, যা দেখে হাসি চেপে রাখা কঠিন হয়ে পড়ে। তবে প্রতিবাদ জানানো হয় না। আর তাই অবাধে বোধহয় সেগুলি রাস্তার পাশে উজ্জ্বল হয়েই থেকে যায়।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement