২২ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  সোমবার ৯ ডিসেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বুলবুলের ক্ষতিপূরণ নিয়ে কেন্দ্র-রাজ্যের সংঘাত লেগেই রয়েছে। সোমবারই বিধানসভায় এপ্রসঙ্গে ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবার ক্ষতিপূরণ প্রসঙ্গে কেন্দ্রকে তোপ দাগলেন মন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য। দাবি করলেন প্রচারের উদ্দেশ্যেই ভুল তথ্য দিচ্ছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা।

সম্প্রতি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী জি কিষাণ রেড্ডি জানান যে, “বুলবুল ঘূর্ণিঝড়ে বাংলায় ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে, এবং ৩৫ লক্ষ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন বলে জানিয়েছে রাজ্য সরকার। এছাড়া সড়ক, সেতু-সহ পরিকাঠামোরও ক্ষতি হয়েছে।”  সেই সঙ্গে তিনি দাবি করেন যে, বুলবুলে পশ্চিমবঙ্গের ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য কেন্দ্রের তরফে ৪১৫ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছিল। এই মন্তব্যের প্রতিবাদ করে কেন্দ্রকে একহাত নিলেন চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য। তিনি বলেন, বুলবুলের জন্য কেন্দ্রের তরফে কোনও টাকা পায়নি পশ্চিমবঙ্গ। তাঁর দাবি, কেন্দ্রের তরফে যা অনুদান দেওয়া হয়েছে তা অন্যান্য খাতে। তার সঙ্গে কোনওভাবেই বুলবুলের কোনও সম্পর্ক নেই। পাশাপাশি তিনি দাবি করেন, বাংলার মানুষের সহানুভূতি পেতেই এই মিথ্যে প্রচার করছে বিজেপি।

[আরও পড়ুন: গঙ্গার ভাঙন রোধে সদর্থক ভূমিকা নেই কেন্দ্রের, বিধানসভায় বিজেপিকে তোপ শুভেন্দুর]

প্রসঙ্গত, প্রথম থেকে বুলবুলের ক্ষয়-ক্ষতিতে কেন্দ্রের ভূমিকা নিয়ে উষ্মা প্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। সোমবার বিধানসভাতেও একরাশ ক্ষোভ উগরে দিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রী জানান, বুলবুলের তাণ্ডবের পরের দিনই প্রধানমন্ত্রী, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বাংলার পাশে থাকার আশ্বাস দিয়ে টুইট করেছিলেন। কিন্তু কার্যক্ষেত্রে দেখা গেল, সাহায্যের হাত বাড়াল না কেন্দ্র। কোনও আর্থিক সাহায্যই এসে পৌঁছায়নি নবান্নে। কেন্দ্রের সাহায্য না পেয়ে অর্থদপ্তরের তরফে ১২০০ কোটি টাকার ত্রাণ তহবিল তৈরি করা হয়েছে। এছাড়াও তিনি জানান, ‘অর্থদপ্তর ইতিমধ্যেই কৃষি জমির জন্য সাহায্য করতে চাষিদের ১২১৬ কোটি টাকার অর্থ বরাদ্দ করে তা রিলিজ করে দিয়েছে। ৬ লক্ষ কিট তৈরি করা হচ্ছে। জেলাশাসক যেগুলো ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের হাতে তুলে দিচ্ছেন।’

[আরও পড়ুন: বিলে সই করেননি রাজ্যপাল, বেনজিরভাবে ২ দিনের জন্য স্থগিত বিধানসভার অধিবেশন]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং