২ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

সব্যসাচী দত্তকে হেনস্তার প্রতিবাদে বিজেপির কর্মসূচিতে পুলিশি বাধা, তুমুল উত্তেজনা সল্টলেকে

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: June 11, 2020 1:47 pm|    Updated: June 11, 2020 2:42 pm

An Images

কলহার মুখোপাধ্যায়, বিধাননগর:  রাজ্য বিজেপির সম্পাদক তথা বিধায়ক সব্যসাচী দত্তকে হেনস্তার প্রতিবাদে বিজেপি নেতৃত্বের প্রতিবাদ কর্মসূচি আটকে গেল  পুলিশের বাধায়। সল্টলেকের করুণাময়ীতে এ নিয়ে উত্তেজনাকর পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। বৃহস্পতিবার করুণাময়ী থেকে মিছিল করে মহকুমা শাসকের দপ্তরে গিয়ে একটি স্মারকলিপি দেওয়ার কথা ছিল বিজেপি প্রতিনিধি দলের। তবে এদিনে মিছিলের শুরুতেই পুলিশি বাধার মুখে পড়েন সদস্যরা। করুণাময়ীতেই মিছিল আটকে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। যার জেরে প্রায় ঘণ্টাখানেক ধরে অশান্ত ছিল এলাকা।

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে দশটা নাগাদ বিধাননগর মণ্ডলের সদস্য, কর্মীরা করুণাময়ীতে জমায়েত হয়েছিলেন, মিছিল করে এসডিও অফিসে গিয়ে স্মারকলিপি জমা দেওয়ার জন্য। মিছিলের নেতৃত্বে ছিলেন বিধাননগর উত্তর মণ্ডলের সভাপতি প্রভাকর মণ্ডল, জেলা নেত্রী দেবী দোলুই। অভিযোগ, পুলিশ শুরুতেই মিছিল আটকে দেয়। এ নিয়ে বিজেপি সদস্যদের সঙ্গে পুলিশের বেশ বাকবিতণ্ডা হয়। এরপর জোর করে প্রতিনিধি দলটিকে দুটি ভাগে ভাগ করে বাসে চড়িয়ে সেখান থেকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। একটি দলকে বিধাননগর দক্ষিণ থানার দিকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। যাওয়ার পথে নেতাজি মূর্তির সামনে বাস থামিয়ে তাঁরা নেমে পড়েন। সেখান থেকে ফের মিছিল শুরু করেন। কিন্তু সেই মিছিলও বেশি দূর এগনোর আগে পুলিশ আটকে তাঁদের সকলকে বিধাননগর পূর্ব থানায় নিয়ে যায়।

[আরও পড়ুন: নিয়মের গেরো, শুরুর কয়েকদিনের মধ্যেই বন্ধ দমদম বিমানবন্দরের কোয়ারেন্টাইন সেন্টার]

গত সোমবার লেকটাউনের দক্ষিণদাঁড়ি এলাকায় বিজেপি নেতা সব্যসাচী দত্ত এক দলীয় কর্মীর বাড়িতে যাচ্ছিলেন। সেখানে তাঁর গাড়ি ঘিরে বিক্ষোভ দেখানো হয়। দেওয়া হয় ‘গো ব্যাক’ স্লোগানও। চূড়ান্ত অপ্রীতিকর পরিস্থিতির মধ্যে পড়তে হয় তাঁকে। এমনকী জেলা সভাপতি কিশোর করও এই বিক্ষোভের মধ্যে পড়েন। এর নেপথ্যে তৃণমূলের কর্মী, সমর্থকদের বিরুদ্ধে আঙুল তোলে বিজেপি। ওইদিন বিজেপি-তৃণমূল সংঘর্ষে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল দক্ষিণদাঁড়ি এলাকা।  আজ এসবের প্রতিবাদেই বিধাননগর মণ্ডলের তরফে আজ মহকুমা শাসকের কাছে স্মারকলিপি প্রদান কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছিল। কিন্তু পুলিশি বাধায় শেষ পর্যন্ত স্মারকলিপি দিতে পারেননি তাঁরা। এ নিয়ে মিছিল অংশগ্রহণকারী তথা বিধাননগর মণ্ডলের কর্মী সঞ্জীব সিনহা বলেন, ”আমাদের মিছিল করতে দেয়নি পুলিশ। জোর করে শান্তিপূর্ণ মিছিল আটকানো হয়েছে। এর বিরুদ্ধে আমাদের প্রতিবাদ জারি থাকবে।”

[আরও পড়ুন: করোনায় আক্রান্ত এনআরএসের চিকিৎসক, ভরতি বেলেঘাটা আইডিতে]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement