৫ আশ্বিন  ১৪২৫  শনিবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  |  পুজোর বাকি আর ২৪ দিন

মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও রাশিয়ায় মহারণ ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

অর্ণব আইচ: কলকাতা থেকে চিনের কুনমিং। ইউনান প্রদেশের এই ছবির মতো শহরটিতে আকাশপথে যেতে সময় লাগে সাকুল্যে সওয়া দুই ঘণ্টা। আর রেলপথে? বড়জোর ঘণ্টা পাঁচেক। এবার কলকাতা থেকে বুলেট ট্রেনে পৌঁছনো যাবে কুনমিং। মাঝে পড়বে বাংলাদেশ ও মায়ানমার। রেলপথ তৈরি করতে আগ্রহ দেখিয়েছে চিন সরকার।

[লক্ষ্মীপুজোর পরই দক্ষিণেশ্বরে চালু স্কাইওয়াক, ঘোষণা ফিরহাদের]

বুধবার কলকাতায় একটি অনুষ্ঠানে চিনের কনসাল জেনারেল মা ঝানোউ জানান, ‘স্কলার’দের কাছ থেকেই এই প্রস্তাবটি প্রথমে আসে। ‘অত্যন্ত আকর্ষণীয়’ এই প্রস্তাবটি বাস্তবায়িত করতে আগ্রহী চিন সরকার। এই রুটে বুলেট ট্রেন চালু করা গেলে কলকাতা-সহ পূর্ব ভারত ও উত্তর-পূর্ব ভারতের সঙ্গে সহজেই জোড়া যাবে বাংলাদেশ, মায়ানমার ও চিনকে। চার দেশের মধ্যে পণ্য ও মানুষের যাতায়াত সুবিধাজনক হবে। ট্রেনটি কলকাতা থেকে রওনা দিয়ে বাংলাদেশের ঢাকা হয়ে যাবে মায়ানমার। ঘণ্টায় গড়ে চারশো কিলোমিটার বেগে মায়ামারের সীমান্ত পেরিয়ে চিনের কুনমিংয়ে গিয়ে থামবে বুলেট ট্রেন। স্টেশনগুলিতে দাঁড়াতে  যত কম সময় নেবে, তত তাড়াতাড়ি ট্রেন পৌঁছবে কলকাতা থেকে চিন। চিন সরকার চায়, বিশেষজ্ঞরা আরও বেশি করে এই বিষয়টি নিয়ে পর্যালোচনা করুন। এর পর বিষয়টি নিয়ে ভারত, বাংলাদেশ ও মায়ানমার সরকারের সঙ্গে আলোচনা শুরু হবে। বুলেট ট্রেনের জন্য আলাদা লাইন তৈরি করতে হবে। সেক্ষেত্রে কিছুটা সমস্যা হতে পারে। চিনের কনসাল জেনারেলের দাবি, সবুজ সংকেত পেলে মাত্র দশ বছরেই বুলেট ট্রেন চালু করা হয়ে যাবে। জানা গিয়েছে, চিনের কুনমিং শহর ছবির মতো সুন্দর। কলকাতার শহরের এক ব্যবসায়ী চিনের এই শহরেই তাঁর ছেলে বিয়ে দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছেন। আগামী ডিসেম্বর সপরিবার ছেলে ও হবু পুত্রবধূকে নিয়ে কুনমিং উড়ে যাবেন তিনি।

[ পুজোর মুখে সুখবর, বেতন বাড়ছে সিভিক ভলান্টিয়ারদের

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং