BREAKING NEWS

১০ অগ্রহায়ণ  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ২৬ নভেম্বর ২০২০ 

Advertisement

‘বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যর ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে অন্যায় করেছেন রাজ্যপাল’, প্রতিবাদ সিপিএমের

Published by: Tiyasha Sarkar |    Posted: October 25, 2020 1:47 pm|    Updated: October 25, 2020 1:51 pm

An Images

বুদ্ধদেব সেনগুপ্ত:বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যর ছবি সোশ‍্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে রাজ‍্যপাল অন‍্যায় করেছেন”, এমনটাই মনে করছে সিপিএম নেতৃত্ব। রাজ‍্যের সাংবিধানিক প্রধান এমন কাজ করতে পারেন কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন সিপিএম পলিটব‍্যুরোর সদস‍্য মহম্মদ সেলিম (Md. Salim)। জগদীপ ধনকড় (Jagdeep Dhankhar) ঠিক কাজ করেননি বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

দীর্ঘদিন ধরেই অসুস্থ রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য। সিপিএম (CPM) নেতা-কর্মীরা দীর্ঘদিন তাঁর ছবি দেখেননি। বুদ্ধবাবু নিজেও চাননি তাঁর অসুস্থ অবস্থার ছবি প্রচার হোক। এরই মাঝে অষ্টমীর রাতে বুদ্ধবাবুর বাড়ির বেশ কিছু ছবি টুইট করেন রাজ্যপাল। যেখানে দেখা গিয়েছে সস্ত্রীক ধনকড় বসে রয়েছেন আর বিছানায় শুয়ে প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী। মুহূর্তে ছড়িয়ে পড়ে সেই ছবি। সেখানে বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের অসুস্থ অবস্থায় শুয়ে থাকার ছবি দেখে কষ্ট পেয়েছেন সিপিএম নেতা-কর্মীরা। প্রিয় নেতার ছবি দেখে চোখ ভিজেছে অনেকের।

[আরও পড়ুন: শারদীয়ার শুভেচ্ছা জানাতে বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যর বাড়িতে ধনকড়, চলল রাজনৈতিক আলোচনা]

এতেই আলিমুদ্দিন প্রশ্ন তুলছে, বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যকে দেখতে গিয়ে তাঁর অশক্ত চেহারার ছবি কেন প্রকাশ করলেন রাজ্যপাল? যে বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য নিজেকে নিয়ে কোনও প্রচার চান না, তাঁর এই ছবি প্রকাশ্যে এনে কোন রুচিবোধের পরিচয় দিলেন রাজ্যপাল? আলিমুদ্দিন স্ট্রিটের নেতাদের শত-অনুরোধেও হাসপাতালে যেতে চাননি বুদ্ধবাবু। শুধু লোক জানাজানি এড়িয়ে যেতে চান বলে। তাঁর এই ছবি প্রচার করে কি সৌজন্যের পরিচয় দিলেন রাজ্যপাল? প্রশ্ন তুলে সরব হয়েছে সিপিএমের নেতা-কর্মীরা। উল্লেখ্য, এই প্রথম নয়। এ রাজ্যের সাংবিধানিক দায়িত্ব নিয়ে পদে বসার পর জগদীপ ধনকড় একবার গিয়েছিলেন বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যর (Buddhadeb Bhattacharya) বাড়িতে। সেসময় তিনি বেশ অসুস্থ ছিলেন। তাঁর শারীরিক অবস্থায় খোঁজখবর নিতেই রাজ্যপাল গিয়েছিলেন। তারপর অষ্টমীর সন্ধ্যায় ফের তিনি গেলেন দ্বিতীয়বারের জন্য।

[আরও পড়ুন: হাই কোর্টের নির্দেশ অমান্য করে সুরুচিতে অঞ্জলি, নুসরত-সৃজিত-মহুয়াদের বিরুদ্ধে আইনি নোটিস]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement