৯ মাঘ  ১৪২৬  বৃহস্পতিবার ২৩ জানুয়ারি ২০২০ 

BREAKING NEWS

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

৯ মাঘ  ১৪২৬  বৃহস্পতিবার ২৩ জানুয়ারি ২০২০ 

BREAKING NEWS

দীপঙ্কর মণ্ডল: আচার্যের ক্ষমতা খর্বের বিধি পেশের পরই বৈঠক ডাকলেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। ই-মেলের মাধ্যমে ইতিমধ্যেই রাজ্যের সমস্ত উপাচার্যদের বৈঠকের কথা জানানো হয়েছে। শুক্রবার দুপুর সাড়ে তিনটে নাগাদ বৈঠকে বসার কথা রয়েছে তাঁদের। ওই বৈঠকের আলোচ্য বিষয় নিয়ে মাথাচাড়া দিয়েছে নানা জল্পনা। ওয়াকিবহাল মহলের মতে, রাজ্যপাল বা আচার্যের সঙ্গে উপাচার্যদের ঠিক কেমন সম্পর্ক থাকবে, শিক্ষাক্ষেত্রে ঠিক কতটুকুই বা ভূমিকা থাকবে আচার্যের, সেসব বিষয়েই আলোচনা হতে পারে শিক্ষামন্ত্রী-উপাচার্য বৈঠকে।

বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আচমকা উপস্থিত হচ্ছিলেন রাজ্যপাল তথা আচার্য জগদীপ ধনকড়। প্রায় নজির গড়ে হাজির হয়েছিলেন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের সেনেট বৈঠকে। যা নিয়ে রাজ্য সরকারের সঙ্গে দ্বন্দ্ব তৈরি হয়। তারপর একাধিক ইস্যুই জিইয়ে রেখেছে দু’পক্ষের সংঘাতের রেশ। তারই মাঝে রাজ্যপালের ক্ষমতা খর্ব করতে একাধিক বিধি প্রণয়নের পথে হাঁটছে রাজ্য সরকার। বিরোধীদের দাবি, নিয়ম চালু করে বিশ্ববিদ্যালয়গুলিকে কার্যত শিক্ষাদপ্তরের মাধ্যমে পরিচালনার উদ্যোগ নিয়েছে রাজ্য। বিধানসভায় পেশ হওয়া নতুন এই বিধির বিরুদ্ধে সমালোচনার সুর চড়িয়েছেন প্রায় প্রত্যেকে। তার পরেরদিনই উল্লেখযোগ্যভাবে প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠান স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। যাতে প্রধান অতিথি হিসাবে আমন্ত্রিত ছিলেন রাজ্যপাল তথা আচার্য জগদীপ ধনকড়। ওয়াকিবহাল মহলের দাবি, শুধুমাত্র আচার্যের আমন্ত্রণের জন্যই স্থগিত রাখা হয়েছে সমাবর্তন। তার রেশ কাটতে না কাটতে সংঘাতে নয়া ইন্ধন। এবার উপাচার্যদের সঙ্গে বৈঠকে বসার সিদ্ধান্ত নিলেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। উচ্চশিক্ষা সংসদের তরফে ই-মেলের মাধ্যমে বৈঠকের কথা রাজ্যের সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের জানানো হয়েছে। আগামিকাল অর্থাৎ শুক্রবার দুপুর সাড়ে তিনটে নাগাদ বিকাশ ভবনে হবে ওই বৈঠক। তবে ওই বৈঠকে কোন কোন বিষয়ে আলোচনা হবে, তা এখনও নিশ্চিতভাবে কিছুই বলা যাচ্ছে না।

[আরও পড়ুন: সংঘাতে ঘৃতাহুতি! শিক্ষাক্ষেত্রে রাজ্যপালের ক্ষমতা খর্বের বিল পেশের পরই স্থগিত সমাবর্তন]

আচার্যের ক্ষমতা খর্বের বিধি পেশের পর এই বৈঠক যে যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ তা বলার অপেক্ষা রাখে না। ওয়াকিবহাল মহলের মতে, আচার্য আগে বিশ্ববিদ্যালয়ে কতটা হস্তক্ষেপ করতে পারতেন এবং বিধি পেশের পর কতটা করতে পারবেন, তা নিয়ে আলোচনা হবে ওই বৈঠকে। এছাড়াও আচার্য এবং উপাচার্যদের মধ্যে কেমন সম্পর্ক থাকবে, তা নিয়েও আলোচনা হতে পারে শুক্রবারের বৈঠকে। আচার্যের ক্ষমতা খর্বের বিধি পেশের ঠিক পরেই উপাচার্যদের নিয়ে বৈঠকে কী আলোচনা হয়, সেদিকে তাকিয়ে গোটা শিক্ষামহল।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং