BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

মুখ্যমন্ত্রীর বাড়িতে কুণাল, রাজনৈতিক মহলে নয়া সমীকরণের ইঙ্গিত

Published by: Sayani Sen |    Posted: June 1, 2019 9:05 pm|    Updated: June 1, 2019 9:13 pm

An Images

দীপঙ্কর মণ্ডল: ছ’বছর পর মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে মুখোমুখি দেখা তৃণমূলের প্রাক্তন সাংসদ কুণাল ঘোষের৷ শনিবার বিকেলে কালীঘাটে মুখ্যমন্ত্রীর বাসভবনে যান তিনি৷ যুব তৃণমূল সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে দু-দফার বৈঠকের মাঝে মমতার সঙ্গে দীর্ঘ আলোচনা হয় প্রাক্তন সাংসদ-সাংবাদিকের৷ বৈঠকের মাঝে বেশ কয়েকবার চা পান করেন কুণাল ঘোষ৷

[ আরও পড়ুন: শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ১০০ মিটারের মধ্যে তামাকজাত দ্রব্য বিক্রি নয়, নির্দেশ পুরসভার]

২০১৩ সালের জুন মাসে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে শেষ মুখোমুখি বৈঠক হয় কুণাল ঘোষের৷ তারপর আবারও শনিবার৷ এদিন মুখ্যমন্ত্রী তাঁকে প্রশ্ন করেন, ‘‘তুমি কী দলে ফিরছ?’’ উত্তরে কুণাল বলেন,‘‘আমি তো দলে ছিলাম এবং আছিও৷’’ প্রসঙ্গত, বিচারাধীন বন্দি থাকাকালীন প্রতিমাসে নিয়ম করে দলীয় চাঁদা পাঠিয়েছেন কুণাল৷ সাংসদ কোটার টাকায় বিভিন্ন জেলায় উন্নয়ন প্রকল্পে সাহায্য করেছেন তিনি৷ তৃণমূল সুপ্রিমোর সঙ্গে বৈঠকের পর কুণাল বলেন, ‘‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে আমার অনেক দিনের পরিচয়৷ আমি তৃণমূলের পুরনো সৈনিক৷ দলের কঠিন সময়ে ছিলাম৷ আছি এবং থাকব৷ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে কথা হয়েছে৷ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে কথা হয়েছে৷ দলের পুরনো কর্মী হিসাবেই গিয়েছিলাম৷’’

[ আরও পড়ুন: নারদ কাণ্ডে ফের সক্রিয় ইডি, তলব রত্না চট্টোপাধ্যায়-শ্রেয়া পাণ্ডেকে]

এক্সিট পোলে মিলেছিল আভাস৷ লোকসভা নির্বাচনের ফলপ্রকাশের পর সেই আভাস রূপ নিয়েছে বাস্তবের৷ বিজেপি দখল করে নিয়েছে রাজ্যের ১৮টি লোকসভা আসন৷ তুলনামূলক খারাপ ফল হয়েছে ঘাসফুল শিবিরে৷ ২৩ মে-র পর থেকে দলবদলের মতো ঘটনাও লেগেই রয়েছে৷ একে একে বেশ কয়েকজন বিধায়ক যোগ দিয়েছেন গেরুয়া শিবিরে৷ দলের খারাপ অবস্থায় পুরনো নেতাদেরও ফিরে আসার আহ্বান জানানো হয়েছে দলের তরফে৷ ইতিমধ্যেই কলকাতার প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়কে ফোন করেছেন পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম৷ রাজনৈতিক চাপানউতোরের মাঝেই আবারও নয়া জল্পনা৷ এদিন মুখ্যমন্ত্রীর কালীঘাটের বাড়িতে দেখা করার পর কুণালের শরীরী ভাষা ইতিবাচক৷ দলবিরোধী কাজের জন্য তৃণমূল সাসপেন্ড করেছিল কুণাল ঘোষকে৷ দলের খারাপ অবস্থায় সেই সাসপেন্ডেড সাংসদের আনাগোনায় নয়া সমীকরণের গন্ধ পাচ্ছেন রাজনীতির কারবারিরা৷ তবে কি দলে ফের কোনও গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় দেখা যেতে পারে এককালের মমতার একনিষ্ঠ সৈনিককে? ইতিমধ্যেই মাথাচাড়া দিয়েছে সেই জল্পনা৷ তৃণমূলের তরফে এখনও এই বিষয়ে কিছু জানানো হয়নি৷ 

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement