BREAKING NEWS

৪ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

মুখোশের আড়ালে অপরাধী! সতর্ক থাকতে ব্যাংক-এটিএমে ৩০ সেকেন্ড মাস্ক খোলার প্রস্তাব লালবাজারের

Published by: Sulaya Singha |    Posted: June 9, 2020 12:20 pm|    Updated: June 9, 2020 12:20 pm

An Images

অর্ণব আইচ: মাস্ক পরে যে ব্যক্তিটি ব্যাংক বা এটিএমে ঢুকছে, সে কি সত্যি ব্যাংক গ্রাহক? না কি তার অন্য কোনও উদ্দেশ্য রয়েছে?
করোনা রোধে মাস্ক জীবনের অঙ্গ হয়ে উঠতেই উঠে এসেছে এই প্রশ্ন। কিন্তু মাস্ক খুলে মাত্র ৩০ সেকেন্ড সিসিটিভি ক্যামেরার সামনে দাঁড়ালেই উঠবে গ্রাহকের ছবি। মুখ মাস্কে ঢাকা থাকলেও কয়েক সেকেন্ডের এই ফুটেজই শনাক্ত করবে অপরাধীকে। এটাই নিয়মের মধ্যে আনার জন্য এবার ব্যাংক কর্তৃপক্ষকে প্রস্তাব দিচ্ছে লালবাজার।

এক পুলিশকর্তা জানিয়েছেন, এই বিষয়ে পরিকল্পনা চলছে। এখনও চূড়ান্তভাবে কোনও পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। তবে মাস্ক পরে যাতে শহরে অপরাধ না হয়, সেদিকে পুলিশ নজর দিচ্ছে। পুলিশ জানিয়েছে, গত কয়েক সপ্তাহের মধ্যে মাস্ক পরে অপরাধের প্রবণতা বেড়েছে শহরে। কোথাও বা চোর ঢুকেছে মাস্কে মুখ ঢেকে। আবার কোথাও মাস্ক পরে দুষ্কৃতীরা ভাঙার চেষ্টা করেছে এটিএম। লালবাজারের এক আধিকারিক জানান, অপরাধের এই ট্রেন্ড যে পালটাবে, তা তারা বুঝতে পারছিলেন।

[আরও পড়ুন: আনলক ওয়ানে বাড়ছে রেস্তরাঁর খরচও, প্লেট-বাটির দাম মেটাতে হবে গ্রাহককেই]

এই অভিজ্ঞতা তাঁদের আগেও হয়েছে। রোমানীয় জালিয়াতরা এটিএমের ভিতর মাস্ক পড়ে ঢুকেই স্কিমার যন্ত্র লাগাত, টাকাও তুলত। এখন যেহেতু মাস্ক পরে বেরনো বাধ্যতামূলক, তাই অপরাধীরা এই সুযোগ কাজে লাগানোর চেষ্টা করছে। গত কয়েক সপ্তাহের মধ্যে উত্তর কলকাতার বড়তলা, মধ্য কলকাতার আর এন মুখার্জি রোড, দক্ষিণের কসবায় এটিএম ভাঙার চেষ্টা করেছে দুষ্কৃতীরা। তারা প্রত্যেকেই ঢুকেছিল মাস্ক পরে। যদিও ভাঙার চেষ্টা সার হয়েছে। টাকা নিয়ে যেতে পারেনি তারা। গোয়েন্দারা জানান, অপরাধীর মুখ মাস্কে ঢাকা থাকলেও চেহারা ঢাকা থাকে না। তাই সিসিটিভি ফুটেজে অপরাধীদের চলাফেরার আচরণের উপর নজর রেখে তাদের শনাক্ত করা যায়। কারণ দেখা গিয়েছে, বেশিরভাগই এলাকার বাসিন্দা।

কিছুদিন আগে এসএসকেএম হাসপাতালে মাস্ক পরে চুরি করে এক দুষ্কৃতী। হাঁটাচলা দেখেই তাকে গ্রেপ্তার করে ফেলা হয়। কিন্তু এতে সন্তুষ্ট নন গোয়েন্দারা। কারণ মাস্ক পরে সংগঠিতভাবে অপরাধ করলে অপরাধীদের শনাক্ত করা খুব সহজ হবে না। লালবাজারের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, সেই কারণেই প্রথমে যে জায়গাগুলিতে অপরাধীদের আটকানো সম্ভব, সেই ব্যাংক, ঋণদাতা সংস্থা, এটিএমের ক্ষেত্রেই নতুন পরিকল্পনা করা হয়েছে। গোয়েন্দাদের পরিকল্পনা অনুযায়ী, গ্রাহক অথবা যে কোনও ব্যক্তিকেই গেট দিয়ে ঢুকে সিসিটিভির সামনে ৩০ সেকেন্ডের মত সময় ধরে মাস্ক খুলে দাঁড়াতে হবে। নিরাপত্তারক্ষীদের বলা হবে তাঁরা যেন এই বিষয়ে গ্রাহকদের অনুরোধ করেন। ব্যাংক বা ঋণদাতা সংস্থার ক্ষেত্রে অসুবিধা হবে না। যে এটিএমগুলিতে নিরাপত্তারক্ষী নেই, সেখানে নোটিস লাগিয়ে গ্রাহকদের সতর্ক করা হতে পারে। এই বিষয়ে রিজার্ভ ব্যাংকের কাছে প্রস্তাব পাঠানোর পরিকল্পনা চলছে। ব্যাংক এই প্রস্তাবে সায় দিলে তবেই তা কার্যকর হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

[আরও পড়ুন: ‘কত নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট অপ্রকাশিত? জনস্বার্থে তা জানান’, মুখ্যমন্ত্রীকে তোপ রাজ্যপালের]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement