BREAKING NEWS

১২ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

মাস্কহীন ক্রেতাদের মালপত্র দেবেন না দোকানিরা

Published by: Paramita Paul |    Posted: April 15, 2020 9:58 pm|    Updated: April 15, 2020 9:58 pm

An Images

কৃষ্ণকুমার দাস ও অর্ণব আইচ: করোনা রুখতে তৎপর রাজ্য প্রশাসন। সংক্রমণ রুখতে একাধিক পদক্ষেপ করছেন তাঁরা। যেমন বুধবার কলকাতা পুরসভা ও কলকাতা পুলিশের তরফে জোড়া পদক্ষেপ করা হল। একদিকে, মাস্কহীন খরিদ্দারদের বাজারে কোনও সামগ্রী বিক্রি করা হবে না বলে জানিয়ে দিল কলকাতা পুরসভা। অন্যদিকে, যত্রতত্র থুতু ফেললে মোটা টাকা জরিমানা করা হবে বলে খবর লালবাজার সূত্রে। সংক্রমণ রুখতে সবমিলিয়ে এবার যে প্রশাসন আরও কড়া হচ্ছে তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

কলকাতা পুরসভা সূত্রে খবর, সরকারি নির্দেশ মেনে মাস্ক পরে না এলে এবার থেকে আর বাজার করতে পারবেন কলকাতার নাগরিকরা। আবার পুরসভার বাজারের বিক্রেতারাও সবজি, মাছ বা নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী মাস্কহীন খরিদ্দারকে বিক্রিও করবেন না। বাজারে ঢোকার প্রবেশপথে রাখা সাবান জলে হয় হাত ধুতে হবে নয়তো স্প্রে দিয়ে পুরো স্যানিটাইজ করতে হবে। মহানগরের সমস্ত বাজারে এমনই নির্দেশিকা তুলে ধরে প্রচার করছে কলকাতা পুরসভা। শুধু তাই নয়, সমস্ত বাজারে দোকানদার ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী, হকারদেরও মাস্ক তুলে দিয়েছে পুরসভা। এ প্রসঙ্গে, বাজার বিভাগের মেয়র পারিষদ আমিরুদ্দিন ববি বুধবার জানিয়েছেন, “শহরবাসীর মধ্যে করোনা সংক্রমণ রুখতে পুরসভার মার্কেট-সহ সমস্ত বাজারেই প্রবেশ ও ঘোরাফেরায় বিশেষ নিয়ন্ত্রণ চালু হয়েছে। কোথাও মাস্ক ছাড়া ঢোকা যাবে না। হাত স্যানিটাইজ হলে তবেই ৪২টি পুরবাজারে ঢোকার ছাড়পত্র দেবে নিরাপত্তাকর্মীরা।” বেসরকারি শপিং মলেও মাস্কের কড়াকড়ির পাশাপাশি থার্মাল গান দিয়ে ক্রেতার শরীরের তাপমাত্রা পরীক্ষার ব্যবস্থা চালু হয়েছে শহরে। বিভিন্ন বাজারে ক্রেতা বা বিক্রেতাদের যে ভিড় হচ্ছিল, তা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। যেমন, ড়িয়াহাট পুরবাজারে মাত্র ১৫ জন করে ক্রেতার ঢোকা নিয়ন্ত্রণ করছে। বিভিন্ন এলাকায় রাস্তার উপর থেকে বাজার তুলে খোলা মাঠে পাঠানো হয়েছে বিক্রেতাদের। এদিকে, পুরসভার বাজারগুলির প্রবেশপথে তিন থেকে পাঁচটি করে বেসিন এবং সাবান রাখা হচ্ছে। 

[আরও পড়ুন : শেষকৃত্য সারার পর মিলল রিপোর্ট, করোনায় আক্রান্ত ছিলেন চোরবাগানের বৃদ্ধা]

যেখানে সেখানে থুতু ফেলা রুখতে আগেই কড়া নির্দেশিকা পাঠিয়েছিল কেন্দ্র। এবার তা নিয়ে সক্রিয় হয়েছে লালবাজারও। বুধবার এই বিষয়ে শহরবাসীকে সতর্ক করলেন পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা। এই বিষয়ে লালবাজারের এক কর্তা জানান, এবার থেকে রাস্তায় থুতু ফেললে আটক করে জরিমানা আদায়ের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এদিন লকডাউন যারা ভাঙছে তাদের সন্ধানে শহরের প্রত্যেকটা এলাকায় উড়ল ড্রোন। লকডাউন লংঘন করার অভিযোগে পুলিশ এদিন ৪৮৮ জনকে গ্রেপ্তার করে। আটক হয় ৯৩টি গাড়ি। পাশাপাশি,
পুলিশ কমিশনার মাস্ক পরার উপর ফের গুরুত্ব দিয়েছেন। মাস্ক না পড়ে বের হলে পুলিশ ধরপাকড় চালাচ্ছে। ইতিমধ্যে দু’দিনেই ২০০ জনের ওপর ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

[আরও পড়ুন : ‘এক সেকেন্ডও লাগবে না…!’, কোয়ারেন্টাইনের জায়গা অধিগ্রহণ নিয়ে হুঁশিয়ারি মমতার]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement