BREAKING NEWS

২৮ শ্রাবণ  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ১৩ আগস্ট ২০২০ 

Advertisement

‘সংবাদমাধ্যম কনটেনমেন্ট জোন নিয়ে অযথা আতঙ্ক ছড়াচ্ছে’, ক্ষোভপ্রকাশ মমতার

Published by: Tiyasha Sarkar |    Posted: July 8, 2020 5:02 pm|    Updated: July 8, 2020 6:23 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: “লকডাউন (Lockdown) নিয়ে রাজনীতি হচ্ছে, মিডিয়া অযথা আতঙ্ক ছড়াচ্ছে”, বুধবার সাংবাদিক বৈঠক থেকে এমনই মন্তব্য করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। সংবাদমাধ্যমকে ইঙ্গিত করে আবেদনের সুরে বললেন, “অযথা মানুষকে বিভ্রান্ত করবেন না।” 

বুধবার দুপুরে প্রথমে ডাক্তারদের সঙ্গে বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁদের অভাব-অভিযোগ শোনেন। এরপরই লকডাউন প্রসঙ্গে মিডিয়াকে একহাত নেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, “গতকাল কনটেনমেন্ট জোনে লকডাউন ঘোষণার পর সংবাদমাধ্যম এমনভাবে প্রচার চালাচ্ছে যেন, ফের রাজ্য স্তব্ধ করে দেওয়া হবে। এতে অকারণ মানুষের মধ্যে ভয় তৈরি হচ্ছে। কিন্তু আদতে সেরকম কিছুই হচ্ছে না।” তাঁর কথায়, “আগেও সংক্রমিতের সংখ্যার নিরিখে A, B ও C তিনটি জোন ভাগ করা হয়েছিল। এবার সেই A ও B জোনগুলিতে বিশেষ নজর দেওয়া হবে। প্রয়োজনে ব্যারিকেড করে দেওয়া হবে। এর বেশি কিছু নয়। নিরাপদ জোনের মানুষেরা স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে পারবেন। আর এই কড়াকড়ি জারি থাকবে ৭ দিন।” কনটেনমেন্ট জোনের তালিকা নিয়েও বৈঠক থেকে সংবাদমাধ্যমকে তোপ দাগেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বলেন, “লকডাউন নিয়ে রাজনীতি হচ্ছে। সংবাদমাধ্যমগুলি নিজেদের মতো করে কনটেনমেন্ট জোনের তালিকা প্রকাশ করছে, ফলে একেক জন একেক রকম দেখাচ্ছে। এতে মানুষ বিভ্রান্ত হচ্ছে।” পাশাপাশি জানান যে, আজ, বুধবারই কলকাতা, হাওড়া ও উত্তর ২৪ পরগনার কনটেনমেন্ট জোনের তালিকা প্রকাশ করা হবে। 

[আরও পড়ুন: অমানবিক! দাবি মতো টাকা না দেওয়ায় ট্র্যাকশন থেকে টেনে হিঁচড়ে খুলে নেওয়া হল রোগীর পা]

প্রসঙ্গত, আনলক ২-এ (Unlock 2) হু হু করে বেড়েছে সংক্রমিতের সংখ্যা। সেই কারণে জেলাশাসকরা ফের লকডাউন জারির প্রস্তাব পাঠিয়েছিলেন নবান্নে। সেই প্রস্তাবেই সিলমোহর দেয় নবান্ন। মঙ্গলবারই জানা যায় যে, ৯ জুলাই থেকে রাজ্যের কনটেনমেন্ট জোনগুলিতে ফুল লকডাউন জারি হবে। চলবে ১৪ দিন। কিন্তু বুধবার সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী জানালেন ৭ দিন জারি থাকবে কড়া লকডাউন।

[আরও পড়ুন: ফের উত্তপ্ত ভাটপাড়া, অর্জুন সিংয়ের বাড়ির পাশে বোমাবাজি ‘তৃণমূল’ আশ্রিত দুষ্কৃতীদের]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement