২৯ শ্রাবণ  ১৪২৭  শনিবার ১৫ আগস্ট ২০২০ 

Advertisement

পুজোয় সিপিএমের বুক স্টলে দারুণ সাড়া, রেকর্ড অঙ্কের বই বিক্রি

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: October 10, 2019 9:01 am|    Updated: October 10, 2019 12:40 pm

An Images

ক্ষীরোদ ভট্টাচার্য: জনসমর্থন তলানিতে। স্বাভাবিক নিয়মেই তার প্রতিফলন পড়েছে ভোটের বাক্সে। বামেদের ভোট কমে হয়েছে মাত্র সাত শতাংশ। কিন্তু পুজোর সময় বই বিক্রিতে অন্য সবার থেকে কয়েক মাইল এগিয়ে সিপিএম। রাজ্যে বই বিক্রি হয়েছে প্রায় দেড় কোটি টাকার। শুধুমাত্র যাদবপুর ৮বি বাস স্ট্যান্ডের পাশে বই বিক্রি হয়েছে প্রায় তিন লক্ষ টাকার। আলিমুদ্দিনের বক্তব্য, বই বিক্রিতে অতীতের সব রের্কড ভেঙে গিয়েছে এবার।

[ আরও পড়ুন: অবস্থা অত্যন্ত বিপজ্জনক, টালা ব্রিজ ভেঙে ফেলার সুপারিশ বিশেষজ্ঞের]

কলকাতায় ছোট-বড় মিলিয়ে ১০৯টি স্টল দিয়েছে সিপিএম। রাজ্যে সংখ্যাটা প্রায় দেড় হাজার। এর মধ্যে বড় বইয়ের স্টল যাদবপুর, শিলিগুড়ি, কোচবিহার, কলকাতার নারকেল বাগান ও বাগবাজারের স্টল। তবে ঘটনা হল, গত কয়েক বছর ধরে মার্কসীয় সাহিত্যের পাশাপাশি বিজ্ঞান ও শিশু সাহিত্যের বইও বিক্রি হচ্ছে পুরোদমে। আবার ভিন্ন স্বাদের দর্শন ও বিজ্ঞানের বইও বিক্রি হচ্ছে। দলের কেন্দ্রীয় কমিটির এক সদস্যের কথায়, মার্কসীয় সাহিত্যের পাশাপাশি বিজেপি ও সংঘ পরিবারের বিরুদ্ধে পালটা প্রচারের জন্য যেমন বই বিক্রি হয়েছে, তেমনই এনআরসি নিয়েও জনমত তৈরি করতে বই বিক্রি হয়েছে।

এনবিএ-র পাশাপাশি অন্যান্য প্রকাশনা সংস্থার বইও বিক্রি হয়েছে। দলের পক্ষ থেকে যাদবপুর স্টলের দায়িত্বপ্রাপ্ত সুদীপ সেনগুপ্ত বলেছেন, ‘এবার অতীতের সব রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে পার্টির বই বিক্রির স্টল। শুধুমাত্র যাদবপুর স্টলেই বুধবার সন্ধ্যা পর্যন্ত বিক্রি তিন লক্ষ টাকা ছাড়িয়ে গিয়েছে।’ নবমীতে ৮০ হাজার টাকার বই বিক্রি হয়েছিল। শিলিগুড়ি স্টলে বুধবার পর্যন্ত বই বিক্রি হয়েছে ২ লক্ষ ৭৫ হাজার টাকার বেশি। বই বিক্রি সংক্রান্ত সব হিসেব আসতে নভেম্বর হয়ে যাবে। কিন্তু তাতে কী? প্রাথমিক হিসাব পেয়েই আশ্বস্ত সিপিএম রাজ্য নেতৃত্ব।

[ আরও পড়ুন: বরুণদেবের ভ্রুকুটি উপেক্ষা করে সল্টলেকে পুড়ল ৬০ ফুটের রাবণ]

এবার দেখা যাক কী ধরনের বই বিক্রি হয়েছে সিপিএমের বইয়ের স্টলগুলিতে? ক্রেতাই বা কারা? তথ্য বলছে, কলকাতার বাগবাজার বা উত্তরের শিলিগুড়িই হোক, এনআরসি সংক্রান্ত বইয়ের চাহিদা ছিল চোখে পড়ার মতো। লক্ষ্যণীয় ঘটনা হল, এবার সিপিএমের বইয়ের স্টলগুলিতে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ভোটার ভেরিফিকেশন কাউন্টার খোলা হয়েছিল। যা অভিনব। আর এই সুযোগ নিতে বই কেনার পাশাপাশি আধার কার্ড হাতে নিয়ে তরুণ থেকে প্রবীণ ভিড় করেছিলেন স্টলগুলিতে। চিরায়ত সাহিত্যের পাশাপাশি দেবীপ্রসাদ চট্টোপাধ্যায়ের বিজ্ঞান ও দর্শনের বই বিক্রি হয়েছে। এরই পাশাপাশি প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যর সদ্য প্রকাশিত বই ‘স্বর্গের নিচে মহাবিশৃঙ্খলা’ বিক্রি হয়েছে ভালই।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement