BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

রুট বাতিলে রেলের চিঠি প্রত্যাহারের দাবি তৃণমূলের, আন্দোলনের হুঁশিয়ারি

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: January 20, 2018 10:48 am|    Updated: January 20, 2018 10:48 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: রুট বন্ধ করতে চেয়ে রেলের চিঠি ঘিরে সরগরম রাজ্য রাজনীতি। সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে কার্যত জেহাদ ঘোষণা করল শাসক দল। দলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় জানালেন, চিঠি প্রত্যাহার না হলে ফেব্রুয়ারি থেকে আন্দোলনে নামছে তৃণমূল।

[রাজ্যের ৮টি রুটে ট্রেন বন্ধ নিয়ে রেলের ভোলবদল, চূড়ান্ত বিভ্রান্তিতে যাত্রীরা]

পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের অভিযোগ রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতে এই পদক্ষেপ কেন্দ্রের। এখানেই থামেননি তিনি। তৃণমূল মহাসচিবের সাফ কথা রেলের ওই চিঠি প্রত্যাহার করতে হবে। এর জন্য ৩১ জানুয়ারি চরমসীমা দিয়েছেন তিনি। চিঠি ফিরিয়ে না নিলে আগামী মাস থেকে পথে নামবে তৃণমূল। পাশাপাশি জেলায় জেলায় প্রতিবাদ, বিক্ষোভ জারি থাকবে। এর জন্য দলের সাংসদ, বিধায়কদের পথে নামার নির্দেশ দিয়েছেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়। পাশাপাশি তাঁর বক্তব্য লাইন তোলার প্রস্তাব নিয়ে চিঠি দিয়েছিলেন একজন। অথচ এই ব্যাপার নিয়ে মুখ খুললেন আর একজন। দায় এড়াতে রেল এই কাজ করেছে বলে তাঁর অভিযোগ। তৃণমূল মহাসচিবের সাফ কথা রেলের এই সিদ্ধান্ত বাংলার মানুষের প্রতি অসম্মানের শামিল। রেলের ‘কালো’ তালিকাভুক্ত লাইনে যারা যাতায়াত করেন তারা প্রচন্ড বিপদে পড়বেন। রেলের চিঠি নিয়ে তৃণমূল সুর চড়ালেও চুপ করে বসে নেই বিজেপি। বিজেপির জাতীয় সচিব রাহুল সিনহা এই ইস্যুতে তৃণমূলের অবস্থান নিয়ে স্পষ্ট তুলেছেন। তাঁর দাবি রেল কোথাও বলেনি রুট একেবারে বন্ধ করে দেওয়া হবে। এটা স্রেফ প্রস্তাব। তা নিয়ে অহেতুক হইচই হচ্ছে। রুটিন মাফিক এধরনের প্রস্তাব পাঠানো হয়। এবার রাজ্য ঠিক করবে তারা কি চায়।

[৮টি লোকাল ট্রেনের রুট বন্ধে রেলমন্ত্রকের চিঠি রাজ্যকে]

শুক্রবার রেলের চিফ কমার্শিয়াল ম্যানেজার এস এস গেহলটের একটি চিঠি প্রকাশ্যে আসা ঘিরে বিতর্কের সূত্রপাত। গেহলট রাজ্যের মুখ্যসচিবকে চিঠি লিখে জানিয়েছিলেন আটটি শাখায় ট্রেন চললেও আশনুরূপ লাভ হচ্ছে না। তাই এগুলি বন্ধ করে দেওয়া হোক। রাজ্য এই কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তে মত দিক, নাহলে সংশ্লিষ্ট শাখায় রেল চলাচলে যে লোকসান হচ্ছে তার অর্ধেক ভার বহন করুক। এই চিঠির তীব্র বিরোধিতা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি জানিয়ে দেন এই সিদ্ধান্ত বাংলার অসম্মান। রাজনৈতিক প্রতিহিংসা।এর কিছু পরই তড়িঘড়ি পূর্ব রেলের জিএম জানিয়ে দেন কোনও রুট বন্ধ করা হবে না। রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের ব্যাখ্যা রেল পিছু হটলেও তৃণমূল বুঝিয়ে দিল এই ইস্যু তারা কোনওভাবেই হাতছাড়া করতে চায় না।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement