২৮ কার্তিক  ১৪২৬  শুক্রবার ১৫ নভেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

অর্ণব আইচ:  রাতের শহরে মদ্যপদের তাণ্ডব, থানায় ঢুকে পুলিশকর্মীদের মার। ঘটনার ৩০ ঘণ্টার মধ্যেই দু’জন অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করল পুলিশ। তদন্তকারীরা জানিয়েছেন, সিসিটিভি ফুটেজ দেখে আরও চারজনকে শনাক্ত করা গিয়েছে। তাদের সন্ধানে তল্লাশি চলছে।

[আরও পড়ুন:  মেট্রোর নিরাপত্তায় চরম গাফিলতি, ধরা পড়ল খোদ আইজি’র পরিদর্শনেই]

রাতে হেলমেটবিহীন বাইক চালকদের দৌরাত্ম্য ঠেকাতে শহরের বিভিন্ন জায়গায় নাকা চেকিং চলে। এই নাকা চেকিংকে কেন্দ্র করে রবিবার রাতে ধুন্ধুমার কাণ্ড ঘটে টালিগঞ্জ থানায়। পুলিশ জানিয়েছে, সার্দান অ্যাভেনিউ চত্বরে বাইক চালিয়ে যাচ্ছিলেন তিন যুবক। সকলেরই বাড়ি চেতলায়। মাঝ রাস্তায় যথারীতি চেকিংয়ের জন্য বাইক আরোহীদের দাঁড়াতে বলেন কর্তব্যরত পুলিশ আধিকারিকরা। কিন্তু দাঁড়ানো তো দূর, উলটে পুলিশ আধিকারিকদেরই উদ্দেশ্য করে আপত্তিকর মন্তব্য করে চম্পট দেয় ওই তিন যুবক। শুধু তাই নয়, এই ঘটনার পর মদ্যপ অবস্থায় তারা টালিগঞ্জ থানা এলাকাতেই অশান্তি করে বলেও অভিযোগ। অভিযুক্তদের মধ্যে দু’জনকে আটক করে টালিগঞ্জ থানায় নিয়ে যান এক কনস্টেবল। গভীর রাতে থানায় হাজির হন অভিযুক্তের যুবকদের পরিবারের লোকেরা। তাদের মুক্তির দাবিতে দীর্ঘক্ষণ থানার বাইরে চলে বিক্ষোভ। এমনকী, থানায় ঢুকে কর্তব্যরত পুলিশ আধিকারিকদেরও মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। ঘটনায় স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে মামলা রুজু করে তদন্তে নেমেছে পুলিশ।

শহরের নাকা চেকিং করতে গিয়ে পুলিশকে যে এই প্রথমবার আক্রান্ত হতে হল, তা কিন্তু নয়। বরং এর আগে বেশ কয়েকবার একই ঘটনা ঘটেছে। দিন কয়েক আগে সৈয়দ আমির আলি অ্যাভেনিউতে পিছন থেকে টেনে ধরেও বাইক আরোহীকে থামাতে পারেননি কর্তব্যরত এক ট্রাফিক কনস্টেবল। উলটে ওই পুলিশকর্মীকেই ১০০ মিটার টেনে নিয়ে চলে যান বাইকের আরোহী। শেষপর্যন্ত গুরুতর আহত অবস্থায় রাস্তায় লুটিয়ে পড়েন ট্রাফিক কনস্টেবল তপন ওঁরাও।

দেখুন ভিডিও:

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং