২ কার্তিক  ১৪২৬  রবিবার ২০ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

রাহুল চক্রবর্তী: ‘‘বিজেপির মতো সাম্প্রদায়িক শক্তির বিরুদ্ধে লড়াই করতে তৃণমূলকে সঙ্গে নিতে কোনও ছুৎমার্গ নয়৷ কিন্তু তার আগে মুখ্যমন্ত্রীকে নিজের অবস্থান স্পষ্ট করতে হবে৷’’ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পর, এবার তৃণমূলের সঙ্গে একজোট হয়ে লড়াইয়ের পক্ষে সওয়াল করলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র৷ সাফ জানালেন, ‘‘মুখ্যমন্ত্রী একটু তাঁর বক্তব্যটা পরিষ্কার করে বলুন৷ আমাদের তাঁর আন্তরিকতা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে৷’’ আর প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতির এই মন্তব্যই এবার নয়া জল্পনা তৈরি করেছে রাজনৈতিক মহলে৷ একাংশের প্রশ্ন, বিজেপিকে রুখতে আগামী বিধানসভা নির্বাচনে কি তবে একজোট হয়ে লড়াই করবে বাম-কংগ্রেস-তৃণমূল? 

[ আরও পড়ুন: রোজভ্যালিকাণ্ডে ৬ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ, ইডিকে তদন্তে সহযোগিতার আশ্বাস প্রসেনজিতের]

বিধানসভায় বিজেপি বিরোধিতায় বাম-কংগ্রেসকে একজোট হওয়ার বার্তা দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী৷ তাঁর সেই মন্তব্যের ব্যাখ্যা চেয়ে শুক্রবার সোমেন মিত্র বলেন, ‘‘একদিকে প্রধানমন্ত্রীকে উনি কুর্তা-মিষ্টি পাঠাচ্ছেন৷ আবার জনসভায় দাঁড়িয়ে বলছেন যে, নরেন্দ্র মোদির কোমরে দড়ি পরিয়ে ঘোরাবেন৷ একদিকে, বিধানসভায় দাঁড়িয়ে তিনি একজোট হয়ে বিজেপির বিরুদ্ধে লড়াইয়ের প্রস্তাব দিচ্ছেন৷ আবার পরের দিনই পার্থ চট্টোপাধ্যায় সেই প্রস্তাব খণ্ডন করছেন৷ মুখ্যমন্ত্রীর আন্তরিকতা নিয়ে আমাদের প্রশ্ন রয়েছে৷’’

কেবল সোমেন মিত্রই নন, এদিন ইস্যুর ভিত্তিতে তৃণমূলকে সমর্থনের পক্ষে সায় দিয়েছেন কংগ্রেসের রাজ্যসভার সাংসদ প্রদীপ ভট্টাচার্য৷ ইভিএমের বদলে ব্যালট ফেরানোর যে দাবিতে এবার ২১ জুলাইয়ের জনসভা করছে তৃণমূল, সেই দাবিকে এদিন সমর্থন জানিয়েছেন তিনিও৷ কংগ্রেসের বর্ষীয়ান এই সাংসদ জানান, ‘‘এবারের নির্বাচনে ইভিএম নিয়ে অনেক অভিযোগ উঠেছে৷ বিশ্বের অনেক উন্নত দেশে এখন ইভিএম উঠে গিয়েছে৷ তাই এই দাবি ন্যায্য৷’’

এখানেই শেষ নয়, এদিন সরাসরি বামেদের সঙ্গে জোটের বার্তা দিয়েছেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি৷ সমস্ত জেলা সভাপতিদের সঙ্গে করা বৈঠকে তিনি স্পষ্ট জানিয়েছেন, বামেদের সঙ্গে এবার শুধুমাত্র নির্বাচনকে কেন্দ্র করে জোট নয়৷ নির্বাচনের আগে থেকেই বাম-কংগ্রেস জোট হবে৷ এই জন্য কয়েকটি উপায়ও বাতলে দিয়েছেন তিনি৷ বলেছেন, প্রথমত বামেদের সঙ্গে যৌথমঞ্চ গড়ে তুলতে হবে৷ দ্বিতীয়ত, এবার আর আড়ালে-আবডালে নয়, প্রকাশ্যেই জোট হবে৷ নাহলে মানুষের মধ্যে ভ্রান্ত ধারণা তৈরি হতে পারে৷ তৃতীয়ত, নির্বাচন আসলেই এবার কেবল বামেদের সঙ্গে জোট করবে না কংগ্রেস৷ সবক্ষেত্রে একসঙ্গে লড়াই করবে৷ নাহলে সাধারণ মানুষ ভুল বুঝতে পারে৷ মানুষ ভাবতে পারে বাম-কংগ্রেস সুবিধাবাদী রাজনীতি করছে৷

[ আরও পড়ুন: মেট্রোর টিকিট কাটতে আর লাইনে দাঁড়াতে হবে না, যাত্রীদের জন্য আসছে নয়া অ্যাপ ]

প্রসঙ্গত, লোকসভা নির্বাচনের আগে কংগ্রেসের সঙ্গে জোট প্রসঙ্গে বেঁকে বসেছিল বামফ্রন্টের অনেক শরিক দল৷ ফলে এবারও সেই জোটের পথ আদৌ কতটা সুগম হবে, এখনও সেই প্রশ্ন তাড়িয়ে বেরাচ্ছে কংগ্রেস সভাপতিকে৷ যার উত্তরে এদিন তিনি জানান, ‘‘আমরা বামফ্রন্ট চেয়ারম্যানের সঙ্গে জোট নিয়ে কথা বলব৷ উনি বাকি শরিকদের সঙ্গে কথা বলবেন৷’’

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং