BREAKING NEWS

০৯  আষাঢ়  ১৪২৯  রবিবার ২৬ জুন ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

কলকাতা বিমানবন্দর থেকে সোজা নিজাম প্যালেস, অবশেষে CBI দপ্তরে হাজিরা পরেশ অধিকারীর

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: May 19, 2022 7:31 pm|    Updated: May 20, 2022 3:35 pm

WB Minister Paresh Adhikari reaches CBI office at Nijam Palace

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: এসএসসি (SSC) দুর্নীতি মামলায় অবশেষে সিবিআইয়ের তলবে হাজির রাজ্যের মন্ত্রী পরেশ অধিকারী। বৃহস্পতিবার সন্ধে সাড়ে ৬টা নাগাদ নিজাম প্যালেসের সিবিআই (CBI) দপ্তরে পৌঁছন তিনি। মন্ত্রীর পাশাপাশি তাঁর মেয়ের বিরুদ্ধেও এফআইআর দায়ের করে তলব করা হলেও মেয়ে অঙ্কিতা গরহাজির। আপাতত শুধু মন্ত্রী পরেশ অধিকারীই (Paresh Adhikari)কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার আধিকারিকদের মুখোমুখি হয়েছেন। এসএসসি-তে মেয়েকে অবৈধভাবে চাকরি পাইয়ে দেওয়ার অভিযোগে সিবিআই তদন্তের মুখে পড়েছেন মন্ত্রী। আপাতত তদন্তে সহযোগিতা করার জন্য বৃহস্পতিবার নিজাম প্যালেসে গেলেন পরেশ অধিকারী।  ১৫ তলার কার্যালয়ে তাঁকে জেরার জন্য প্রস্তুত তদন্তকারীরা, খবর সূত্রের। 

Minister Paresh Adhikari
বিমানবন্দর থেকে বেরিয়ে নিজাম প্যালেসের পথে পরেশ অধিকারী।

স্কুল সার্ভিস কমিশনের নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় বারবার সিবিআই দপ্তরে হাজিরা এড়ানোর জেরে এদিন বিকেলেই রাজ্যের শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী পরেশ অধিকারী ও তাঁর মেয়ের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করেছে সিবিআই। তাঁর আইনজীবী জানিয়েছিলেন, তিনি কোচবিহারেই রয়েছে। সন্ধে সাড়ে ৬টা নাগাদ কলকাতা বিমানবন্দরে এসে পৌঁছবেন। সেখান থেকেই মন্ত্রীকে সোজা নিজাম প্যালেসে গিয়ে সিবিআইয়ের মুখোমুখি হওয়ার নির্দেশ দেন কলকাতা হাই কোর্টের বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। 

[আরও পড়ুন: জেরা শেষের আগেই অনুব্রতকে ছাড়ল সিবিআই, SSKM গেলেন অসুস্থ তৃণমূল নেতা]

এরপরই নিজাম প্যালেসে তৎপরতা বাড়ে। নিরাপত্তার তোড়জোড় হয়। বিমানবন্দরেও বিধাননগর পুলিশের তরফে বিশেষ নিরাপত্তার ঘেরাটোপ আরও আঁটসাঁট করা হয়। কারণ, সেখান থেকে বেরিয়েই পরেশ অধিকারীর (Minister Paresh Adhikari) সোজা নিজাম প্যালেসে যাওয়ার কথা। তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ, মেধা তালিকায় না থেকেও মন্ত্রীর মেয়ে চাকরি পেয়ে গিয়েছেন। ববিতা সরকার নামে এক পরীক্ষার্থী মামলা করেছিলেন। ববিতার দাবি, তাঁর চেয়ে নম্বর কম ছিল মন্ত্রীর মেয়ে অঙ্কিতা অধিকারীর। তারপরেও নিয়োগপত্র হাতে পাননি ববিতা। অথচ ২০১৮ সাল থেকে মেখলিগঞ্জের একটি স্কুলে চাকরি করছেন অঙ্কিতা। এরপরই আদালতের দ্বারস্থ হন চাকরিপ্রার্থী ববিতা। সেই মামলাতেই সিবিআই (CBI) তদন্তের নির্দেশ দেয় হাই কোর্ট।

[আরও পড়ুন: মালদহে জোর করে ধর্মান্তকরণের অভিযোগ, CBI ও NIA-কে তদন্তভার দিল কলকাতা হাই কোর্ট]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে