৯ ফাল্গুন  ১৪২৬  শনিবার ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

রাহুল চক্রবর্তী: মেট্রো রেল প্রকল্পের জন্য সাহায্য করেছেন যথেষ্ট। তা সত্ত্বেও এগারো বছর পর ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রো প্রকল্পের উদ্বোধনে ‘ব্রাত্য’ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাই মেট্রো প্রকল্পের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান বয়কট করেন রাজ্যের প্রতিনিধিরা। আমন্ত্রণপত্রে নাম না থাকায় বেজায় চটেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিধানসভায় দুঃখ প্রকাশ করেন তিনি।

ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রো শুরুতে রাজ্য এবং কেন্দ্রীয় নগরোন্নয়ন মন্ত্রকের সম্মিলিত প্রকল্প ছিল। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রেলমন্ত্রী থাকাকালীন ২০০৯ সালে রেল সেটি অধিগ্রহণ করে। কাজও শুরু হয়েছিল জোরকদমে। এক সময় প্রকল্পের যাত্রাপথ নিয়ে তৈরি হয়েছিল জটিলতা। হাওড়া ময়দান থেকে শুরু হয়ে গঙ্গার নিচ দিয়ে মেট্রোর লাইন সেক্টর ফাইভ পর্যন্ত যাবে। কিন্তু কখনও জমি সমস্যা, কখনও পুনর্বাসন সমস্যায় ধাক্কা খেয়েছিল প্রকল্প। তখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই এগিয়ে এসে সমস্যার সমাধান করেছিলেন। এমনকী প্রকল্পের রুটও ঘুরিয়ে দেওয়া হয়। অথচ ১১ বছর পর সেই প্রকল্পের উদ্বোধনে আমন্ত্রিতের তালিকায় সংশ্লিষ্ট লোকসভা কেন্দ্রের সাংসদ কাকলি ঘোষদস্তিদার, বিধাননগরের বিধায়ক সুজিত বসু এবং পুরসভার মেয়র কৃষ্ণা চক্রবর্তীর নাম থাকলেও, বাদ গিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাই অনুষ্ঠান বয়কট করেন রাজ্যের প্রতিনিধিরা। কেন্দ্রীয় রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল এবং পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন দপ্তরের রাষ্ট্রমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়র উপস্থিতিতে যাত্রা শুরু হল ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর।

[আরও পড়ুন: ‘আপনারা আগে যাদবপুর সামলান’, বিধানসভায় বামেদের তুলোধোনা মমতার]

মেট্রো উদ্বোধনের পরেরদিনই রাজ্য বিধানসভায় আমন্ত্রণ প্রসঙ্গে ক্ষোভ উগরে দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, “আজ দুঃখ লাগে তারা যখন মেট্রোর একটা রুট চালু করে একটু আমাদের জানায়না। চোখের জল ফেলে বাংলার এই প্রকল্পের জন্য টাকা নিয়ে এসেছিলাম। বাংলাকে বঞ্চনা করে কেন্দ্র যদি মনে করে সব কিছু করে নেবে তাহলে হবে না। বাংলা উত্তরপ্রদেশ নয়। বাংলা মুখ বুজে চোখ বুজে সব কিছু মেনে নেবে না।” 

মেট্রো কর্তৃপক্ষের সুরে সুর মিলিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ করা হয়েছিল বলেই দাবি করেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেন, “বিরোধীদের অসম্মানের কাজটা আপনিই শুরু করেছেন। বারবার মেট্রো প্রকল্পে বাধা দিয়েছেন। কাজ আটকে থেকেছে। মেট্রোর কাজ যখন আটকে গিয়েছিল তখন আপনি করেছিলেন। বাবুল সুপ্রিয় তখন উদ্যোগ নিয়ে মেট্রোর কাজ শুরু করেছেন। তাছাড়া আপনাকে প্রোটোকল মেনেই আমন্ত্রণ করা হয়েছিল।”

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং