BREAKING NEWS

২৩ চৈত্র  ১৪২৬  সোমবার ৬ এপ্রিল ২০২০ 

Advertisement

সংঘাতের মাঝে ফের আলোচনায় বসার ইঙ্গিত, সোমবার রাজ্যপাল-মুখ্যমন্ত্রী বৈঠকের সম্ভাবনা

Published by: Sayani Sen |    Posted: February 16, 2020 8:48 pm|    Updated: February 16, 2020 8:48 pm

An Images

ফাইল ছবি

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সংঘাতের মাঝে ফের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের সম্ভাবনা রাজ্যপালের। সোমবার বেলা ১১.৩০টা থেকে ১২.৩০ পর্যন্ত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সময় দিলেন জগদীপ ধনকড়। সূত্রের খবর, মুখ্যমন্ত্রীর কাছ থেকে মিলেছে সবুজ সংকেত। তবে বৈঠকে ঠিক কোন বিষয়ে আলোচনা হবে, তা নিয়ে এখনও পর্যন্ত কিছুই জানা যায়নি।

দায়িত্ব নেওয়ার পরই রাজ্যকে অন্ধকারে রেখে শিলিগুড়িতে প্রশাসনিক বৈঠকের ডাক দেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়। সেই থেকে সংঘাতের সূত্রপাত। তারপর একের পর এক ঘটনায় দূরত্ব বেড়েছে ক্রমশ। কখনও যাদবপুর আবার কখনও কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষোভের মুখে পড়েন রাজ্যপাল। তার ফলে মুখ্যমন্ত্রী এবং রাজ্যপালের সম্পর্কের ক্রমশই অবনতি হয়েছে। তবে চলতি বছর সাধারণতন্ত্র দিবসে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে রাজ্যপালের সম্পর্কের মোড় ঘোরে। ওইদিন রেড রোডে দাঁড়িয়ে দুজনেই কথা বলেন। আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে ওইদিন বিকেলে রাজভবনে চা চক্রেও উপস্থিত ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। অনেকেই ভেবেছিলেন বোধহয় দু’পক্ষের সংঘাতের শেষ হল।

CM-Gov1

[আরও পড়ুন: উধাও কয়েকশো টোকেন, যাত্রার শুরুতেই ব্যাপক আর্থিক ক্ষতি ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর]

তবে বিধানসভার অধিবেশনের প্রারম্ভিক ভাষণ নিয়ে আবারও নতুন করে মনোমালিন্যের সূত্রপাত। তবে সমস্ত সংঘাতকে দূরে সরিয়ে বিধানসভায় এক্কেবারে অন্য মেজাজে দেখা যায় রাজ্যপাল এবং মুখ্যমন্ত্রীকে। কিন্তু তারপরেও দু’পক্ষের মনোমালিন্যের কোনও শেষ নেই।

cm-gov-cover

রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা নিয়ে প্রশ্ন তোলায় মুখ্যমন্ত্রীর বিরাগভাজন হয়েছেন রাজ্যপাল। সম্প্রতি কোচবিহারের পঞ্চানন বর্মা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তনে জগদীপ ধনকড় আমন্ত্রিত না হওয়ার ঘটনা দু’পক্ষের সম্পর্কে যে আরও দূরত্ব বাড়িয়েছে তা নিয়ে নতুন করে বলার কিছুই নেই।

এই প্রেক্ষাপটেই ফের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে বসার সিদ্ধান্ত রাজ্যপালের। সোমবার বেলা সাড়ে এগারোটা থেকে সাড়ে বারোটা পর্যন্ত মুখ্যমন্ত্রীকে সময়ও দিয়েছেন তিনি। সূত্রের খবর, মুখ্যমন্ত্রী এই বৈঠকে যোগ দেবেন বলেই জানা গিয়েছে। তবে শেষ পর্যন্ত ওই বৈঠক আদৌ হবে, ওই বৈঠকে কী নিয়ে আলোচনা হবে, তা জানার জন্য অপেক্ষায় রাজনৈতিক মহল।

Advertisement

Advertisement

Advertisement