৭ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৬  মঙ্গলবার ২১ মে ২০১৯ 

Menu Logo নির্বাচন ‘১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও #IPL12 ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ঘড়ি সবার জীবনেই খুব মূল্যবান। সকালে ঘুম চোখ খুললেই আমাদের সবার চোখ চলে যায় দেওয়াল ঘড়ির দিকে। হাতের কাছে যতই মোবাইল ঘড়ি থাক কিংবা বিছানার পাশের টেবিলে রাখা ঘড়ি, এসব কিছু ছাড়িয়ে চোখ যায় দেওয়াল ঘড়ির দিকে। হাজার হলেও সকালে খবরের কাগজ, হাতে চায়ের পেয়ালা আর দেওয়াল ঘড়ি… এই সমীকরণটা আমদের বড় চেনা। কিন্তু এই দেওয়াল ঘড়ি কিন্তু শুধু সময়ই দেখায় না। অন্দর সজ্জায় এনে দেয় এক নয়া মাত্রা। দেওয়াল ঘড়িকে একটু অন্যভাবে সাজালে বাড়ির অন্দররাজ্যে অনায়াসেই তৈরি করা যায় দৃষ্টিনন্দন আবহ। কী করে সাজাবেন? সেই টিপস রইল এখানে।

শোওয়ার ঘর, পড়ার ঘর হোক কিংবা বসার ঘর, খাবার ঘর- দেওয়াল ঘড়ি কিন্তু সব ঘরের জন্যই প্রয়োজন। অনেকেরই অ্যান্টিক জিনিসের শখ থাকে। পুরনো কাঠের পেন্ডুলাম ঘড়িকে গাঢ় পালিশ করে অনায়াসেই সাজাতে পারেন দেওয়াল। তবে, এক্ষেত্রে দেখবেন যেখানে গাঢ় রঙের পালিশ করা ঘড়ি টাঙাবেন, সেই দেওয়ালের রং যেন হালকা হয়। কিংবা টেক্সচার করা দেওয়ালেও দিব্যি মানাবে এই অ্যান্টিক দেওয়াল ঘড়ি। যেসব জায়গায় অ্যান্টিক জিনিসপত্র রাখা হয়, সেখানেই পেয়ে যাবেন। কিংবা অনেক অকশন হাউজেই পাওয়া যেতে পারে। কিনে নিয়ে দেওয়ালে সাজিয়ে দিন।

[আরও পড়ুন : ঘরে আনুন বৈচিত্র্য, সিঁড়ি সাজান ট্রেন্ড অনুযায়ী]

ঘরের যে দেওয়ালে দেওয়াল আলমারি বা এলইডি টিভি থাকে, সেই দেওয়ালগুলো বাদ দিয়ে অন্য কোনো দেওয়াল বেছে নিন ঘড়ি টাঙানোর জন্য। কাঠের আসবাব বেশি রয়েছে যেই ঘরে, সেই ঘরের জন্য কাঠরঙা বা কাঠের ফ্রেম করা ঘড়ি বেছে নিন। শোওয়ার ঘরের লুক সবসময় ছিমছামই ভাল। সেখানে সাদামাটা নকশার ঘড়ি ব্যবহার করলেই দেখতে ভাল লাগবে।

বসার ঘরের অন্দরসজ্জায় চমক আনতে গেলে কিন্তু আপনার দেওয়াল ঘড়িটাই মাস্টারপিস হিসেবে কাজ করতেই পারে। সেই ঘরের একটা দেওয়ালে বিশালাকার ঘড়ি টাঙিয়ে দিন। এছাড়া, ছোট-বড় বিভিন্ন সাইজের ঘড়ি এদিক-ওদিক ছড়িয়ে টাঙিয়ে দিন দেওয়ালে। অতিথির প্রশংসা যে কুড়োবেনই, বলাই বাহুল্য। বাচ্চাদের ঘরে কার্টুন আঁকা কিংবা কার্টুন, স্মাইলি ফেস বা গাড়ির ডিজাইনের ফ্রেম করা ঘড়ি টাঙিয়ে দিন।

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং