BREAKING NEWS

২১ চৈত্র  ১৪২৬  শনিবার ৪ এপ্রিল ২০২০ 

Advertisement

অভিনব ভাবনাতেই বাজিমাত, আন্তর্জাতিক মঞ্চে তিনটি ট্রফি জিতল সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল

Published by: Sulaya Singha |    Posted: February 18, 2020 5:54 pm|    Updated: February 18, 2020 8:46 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ছোট্ট ছোট্ট পায়ে শুরু হয়েছিল পথ চলা। বাঙালির ভালবাসায় গলি থেকে আজ রাজপথে এসে দাঁড়িয়েছে সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল। আরও একবার ভাবনার মায়াজাল বুনতে সফল হয়েছি আমরা। গত বছর পূর্ব ভারতের সবচেয়ে বড় ডিজিটাল মিডিয়া কনফারেন্স এনগেজ ডিজিটাল সামিট-এ সেরার পুরস্কার পেয়েছিল আপনার প্রিয় ওয়েবসাইটের অনন্য সৃষ্টি। এবার আন্তর্জাতিক আঙিনায় স্বীকৃতি পেলাম আমরা। একটি নয়, ওয়ান-ইফরা সাউথ এশিয়ান ডিজিটাল মিডিয়া অ্যাওয়ার্ডের মঞ্চ থেকে তিন-তিনটি ট্রফি ঘরে তুলল এই পোর্টাল।

One-Ifra-2

বিজ্ঞানের অগ্রগতির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে এগিয়ে চলার চেষ্টা করছি আমরা। নতুন নতুন প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে কীভাবে মানুষের আরও কাছাকাছি পৌঁছে যাওয়া যায়, কীভাবে যোগাযোগ আরও নিবিড় করা সম্ভব, সেই ভাবনাতেই মগ্ন সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল। আর এই সব ভাবনা থেকেই জন্ম নেয় জোড়া সৃষ্টি। ‘পুজোর ফেস’ এবং ‘মা ক্লিকস’। ভাবছেন তো বিষয়টা ঠিক কী? তাহলে একটু খোলসা করে বলা যাক।

[আরও পড়ুন: করোনা সংক্রমণের আশঙ্কা, এবার বাতিল ফেসবুকের গ্লোবাল মার্কেটিং সামিট]

আসলে ২০১৮ এবং ২০১৯-পরপর দু’বছর দু্র্গাপুজো নিয়ে বাঙালির আবেগ ও সেলিব্রেশনের সঙ্গে ডিজিটাল ভাবনাকে মিশিয়ে দিয়ে উৎসবের আনন্দকে দ্বিগুণ করার উদ্যোগ নিয়েছিলাম আমরা। বর্তমান প্রজন্ম যা শুধু চেটেপুটে উপভোগই করেনি, বাঙালিকে শ্রেষ্ঠ উৎসবের আরও কাছাকাছি এনে দিয়েছিল। প্রথম বছরের ভাবনা ছিল ‘পুজোর ফেস’। যুবপ্রজন্মের অধিকাংশই দুর্গাপুজোর আনন্দে মেতে উঠলেও পুজোর তথাকথিত আচার-অনুষ্ঠানে অংশ নিতে বিশেষ ভালবাসে না। আর এই সেলিব্রেশন ও রীতির মাঝে সেতুবন্ধনের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিল এই পোর্টাল। ফেসবুক মোবাইল অ্যাপের AR প্রযুক্তি (অগমেন্টেড রিয়ালিটি ফেস ফিল্টার) ব্যবহার করে তৈরি করা হয়েছিল চারটি ফেস ফিল্টার। দুর্গা, অসুর, ধুনুচি নাচ ও সিঁদুর খেলা। স্মার্টফোনে ফেসবুকের ফেস ফিল্টার থেকে পছন্দমতো অপশনটি বেছে নিয়ে ছবি তুলে বা ভিডিও করে তা ইউজাররা পোস্ট করেন নিজেদের প্রোফাইলে। সঙ্গে জুড়ে দেন #Pujorface।

আর এভাবেই পুজোমণ্ডপে না পৌঁছেও দুর্গাপুজোর আনন্দ উপভোগ করতে পেরেছিলেন বাঙালিরা। এই ডিজিটাল ইনোভেশনের জন্যই এনগেজ ডিজিটাল সামিট-এ সেরার শিরোপা পেয়েছিল সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল।

engage-cover

শুধু তাই নয়, ২০১৯-এ মুম্বইয়ে ‘ক্যাম্পেন ইন্ডিয়া ডিজিটাল ক্রেস্ট অ্যাওয়ার্ড’-এও ব্রোঞ্জ জেতে বাংলা সংবাদমাধ্যমের এই ভাবনা। তাছাড়া গোয়ায় আয়োজিত অ্যাবি অ্যাওয়ার্ডসেও ছ’টি বিভাগে মনোনীত হয়েছিল Pujor Face ক্যাম্পেন। এই ভাবনাই এ বছর ওয়ান-ইফরার মঞ্চে জিতে নিল একটি সোনা এবং একটি রুপোর পদক।

crest

তবে, একটি ভাবনাতেই থেমে থাকেনি এই ওয়েবসাইট। পুজোর ফেস-এর চূড়ান্ত সাফল্যের পর নতুন চিন্তার উদয় ঘটে গতবারের পুজোয়। প্যান্ডেল হপিংয়ে বেরিয়ে একেবারে অন্যরকম অভিজ্ঞতা হয় দর্শনার্থীদের। প্রথমবার দুর্গাপুজোয় আর্টিফিশিয়াল ইনটেলিজেন্স ক্যামেরা নিয়ে কাজ হয় কলকাতায়। পুজোয় সেলফি তোলার হিড়িকে প্রণাম করার অভ্যেস হারিয়েছেন দর্শণার্থীরা। ভক্তিভরে প্রণাম করা সেই অভ্যেস ফেরাতেই নেওয়া হয় অভিনব উদ্যোগ।

One-ifra-3

হাতজোড় করে প্রণাম করলে মা স্বয়ং ছবি তুলে দিচ্ছেন দর্শনার্থীর! হ্যাঁ, উত্তর কলকাতার অন্যতম জনপ্রিয় পুজো হাতিবাগান সর্বজনীনের মণ্ডপে এমনই নতুনত্বের সাক্ষী হয়েছিলেন তাঁরা। আসলে দুর্গা প্রতিমার মধ্যেই ইনস্টল করা ছিল AI ক্যামেরা। দর্শনার্থী মায়ের সামনে হাত জোড় করে দাঁড়ালেই উঠছিল ছবি। যা সামনে থাকা স্ক্রিনে ভেসে উঠছিল। সহজেই যাতে দর্শনার্থীরা নিজেদের ফোনে সেই ছবিটি পেয়ে যান, তার জন্য ছিল একটি QR কোড। সেটি স্ক্যান করলেই দেখা যাচ্ছিল, মায়ের তোলা ছবি।

[আরও পড়ুন: নিয়মিত যোগাভ্যাস করেন? ম্যাট কেনার আগে মাথায় রাখুন এগুলি]

এমন অভিনব ভাবনা সাড়া ফেলে দিয়েছিল গোটা কলকাতায়। একাধিক  সংবাদমাধ্যমের শিরোনামে উঠে আসে #MaaClicks। হাজার হাজার মানুষ ওই মণ্ডপে ভিড় জমিয়েছিলেন এই অভিজ্ঞতার সাক্ষী হতে। আর সেই ভাবনাই ওয়ান-ইফরার মঞ্চে জিতে নিয়েছে ব্রোঞ্জ ট্রফি। দর্শক ও পাঠকদের ভালবাসা এবং আশীর্বাদেই Sangbadpratidin.in আন্তর্জাতিক মঞ্চে পুরস্কৃত হয়েছে। সকলকে ধন্যবাদ।

 

Advertisement

Advertisement

Advertisement