৫ মাঘ  ১৪২৬  রবিবার ১৯ জানুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo ফিরে দেখা ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: চারতলা থেকে পড়েও স্রেফ বরাতজোরে প্রাণে বাঁচল দু’বছরের এক শিশু। শুধু তাই নয়, হাতে-পায়েও কোনও চোট লাগেনি শিশুটির। বরং একেবারেই অক্ষত রয়েছে সেই খুদে। সিনেমার দৃশ্য মনে হচ্ছে? তা কিন্তু একেবারেই না। বরং খাঁটি বাস্তব। দিনকয়েক আগে এমনই এক অভাবনীয় ঘটনার সাক্ষী রইলেন সুরাটের বাসিন্দারা। আর সেই ভিডিও এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে গিয়েছে।

[ আরও পড়ুন : ‘আমি সরকারের রাবার স্ট্যাম্প নই’, বিস্ফোরক রাজ্যপাল ]

 

ঠিক কী ঘটেছিল সেদিন? গত রবিবার বাড়ির চারতলায় একাই খেলছিল খুদে মহম্মদ জামাল। তাঁর একমাত্র খে্লার সঙ্গী দাদুও সেদিন বাড়ি ছিলেন না। এদিকে বয়সে খুদে হলে হবে কি, মহম্মদ হাতে পায়ে যেন একেবারে চলমান দস্যু। খেলতে-খেলতে চারতলায় ঘরের জানলা দিয়ে গলে নিচে পড়ে গিয়েছিল সে। তিনতলার জালনার গ্রিল ধরে নিজেকে বাঁচানোর শেষ চেষ্টা করে। সেই চেষ্টায় সফলও হয়। ছোট্ট ছোট্ট দুই হাতে গ্রিল ধরে ঝুলে পড়ে মহম্মদ। সময় যত এগোচ্ছিল তার হাতও ক্রমশ পিছলে যাচ্ছিল। নিজেকে বাঁচাতে তারস্বরে চিৎকার করতে শুরু করে খুদে জামাল। প্রথমে কেউ পাত্তা না দিলেও, পরে পথচারীরা উপর দিকে তাকিয়ে দেখেন সেই ভয়ানক দৃশ্য! জানলার গ্রিল ধরে তিনতলা থেকে ঝুলছে এক শিশু। এরপর আর দেরি করেননি ওই পথচারীরা। মাঠে ফিল্ডিং করার স্টাইলে রাস্তার চারিদিকে দাঁড়িয়ে পড়েন পথচারীরা। জানলার গ্রিল থেকে হাত পিছলে যেতেই শিশুটিকে লুফে নেন এক পথচারী।তিনি রাস্তায় পড়ে গেলেও শিশুটির কোনও চোট লাগেনি। ওই যে কথায় বলে, রাখে হরি তো মারে কে!

[ আরও পড়ুন : এনআরসির দিকে আরও এক ধাপ! নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলে ছাড়পত্র মন্ত্রিসভার ]

সঙ্গে সঙ্গে একরত্তি শিশুটিকে সরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। চিকিৎসকরা জানান তার কোনও চোট লাগেনি। শিশুটির দাদু ইমরাফ আলি জানান, “ঈশ্বর ও যাঁরা জামালকে বাঁচিয়েছেন তাঁদের ধন্যবাদ।” ইমরাফ আলি জানান রবিবার তিনি বাড়ি ছিলেন না। তখনই এই ঘটনা ঘটে। এলাকার রাস্তায় লাগানো সিসিটিভিতে গোটা ঘটনা ধরা পড়ে। শেষপর্যন্ত মঙ্গলবার সোশ্যাল মিডিয়ায় ভিডিওটি ছড়িয়ে পড়ে।      

 

অলঙ্করণে: সুযোগ বন্দ্যোপাধ্যায়

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং