BREAKING NEWS

১৪ কার্তিক  ১৪২৭  শনিবার ৩১ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

দুই ব্যক্তির বিবাদ মেটাতে মোষকেই মালিক খোঁজার দায়িত্ব দিল যোগীর পুলিশ

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: October 13, 2020 2:47 pm|    Updated: October 13, 2020 2:47 pm

An Images

ফাইল ফটো

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: একটি মোষের মালিকানা নিয়ে বচসা বেঁধেছিল দুই ব্যক্তির মধ্যে। বিষয়টি থানা পর্যন্তও গড়ায়। সেখানে আসল মালিক খুঁজে নেওয়ার জন্য মোষকেই দায়িত্ব দেয় পুলিশ। অভূতপূর্ব এই ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের কনৌজে। খবরটির কথা প্রকাশ্যে আসতেই হাসির রোল উঠেছে নেটদুনিয়ায়।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, গত রবিবার কনৌজে (Kannauj) -এর রাসুলাবাদ এলাকার এক ব্যক্তি দুটি মোষ (buffalo) বিক্রি করতে স্থানীয় পশু মেলায় গিয়েছিলেন। সেখানে যাওয়ার পর আলি নগরের বীরেন্দ্র নামে এক ব্যক্তির সঙ্গে তাঁর বচসা থেকে হাতাহাতি শুরু হয়। ওই মোষগুলিকে নিজের বলে দাবি করতে থাকেন বীরেন্দ্র। অন্যদিকে ওই ব্যক্তি জানান তিনি মোষগুলি জলেশ্বরের বাসিন্দা ধর্মেন্দ্রের কাছ থেকে কিনেছেন। এরপরই স্থানীয় তিরওয়া (Tirwa) থানায় গিয়ে ধর্মেন্দ্রের নামে একটি অভিযোগ দায়ের করেন বীরেন্দ্র। তাঁর দাবি ছিল, ধর্মেন্দ্র ওই মোষগুলি তাঁর বাড়ি থেকে চুরি করেছেন।

[আরও পড়ুন: ছিল পরিত্যক্ত রেলের কামরা, বদলে গেল সুন্দর ক্লাসরুমে, প্রশংসায় পঞ্চমুখ নেটিজেনরা ]

থানায় দায়ের হওয়া অভিযোগের ভিত্তিতে ধর্মেন্দ্রকে ডেকে পাঠায় পুলিশ। ধর্মেন্দ্র এসে নিজেকে পুরোপুরি নির্দোষ বলে দাবি করার পাশাপাশি মোষগুলি রাসুলাবাদের এক ব্যক্তিকে ১৯ হাজার টাকায় বিক্রি করেছিলেন বলে জানান। উভয়পক্ষের কথা শুনে প্রথমে চিন্তায় পড়ে যান তিরওয়া থানার সিনিয়র সাব ইনস্পেক্টর (SSI) বিজয়কান্ত মিশ্র। তারপর কোনও উপায় না দেখে মোষকেই মালিক খোঁজার দায়িত্ব দেন। এর জন্য বীরেন্দ্র ও ধর্মেন্দ্রকে মোষদুটিকে ডাকতে বলেন। মোষগুলি ধর্মেন্দ্রর ডাকে সাড়া দিলেও বীরেন্দ্রকে পাত্তা দেয়নি।  বিষয়টি দেখে ধর্মেন্দ্রকে মোষের মালিক হিসেবে স্বীকৃতি দেয় পুলিশ। সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে উত্তরপ্রদেশ পুলিশের এই কাণ্ডের কথা প্রকাশ্যে আসতেই হাসির রোল উঠেছে নেটদুনিয়ায়। বিচারের প্রক্রিয়া যদি এত সহজই হয় তাহলে আইন-আদালতের দরকার কী বলেও প্রশ্ন তুলেছেন নেটিজেনরা।

[আরও পড়ুন: অ্যালঝাইমার্স আক্রান্ত স্ত্রীর সম্মানে ২৮২টি পাহাড়ে চড়ার চ্যালেঞ্জ নিলেন ৮০ বছরের বৃদ্ধ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement