৩১ ভাদ্র  ১৪২৬  বুধবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

গৌতম ভট্টাচার্য: অপ্রত্যাশিত চমক, স্ট্র্যাটেজিগত বিরল সব ক্রিকেটীয় মোচড়ের জন্য ক্রিকেটজীবনে বিখ্যাত ছিলেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। কে জানত আইপিএল দুনিয়ায় উপদেষ্টা হিসাবে আবির্ভাবের মাত্র চার মাসের মধ্যে তিনি বকলমে প্রশিক্ষক তথা মুখ্য নির্বাচক হিসাবে এমন সব চমক আমদানি করবেন।

[আরও পড়ুন: গেইল ঝড় উড়িয়ে দিয়ে নায়ক কোহলি, ২-০ তে সিরিজ জয় ভারতের]

গতবার দায়িত্বে এসে কোচ রিকি পন্টিংকে সঙ্গে নিয়ে দিল্লিকে স্মরণকালে তার প্রথম আইপিএল সেমিফাইনালে পৌঁছেছিলেন সৌরভ। তারপর থেকেই টিম গড়ার ক্ষেত্রে প্রাক্তন ভারত অধিনায়ককেই ব্ল্যাঙ্ক চেক দিয়ে রেখেছিলেন টিম মালিক পার্থ জিন্দাল। যিনি বলেছিলেন দাদার কাছে আমাদের কৃতজ্ঞতার শেষ নেই। উনি যেভাবে বলবেন সেভাবেই আমরা চলব।

তা আইপিএল শুরু হওয়ার আট মাস আগেই আইপিএল উপগ্রহে সৌরভ আলোড়ন ফেলে দিয়েছেন দুই ভারতীয় ক্রিকেটারকে দলে টেনে, প্রথমজন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। যিনি কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের অধিনায়ক। অন্যজন অজিঙ্ক রাহানে। মাত্র ক’দিন আগেও যিনি রাজস্থান রয়্যালসের অধিনায়কত্ব করেছেন। এঁরা দু’জনে স্বেচ্ছায় দাদার ফ্র্যাঞ্চাইজিতে খেলতে চেয়েছেন। এ দিন সৌরভ বললেন রিকি পন্টিংকেও ধরে রাখছেন। এর সঙ্গে টানবেন ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার কিছু তারকা প্লেয়ারকে। যা বোঝা যাচ্ছে আইপিএল সেমিফাইনাল তাঁর খিদে তৈরি করেছে মাত্র। অবসান ঘটায়নি।

অজিঙ্ক রাহানে রাজস্থান রয়্যালস ছেড়ে দিল্লি যাচ্ছেন। কনফার্মড। রবিচন্দ্রন অশ্বিন-তিনিও সব ঠিকঠাক চললে দিল্লি সংসারে ঢুকতে চলেছেন। তাঁর যোগদানের ক্ষেত্রে কিছু টেকনিকাল ব্যাপারস্যাপার বাকি আছে শুধু। কিংস ইলেভেনের এক ডিরেক্টরের সই করা বাকি। এবং এঁদের সঙ্গে মিচেল স্টার্ক, প্যাট কামিন্সের মতো কেউ কেউ যদি নতুন দিল্লিতে জুড়ে যান, অবাক হওয়ার থাকবে না।

দিল্লিতে সৌরভই স্ট্র্যাটেজিস্ট, সৌরভই টিম সংক্রান্ত বিষয়ে চূড়ান্ত বিচারক। কলিন ইনগ্রাম এবং আবেশ খানকে তাঁর পরামর্শে ছেড়ে দিয়ে রাহানেকে আনা হচ্ছে। অশ্বিনকে আবার সাত কোটি ষাট লক্ষ টাকা দিয়ে আউটরাইট কিনে নিচ্ছে দিল্লি। অশ্বিন গত দু’বছর অধিনায়কত্ব করেছেন। তাঁর দিল্লিতে চলে আসাটা এ বারের আইপিএলের বৃহত্তম চমক হতে পারে।

বুধবার রাতে দুবাই উড়ে যাওয়ার আগে ‘সংবাদ প্রতিদিন’-কে ফোনে অশ্বিন বললেন, “আমি শুনছি যে পরিবর্তন হচ্ছে আমার ফ্র্যাঞ্চাইজি। তবে আমাকে চূড়ান্ত করে এখনও কেউ কিছু জানায়নি।” কিন্তু কয়েকটা বিষয় চূড়ান্ত। যেমন গত বার খেলা কলিন মুনরো আর থাকছেন না। ওয়েস্ট ইন্ডিজের শেরফান রাদারফোর্ডও না। এঁদের আর রাখছে না দিল্লি। প্রশ্ন হল, রাহানে এলে, অশ্বিন এলে দিল্লির অধিনায়কত্ব কে করবেন? সৌরভ বললেন যে, শ্রেয়স আইয়ারই অধিনায়ক থাকছেন। কিন্তু কোনও কোনও মহল মনে করছে, এই দুই মহাতারকা ভারতীয় ক্রিকেটার এলে শ্রেয়সের অধিনায়কত্ব রাখা কঠিন হবে। দিল্লি ফ্র্যাঞ্চাইজির রাঘববোয়ালদের কারও কারও শ্রেয়সকে অধিনায়ক রাখা নিয়ে আপত্তি থাকলেও কিছু করা যায়নি সানরাইজার্স হায়দরাবাদ থেকে আসা শিখর ধাওয়ান অধিনায়কত্ব নিতে চাননি বলে। কিন্তু এবার?

[আরও পড়ুন: ‘এখনও অবসর নিইনি’, অভিনব বিদায়ের পর জল্পনা ওড়ালেন গেইল!]

এবার যে দু’জনকে আনার জন্য ঝাঁপিয়েছে দিল্লি, তাঁরা দু’জনেই গত বার পর্যন্ত নিজের নিজের ফ্র্যাঞ্চাইজির অধিনায়ক ছিলেন। রবিচন্দ্রন অশ্বিন কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের। মানকড়িং বিতর্ক তাঁর অধিনায়কত্ব কাড়তে পারেনি। আর রাহানেকে রাজস্থান রয়ল্যাস অধিনায়কত্ব থেকে সরিয়ে দিলেও পরে ফিরিয়ে আনে স্টিভ স্মিথ বিশ্বকাপ শিবিরে যোগ দিতে উড়ে যাওয়ায়। ক্রিকেট অদৃষ্টের অদ্ভুত বিচারে ‘মানকড়িং’ ম্যাচের দুই যুযুধান অধিনায়কই এবার প্রবল ভাবে আসতে চাইছেন দিল্লিতে। ক্রিকেট অদৃষ্টের আরও এক বিচারে এক শহরের ফ্র্যাঞ্চাইজি যখন নির্বাচিত কোচও (কেকেআর কোচ হিসেবে ট্রেভর বেলিসের নাম ঘোষণা করার পরেও শেষ পর্যন্ত তাঁকে তুলে নেয় হায়দরাবাদ) হারিয়ে যেতে বসছে অন্য ফ্র্যাঞ্চাইজির কাছে, তখন সেই শহরেরই সন্তান গুছিয়ে ফেলছেন তাঁর টিম, টিমের কোচ। রিকি পন্টিং দিল্লি কোচই থেকে যাচ্ছেন। তার উপর আগামী বছর ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেটারদের পুরো আইপিএলে পাওয়া গেলে পরাক্রমী কিছু বিদেশি ক্রিকেটারও দেখা যেতে পারে। স্টার্ক-কামিন্সের নাম ভাসছে। দিল্লি বোলিং এমনিই শক্তিশালী। কাগিসো রাবাদা, ট্রেন্ট বোল্ট, ইশান্ত শর্মা, অমিত মিশ্ররা গত আইপিএল কাঁপিয়ে দিয়েছিলেন। এঁদের সঙ্গে কোনও এক স্টার্ক জুড়ে গেলে কী দাঁড়াবে ভাবা যাচ্ছে? কিছু করার নেই। এটাই নতুন দিল্লি। সৌরভের দিল্লি। ‘নয়া’ দিল্লি!

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং