BREAKING NEWS

২৭ আষাঢ়  ১৪২৭  রবিবার ১২ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

সত্যিই কি ‘বিক্রি’ হয়ে গিয়েছিল ২০১১ বিশ্বকাপের ফাইনাল ম্যাচ? শুরু হল তদন্ত

Published by: Sulaya Singha |    Posted: June 30, 2020 8:40 pm|    Updated: June 30, 2020 8:40 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ২০১১ ক্রিকেট বিশ্বকাপের (ICC World Cup 2011) ফাইনালে সত্যিই কি গড়াপেটা হয়েছিল? ইচ্ছাকৃতভাবেই কি হেরেছিল শ্রীলঙ্কা? সঙ্গকারারা জেনেশুনেই ধোনিদের ছেড়ে সেই ম্যাচ দিয়েছিলেন? এসব প্রশ্নের উত্তর পেতেই এবার অপরাধমূলক তদন্তের নির্দেশ দিল শ্রীলঙ্কা সরকার।

ঘটনার সূত্রপাত ঘটান শ্রীলঙ্কার প্রাক্তন ক্রীড়ামন্ত্রী মাহিন্দানন্দ অতুলগামাগ। সেবারের বিশ্বকাপ ফাইনাল ‘বিক্রি’ হয়ে গিয়েছিল বলে বিস্ফোরক অভিযোগ তোলেন তিনি। যা নিয়ে তোলপাড় হয় ক্রিকেট দুনিয়া। সেই সময় শ্রীলঙ্কার ক্রীড়ামন্ত্রী ছিলেন মাহিন্দানন্দ। সম্প্রতি তিনি দাবি করেন, শ্রীলঙ্কা অনায়াসে ধোনিদের বিরুদ্ধে বিশ্বকাপ জিততে পারত। কিন্তু ইচ্ছাকৃতভাবেই ফাইনালে হার মানেন জয়বর্ধনেরা। বিষয়টি নিয়ে বিতর্ক তৈরি হতেই তদন্তের জন্য একটি কমিটি গঠন করেছিলেন শ্রীলঙ্কার বর্তমান ক্রীড়ামন্ত্রী। এবার ক্রীড়ামন্ত্রেকর সচিব কেডিএস রুয়ানচন্দ্র জানালেন, তদন্ত শুরু হয়েছে। ক্রীড়াজগতের অপরাধের তদন্তের দায়িত্বে থাকা পুলিশের স্বাধীন স্পেশ্যাল ইনভেন্টিগেশন ইউনিট গোটা বিষয়টি খতিয়ে দেখছে।

[আরও পড়ুন: বিশ্বকে সচেতন করতে বিশেষ উদ্যোগ, ‘Black Lives Matter’ লেখা জার্সি গায়ে খেলবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ]

মাহিন্দানন্দ এমন অভিযোগের পর থেকেই বিতর্কে আগুন জ্বলে ওঠে দ্বীপরাষ্ট্রে। ম্যাচ গড়াপেটার এমন অভিযোগকে ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দেন সেই বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কার দুই তারকা জয়বর্ধনে এবং কুমার সঙ্গকারা। “আইসিসিকে আপনার অভিযোগের পক্ষে প্রমাণ দেখান।” মাহিন্দানন্দকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছিলেন প্রাক্তন অধিনায়ক সঙ্গকারা। প্রতিবাদে শামিল হন কিংবদন্তি তারকা অরবিন্দ ডি সিলভাও। ঘটনার সত্যতা যাচাই করতে আইসিসি (ICC), ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড (BCCI) এবং শ্রীলঙ্কার বোর্ডকে (SLC) অনুরোধও জানান তিনি।

তবে পরিস্থিতি বেগতিক দেখে চাপের মুখে নতি স্বীকার করে নেন মাহিন্দানন্দ। নিজের মন্তব্য থেকে ১৮০ ডিগ্রি ঘুরে দাঁড়িয়ে বলেন, ফাইনালে গড়াপেটা হয়েছে, এমনটা তাঁর সন্দেহমাত্র! চেয়েছিলেন বিষয়টি খতিয়ে দেখা হোক। এমন অভিযোগ তুলে সে বছর আইসিসিকে চিঠিও দিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু ম্যাচ গড়াপেটার কোনও প্রমাণ তাঁর কাছে নেই।

[আরও পড়ুন: কাটেনি করোনা আতঙ্ক, একবছর পিছিয়ে গেল SAAF চ্যাম্পিয়শিপও]

 

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement