৩ শ্রাবণ  ১৪২৬  শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০১৯ 

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দু-একটা নয়। বরুণ দেবের রোষের কবলে ইতিমধ্যেই ভেস্তে গিয়েছে বিশ্বকাপের চার-চারটে ম্যাচ। বিনাযুদ্ধেই ম্যাচ পয়েন্ট ভাগ করে নিতে হয়েছে দুই প্রতিপক্ষকে। বৃহস্পতিবার সেই বৃষ্টির শিকার টিম ইন্ডিয়াও। নটিংহ্যামে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে খেলা শুরুই করা যায়নি। রবিবারই টুর্নামেন্টের সবচেয়ে হাইভোল্টেজ ম্যাচ। ফের বিশ্বকাপে মুখোমুখি দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারত ও পাকিস্তান। কিন্তু সেই ম্যাচ ঘিরেও তৈরি হয়েছে অনিশ্চয়তা। ম্যাঞ্চেস্টারেও রয়েছে বৃষ্টির পূর্বাভাস। তাছাড়া ম্যাচ পণ্ড হলে রিজার্ভ ডে-রও কোনও ব্যবস্থা নেই। ফলে অদ্ভুত চাপের পরিস্থিতিতে আইসিসি। স্বাভাবিকভাবেই ক্ষুব্ধ ও বিরক্ত ভারতীয় সমর্থকরা। কিন্তু সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় বলছেন, বৃষ্টি হলেও ম্যাচ আয়োজন সম্ভব।

তিনি সিএবি সভাপতি। প্রশাসনিক ক্ষমতায় থেকে তিনি প্রমাণ করে দিয়েছিলেন, কীভাবে বৃষ্টির পরেও দ্রুত ইডেন শুকনো করে খেলা শুরু করা সম্ভব। একজন দুর্দান্ত অধিনায়কের পাশাপাশি সৌরভ ভাল প্রশাসকও বটে। সেই দক্ষ প্রশাসকই এবার আয়োজক দেশকে পরামর্শ দিলেন। তাঁর মতে, বৃষ্টিতে উইকেট ঢাকতে যে কভারগুলি ব্যবহার করা হচ্ছে, সেগুলি বদলে ফেললেই সমস্যা মিটতে পারে।

[আরও পড়ুন: টিম ইন্ডিয়াকে কটাক্ষ, পাক সমর্থককে মোক্ষম জবাব প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটারের]

চলতি বিশ্বকাপে ধারাভাষ্যকরের ভূমিকায় রয়েছেন ভারতের সর্বকালের অন্যতম সেরা অধিনায়ক। ট্রেন্ট ব্রিজে ভারত বনাম নিউজিল্যান্ডের ম্যাচ বাতিল প্রসঙ্গে সৌরভ বলেন, “ইডেনে তথা ভারতে যে কভারগুলো ব্যবহৃত হয়, সেগুলো ইংল্যান্ড থেকে নিয়ে যাওয়া হয়। সেই কভার এখানে ব্যবহার করার খরচও যেমন কম, তেমনই করও দিতে হবে না। তাই সেগুলো ব্যবহার করাই উচিত। ভারতে আমরা প্রতিটা ম্যাচের ক্ষেত্রে এই একই কভার ব্যবহার করি। তাই বৃষ্টি থামার ১০ মিনিটের মধ্যেই খেলা শুরু করা যায়। কভারগুলো বেশ হালকা। তাই সরাতেও বিশেষ সমস্যা হয় না। খুব বেশি গ্রাউন্ড স্টাফেরও প্রয়োজন হয় না।”

বাংলা ক্রিকেট সংস্থার সভাপতির পদে বসার পরই সৌরভ সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন, বৃষ্টি হলে শুধু পিচ ও তিরিশ গজ সার্কল ঢাকলে চলবে না। গোটা মাঠই ঢেকে ফেলতে হবে। যা দারুণভাবে কাজে দিয়েছিল। সৌরভ জানান, লর্ডসে যে কভার ব্যবহৃত হত, সেটিই তিনি ইডেনে ব্যবহার করেছেন। এই বিশেষ কভারের মধ্যে দিয়ে সূর্য রশ্মি ঢুকতে পারে অনায়াসে। এতে ঘাস শুকিয়ে রং বদলে যায় না। তাই ইংল্যান্ডের মতো বৃষ্টিপ্রবণ দেশে এমন কভারের ব্যবহার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলেই মত দাদার। তবে লাগাতার বৃষ্টি হলে যে কভারও মাঠ রক্ষা করতে পারবে না, সেকথাও স্বীকার করে নিয়েছেন সৌরভ।

[আরও পড়ুন: বৃষ্টিতে ভেস্তে গেল ভারত-নিউজিল্যান্ড ম্যাচ, ক্ষুব্ধ ভারতীয় সমর্থকরা]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং