৭ ভাদ্র  ১৪২৬  রবিবার ২৫ আগস্ট ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

দেবাশিস সেন, পোর্ট অফ স্পেন: ক্যারিবিয়ান সফরে ভারতীয় সিনিয়র দলে সুযোগ পেয়েছেন একঝাঁক তারকা। ইংল্যান্ড ও ওয়েলসে অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপের পর আসন্ন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে নতুন করে ঘর গুছোচ্ছে ভারতীয় শিবির। তরুণদের উপর ভরসা রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন জাতীয় নির্বাচকরা। কিন্তু সেই তালিকায় ঠাঁই হয়নি শুভমান গিলের। তিনি খেলেছেন ভারতীয় এ দলের হয়ে। বিরাট কোহলির দলে সুযোগ না পাওয়ায় কি মন খারাপ তরুণ ব্যাটসম্যানের?

[আরও পড়ুন: সারপ্রাইজ গিফট নিয়ে ধোনির ঘরে ফেরার অপেক্ষায় স্ত্রী সাক্ষী]

সরাসরি জবাব দিলেন না শুভমান। বরং বললেন, ভারতীয় এ দলে নিজের পারফরম্যান্স নিয়ে তিনি খুশি। ত্রিনিদাদ ও টোবাগোয় তৃতীয় বেসরকারি টেস্টে ভারতীয় এ-র দ্বিতীয় ইনিংসে দলের খারাপ সময়ে ব্যাট করতে নেমে ২৪৮ বলে অপরাজিত ২০৪ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন তিনি। তাও আবার ১৯টা বাউন্ডারি ও এক জোড়া ছক্কা-সহ। চারদিনের প্রথম শ্রেণির ম্যাচে স্ট্রাইক রেট ৮২.২৫। সাড়ে ছ’ঘণ্টা ক্রিজে থেকে মাত্র ১৯ বছর ৩৩৪ দিন বয়সেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট জীবনের প্রথম ডাবল সেঞ্চুরি করলেন শুভমান। আর সেই সঙ্গেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কনিষ্ঠতম ভারতীয় হিসেবে ডাবল সেঞ্চুরির মালিক হয়ে যান তিনি। ভেঙে দেন গৌতম গম্ভীরের ১৭ বছরের পুরনো রেকর্ড। ২০০২ সালে ২০ বছর ১২৪দিন বয়সে জিম্বাবোয়ের এই রেকর্ড গড়েছিলেন গম্ভীর।

আসলে সিনিয়র দলে জায়গা না পাওয়ার হতাশা নয়, ভারতীয় এ দলের সদস্য শুভমান ইতিবাচক অভিজ্ঞতা নিয়েই দেশে ফিরতে চান। তিনি বলছেন, “বিদেশের পরিবেশে মানিয়ে নিয়ে খেলাটাই চ্যালেঞ্জিং বিষয়। তাছাড়া দলের সঙ্গে একাত্ব হয়ে খেলে রান করাটাও আমার কাছে বড় পাওনা।” প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটের পাশাপাশি আসন্ন আইপিএল নিয়েও নিজের উচ্ছ্বাস ব্যক্ত করলেন তরুণ তুর্কি। আগামী বছর নিজের আইকন ব্রেন্ডন ম্যাকালামের সঙ্গে ড্রেসিংরুম ভাগ করে নিতে মুখিয়ে রয়েছেন কলকাতা নাইট রাইডার্সের ব্যাটসম্যান। সেখানেই সহকারী কোচের ভূমিকায় দেখা যাবে ম্যাকালামকে।

[আরও পড়ুন: হাঁটুতে অস্ত্রোপচার রায়নার, নেটদুনিয়ায় আবেগঘন পোস্ট জন্টি রোডসের]

শুভমানের কথায়, “টিভিতে ওঁর (ম্যাকালাম) ব্যাটিং দেখেছি। বিশেষ করে ২০১৫ বিশ্বকাপে যেভাবে তিনি নিউজিল্যান্ডকে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন, তা সত্যিই শেখার মতো। ওঁর সঙ্গে ড্রেসিংরুম ভাগ করে নেওয়ার অপেক্ষায় রয়েছি। বিশ্বকাপে ওঁর ব্যাটিং, বড় ম্যাচের আগে কাভীবে প্রস্তুতি নেন, সবকিছু নিয়েই কথা বলব। ম্যাকালাম নিজে ওপেনার ছিলেন। তাই কেকেআরের হয়ে ওপেন করার সুযোগ পেলে জানতে চাইব, কী মানসিকতা নিয়ে ক্রিজে নামা উচিত।” 

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং