৩ ভাদ্র  ১৪২৬  বুধবার ২১ আগস্ট ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ডুরান্ড কাপের সেমিফাইনালে দল একপ্রকার চলে গিয়েছে। আজ কার্যত নিয়মরক্ষার খেলা। জিতলে তো কথাই নেই, ড্র করলেও চলবে। তবু সতর্কতার সুর যেন বাঁধা হয়ে গিয়েছে ইস্টবেঙ্গল শিবিরে। একটাই কারণে, যদি লিগ ম্যাচের পুনরাবৃত্তি ঘটে? যদি কোনও অঘটন ফের ঘটে যায়। একটা অজানা আশঙ্কা যেন গ্রাস করে ফেলেছে গোটা লাল-হলুদ শিবিরকে।

[আরও পড়ুন: কাস্টমসের বিরুদ্ধে নামার আগে সতর্ক মোহনবাগান, দলে একাধিক পরিবর্তনের সম্ভাবনা]

এতকিছু হয়তো ঘটত না, যদি দল লিগের প্রথম ম্যাচে হেরে না বসত। আসলে স্প্যানিশ কোচের জানাই ছিল না যে তিনি পুরো বিদেশি স্কোয়াডকে ব্যবহার করতে পারবেন না। যখন জানলেন ততক্ষণে ম্যাচ খেলার প্রস্তুতির সময় আসন্ন। ফলে পুরো পরিকল্পনাই তাঁর ভেস্তে যায়। তাই ডুরান্ড ম্যাচে অনেক কিছু অঙ্ক কষে এগোতে চাইছেন আলোজান্দ্রো। এমনিতেই ম্যাচের আগের দিন সাধারণত সাংবাদিকদের এড়িয়ে চলেন তিনি। মঙ্গলবারও তার ব্যতিক্রম ঘটল না। আজ বেঙ্গালুরু এফসির সঙ্গে খেলা। বেঙ্গালুরুর দলটা এখানে এসেছে জুনিয়র দলকে নিয়ে। একটা মাত্র ম্যাচ খেলেছে তারা। তাতেই ড্র করে বসেছে। ফলে আজ তারা জিততে না পারলে ডুরান্ড থেকে বিদায় নিশ্চিত। সুতরাং দু’টি দল দুই মেরুতে দাঁড়িয়ে। ইস্টবেঙ্গলের যেখানে ড্র করলেই শেষ চারে ওঠা নিয়ে আর কোনও সংশয় থাকবে না, সেখানে বেঙ্গালুরুর জেতা ছাড়া গতি নেই।

প্রশ্ন হল, ইস্টবেঙ্গল দলে কি প্রচুর পরিবর্তন ঘটতে দেখা যাবে? একাধিক বিদেশির অন্তর্ভুক্তি ঘটছে। আসলে পুরো দলকে আর একবার পরখ করে নিতে চাইছেন স্প্যানিশ কোচ। কারণ তিনি বুঝে গিয়েছেন, লিগের ম্যাচে নামার আগে একটা ড্রেস রিহার্সাল সেরে নেওয়া যাবে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দলের এক সিনিয়র ফুটবলার বলছিলেন, “প্র‌্যাকটিস দেখে মনে হল, কিছু সিনিয়র ফুটবলার দলে ঢুকছে। আসলে সামনে আবার লিগের খেলা। তাই কোচ চাইছেন লিগের প্রস্তুতি একপ্রকার সেরে রাখতে। জর্জের কাছে হেরে যাওয়া কোচও ঠিক মন থেকে মেনে নিতে পারছেন না।” বেঙ্গালুরু যদি সিনিয়র দল আনত তাহলে খেলা নিয়ে উৎসাহ থাকত তুঙ্গে। তাই মনে হয় না যুবভারতীতে তেমন দর্শক সমাগম ঘটবে।

[আরও পড়ুন: আজ সিরিজ জয়ের লড়াই ভারতের, জোড়া রেকর্ডের সামনে রোহিত]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং