BREAKING NEWS

১২ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

চলতি বছরই আইএসএলে খেলবে ইস্টবেঙ্গল! নতুন দল নিতে বিড শুরু করল FSDL

Published by: Abhisek Rakshit |    Posted: September 4, 2020 3:58 pm|    Updated: September 4, 2020 3:58 pm

An Images

স্টাফ রিপোর্টার: প্রতীক্ষার অবসান। আইএসএলে নতুন দল নিতে বিড ওপেন করল এফএসডিএল। শুক্রবার সংস্থাটির পক্ষ থেকে একথা ঘোষণা করা হয়েছে। দিল্লি (Delhi), লুধিয়ানা (Ludhiana), আমেদাবাদ (Ahmedabad), কলকাতা (Kolkata), শিলিগুড়ি (Siliguri) এবং ভোপাল (Bhopal)– এই ছ’‌টি শহর থেকে একটি দলকে আইএসএলে নেওয়া হবে। আগামী ১৪ সেপ্টেম্বরের মধ্যে জমা দিতে হবে বিড পেপার। এটাই এফএসডিএলের সরকারি ঘোষণা। যদিও বিড যে কেবল ইস্টবেঙ্গলের জন্যই খোলা হয়েছে, তা আর বুঝতে বাকি নেই কারওর। অর্থাৎ দেশের সর্বোচ্চ লিগে খেলার ব্যাপারে ইস্টবেঙ্গলের আর কোনও বাধা রইল না। শীঘ্রই আইএসএলের পক্ষ থেকেও আসবে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা।

[আরও পড়ুন: নজির গড়ে‌ এবার এই বিষয়ে মেসিকে ছাপিয়ে গেলেন রোনাল্ডো]

এদিকে, আইএসএল খেলার জন্য এফএসডিএলের কাছে আবেদন করল ইস্টবেঙ্গল (East Bengal)। লাল—হলুদ ক্লাবের পক্ষ থেকে চিঠি দিয়ে জানানো হল, আমরা আইএসএল খেলার জন্য প্রস্তুত। সুতরাং আমাদের আইএসএল খেলার অনুমতি দেওয়া হোক। এতদিন ধরে যা জল্পনা—কল্পনা হচ্ছিল ইস্টবেঙ্গলকে নিয়ে তারও অবসান ঘটল বলা যায়। এখবর জানিয়ে ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের কার্যনির্বাহি কমিটির অন্যতম সদস্য দেবব্রত সরকার জানিয়ে দিলেন, “আমরা নিয়ম মেনেই এফএসডিএল—এর কাছে আইএসএল খেলার জন্য আবেদন করছি। আশাকরি আমাদের খেলতে দিতে আর কোনও সমস্যা হবে না।”  ২৪ ঘন্টা আগে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee) নিজে ঘোষণা করেছিলেন, ইস্টবেঙ্গল ISL খেলবে। তাঁর নিরলস প্রচেষ্টা ও আন্তরিকতা ইস্টবেঙ্গলকে বলতে গেলে খাদের কিনারা থেকে টেনে তুলেছিল। মূলত তিনি উদ্যোগ নিয়ে এগিয়ে আসায় এবার ইস্টবেঙ্গলের আইএসএল খেলতে কোনও সমস্যা হচ্ছে না। তাঁর সদিচ্ছার সঙ্গে বোর্ড প্রেসিডেন্ট সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের আন্তরিকতাকেও গুরুত্ব দিতে হবে। তিনিও এগিয়ে এসে ইস্টবেঙ্গলকে খেলার রাস্তা তৈরি করে দিয়েছেন।

[আরও পড়ুন: এবার করোনার হানা অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ শিবিরে, আক্রান্ত দিয়েগো কোস্তা এবং আরিয়াস]

প্রশ্ন হল, FSDL কেন শেষমুহূর্তে ইস্টবেঙ্গলকে খেলানোর উদ্যোগ নিল? আসলে তাদেরও প্রয়োজন ছিল লাল—হলুদ শিবিরকে। কারণ? একটাই, টিভিতে আএসএল—এর রেটিং বাড়ানো। নীতা আম্বানি হিসাব কষে দেখেছেন, ইস্টবেঙ্গলকে না ঢোকালে এবারও আইএসএল অসম্পূর্ন থেকে যাবে। টিভিতে দর্শকসংখ্যা কমে যেত প্রায় দু’কোটি। যা আইএসএল—এর রেটিং বাড়তে সাহায্য করত না। আসলে আইপিএল—এর সঙ্গে আইএসএল দর্শক সংখ্যার এতদিন বিস্তর ব্যবধান থেকে গিয়েছে। কিন্তু মোহনবাগানের পর ইস্টবেঙ্গল যোগ দেওয়ায় সেই ব্যবধান থাকবে না। বরং আইএসএল টিভি—তে দর্শক সংখ্যায় আইপিএলকে টপকে যেতে পারে। তখন নীতা আম্বানি খেলা সম্প্রচারকরা স্টার কর্তৃপক্ষকে চাপ দিতে পারবেন। দাবি করতে পারবেন, কেন তাদের ফ্র‌াঞ্চাইজিদের বাড়তি অর্থ স্টার দেবে না? আসলে খেলা সম্প্রচারকারী টিভি সংস্থার অর্থই এখন ফ্রাঞ্চাইজিদের কাছে সোনার ডিম পাড়া হঁাস। যা এখন আইপিএল ফ্রাঞ্চাইজিরা লাভের অঙ্ক ঘরে তুলতে পারছে তা আগামী দিনে আইএসএল খেলার দলগুলো একই পথের পথিক হবে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement