BREAKING NEWS

১৯ আষাঢ়  ১৪২৭  রবিবার ৫ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের তিন ক্লাবের ৪ জন করোনা আক্রান্ত, জুনের শেষেই মাঠে গড়াবে বল

Published by: Subhamay Mandal |    Posted: May 28, 2020 8:11 pm|    Updated: May 28, 2020 8:11 pm

An Images

রাজর্ষি গঙ্গোপাধ্যায়: করোনা আতঙ্কের আবহেও প্রত্যাবর্তনের স্বপ্ন দেখছে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ (English Premier League)। ধরা হচ্ছে, আগামী ১৯ বা ২৬ জুন থেকেই হয়তো ফিরবে বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় লিগ। তবে প্রত্যাবর্তনের আগেও করোনা আতঙ্ক থেকেই যাচ্ছে।

ঘটনাটা কী? বর্তমানে প্রতি সপ্তাহেই ইপিএলের প্রতিটা ক্লাবের ফুটবলার ও কোচিং স্টাফের করোনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। এবং সেই তৃতীয় রাউন্ডের করোনা পরীক্ষার পরই ধরা পড়েছে তিনটে ক্লাবের আরও চারজনের করোনা পজিটিভ। তবে করোনা আক্রান্তদের পরিচিতি গোপন রেখেছে এফএ। এক সরকারি বিবৃতি দিয়ে এফএ জানায়, ‘গত সোমবার ও মঙ্গলবার ফুটবলার ও কোচিং স্টাফের সদস্য মিলিয়ে মোট এক হাজারেরও বেশি করোনা পরীক্ষা করা হয়। যাদের মধ্যে তিনটে ক্লাবের চারজন করোনায় আক্রান্ত। যে সমস্ত ফুটবলার ও কোচিং স্টাফের সদস্য করোনায় আক্রান্ত তাদের এ বার সাত দিনের কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে।’

[আরও পড়ুন: অক্টোবরের আগে শুরু হচ্ছে না ঘরোয়া লিগ, জানিয়ে দিলেন IFA সচিব]

শুধু প্রিমিয়ার ডিভিশনই নয়। ইংল‌্যান্ডের দ্বিতীয় ডিভিশনের ক্লাব ফুলহ্যাম (Fulham) ও ব্ল্যাকবার্ন রোভার্স (Blackburn Rovers) মিলিয়ে মোট তিন জন ফুটবলার করোনা পজিটিভ হয়েছেন। বুন্দেশলিগার মতোই দর্শকশূন্য মাঠেই খেলা হবে প্রিমিয়ার লিগের বাকি ম্যাচ। ফলে টিভির সামনে বসে থাকা দর্শকদের জন্য অনেক অভিনব চমক রাখার চেষ্টা করছে এফএ। যার মধ্যে প্রথম হল ম্যাচ চলাকালীন সমর্থকদের শব্দব্রহ্মর রেকর্ডিং চালানো হবে। যাতে ফাঁকা মাঠে খেলা দেখতে বোরিং না লাগে ভক্তদের। আবার একই সঙ্গে দর্শকশূন্য গ্যালারির সামনে নামা ফুটবলাররাও যাতে একটু উদ্বুদ্ধ হন তাই প্রতিটা ম্যাচ শুরুর আগে নির্দিষ্ট ক্লাবের বাছাই কয়েকজন ফুটবলাররা নিজেরাই বিশেষ ভিডিও তৈরি করবেন। যেখানে দলের প্রস্তুতি ও বিপক্ষ নিয়ে কিছু মতামত রাখবেন তাঁরা। এ ছাড়াও ড্রেসিংরুমেও লাগানো হবে সিসিটিভি। ফলে বিরতিতে প্রিয় দলের ‘হাফটাইম টিম-টক’ দেখারও সুযোগ থাকছে ভক্তদের। এ ছাড়াও আবার ম্যাচের বিরতিতে মাঠের ধারে ফুটবলার বা কোচের সাক্ষাৎকারও নেওয়া হতে পারে।

তবে প্রত্যাবর্তনের আগেও কয়েকটা বাধা দেখা দিচ্ছে। এক নম্বর, ১৬ জুলাইয়ের পর প্রতিটা ম্যাচ আয়োজন করতে হলে ব্রডকাস্টারকে অন্তত ৩৬ মিলিয়ন ইউরো দিতে হবে। ফলে জুনের শেষে মরশুম শুরু করে ১৬ জুল‌াইয়ের আগে শেষ করতে হলে কার্যত প্রতিদিনই খেলতে হবে ক্লাবগুলোকে। দুই, নিরপেক্ষ মাঠে খেলার ব্যাপারে এখনও সম্মতি দেয়নি অনেক ক্লাব। তিন, দূরত্ব বিধি মেনে কি ফুটবল খেলা কতটা সম্ভব হবে? অতএব- প্রশ্ন আছে। থাকবেও। কিন্তু প্রশ্নের কাঁটাকে উপক্ষো করেই আপাতত ইপিএলের জন্য প্রত্যাবর্তনের রেড কার্পেট পাততে চাইছেন বিলেতের ফুটবলপ্রেমীরা।

[আরও পড়ুন: করোনার জেরে দু’বছর পিছিয়ে যাচ্ছে টি-২০ বিশ্বকাপ! অক্টোবরেই শুরু হতে পারে IPL]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement