৭ শ্রাবণ  ১৪২৬  মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০১৯ 

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ২০২২ বিশ্বকাপের আয়োজন সংক্রান্ত দুর্নীতির অভিযোগে আরও বিপাকে ফ্রান্সের কিংবদন্তী ফুটবলার তথা উয়েফার প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট মিশেল প্লাতিনি। তাঁকে আটক করে দীর্ঘক্ষণ জিজ্ঞাসাবাদ করল ফ্রান্সের পুলিশ। বেশ কয়েক ঘণ্টা প্লাতিনিকে আটক করে রাখা হয় বলে সূত্রের খবর। তবে, তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়নি। বা তাঁর বিরুদ্ধে কোনও ফৌজদারি মামলা দায়ের করা হয়নি বলেও জানা গিয়েছে স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে।

[আরও পড়ুন: আর্জেন্টিনার হয়ে ফের ব্যর্থ, নেটদুনিয়ার রোষের মুখে মেসি]

২০১৫ সালে ফিফা বিশ্বকাপের আয়োজক নির্ধারণ নিয়ে বড়সড় দুর্নীতি করা হয়েছে বলে অভিযোগ ওঠে। ২০২২ ফিফা বিশ্বকাপ আয়োজনের স্বত্ত্ব বেআইনিভাবে কাতারকে দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ তোলে ইউরোপের একাধিক দেশ। অভিযোগ, কাতারকে বিশ্বকাপ আয়োজনের স্বত্ত্ব দেওয়ার পরিবর্তে বেআইনিভাবে আর্থিক সুবিধা পেয়েছেন তৎকালীন ফিফা প্রেসিডেন্ট শেপ ব্লাটার। সেসময় উয়েফা প্রেসিডেন্ট ছিলেন প্লাতিনি। তিনিও যুক্ত ছিলেন এই দুর্নীতি কাণ্ডে। প্লাতিনিকেও নাকি ২০ লক্ষ ডলার ঘুষ দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ ওঠে। ২০১৫-তেই এ নিয়ে শুরু হয় তদন্ত। প্রাথমিক তদন্তের পর চার বছরের জন্য নির্বাসিত করা হয় সেসময়ের উয়েফা প্রেসিডেন্টকে। জানিয়ে দেওয়া হয় চার বছর ফুটবল সম্পর্কিত কোনও পদে থাকতে পারবেন না তিনি। এমনকী কোনও ফুটবল দলের কোচিং স্টাফেও যোগ দিতে পারবেন না।

[আরও পড়ুন: জাপানকে হারিয়ে কোপা অভিযান শুরু চিলির, একগুচ্ছ রেকর্ড স্যাঞ্চেজের]

তারপর বেশ কিছুদিন শান্ত ছিল বিষয়টি। মঙ্গলবার ফের ফ্রান্স পুলিশ আটক করে প্লাতিনিকে। বেশ কিছুক্ষণ জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। যদিও, ফ্রান্স পুলিশের পরবর্তী পদক্ষেপ এখনও জানা যায়নি। কাতারে বিশ্বকাপ আয়োজিত হওয়া নিয়ে বিতর্কের কিন্তু এখনও অবসান হয়নি। এই প্রথম মধ্যপ্রাচ্যে ফুটবল বিশ্বকাপের আয়োজন হচ্ছে। স্বাভাবিকভাবেই, যে সময় বিশ্বকাপ আয়োজিত হয় সেসময় কাতারের তাপমাত্রা থাকে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের আশেপাশে। যা গতিশীল ফুটবলের উপযোগী নয়। তাই, বাধ্য হয় নিয়মিত ক্লাব ফুটবল মরশুম ব্যাহত করে শীতকালে বিশ্বকাপের আয়োজন করতে হচ্ছে। তাছাড়া স্টেডিয়াম তৈরির শ্রমিকদের সঙ্গে কাতার সরকারের দুর্ব্যবহার নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং