১ মাঘ  ১৪২৫  বুধবার ১৬ জানুয়ারি ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফিরে দেখা ২০১৮ ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ‘এবং বিজয়ীর নাম… মেরি কম।’ রেফারির ঘোষণার পরই হাততালিতে ফেটে পড়ল দিল্লির কেডি যাদব ইন্ডোর স্টেডিয়াম। এক নয়, দুই নয়, বক্সিং রিংয়ে ইতিহাস তৈরি করে ষষ্ঠবারের জন্য বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হলেন মেরি কম।

[‘লাস্ট বয়’ আইজলের কাছে হেরে মুখ পুড়ল ‘দামি’ ইস্টবেঙ্গলের]

রিংয়ে পা রাখার আগেই ফাইনালে ফেভরিট ছিলেন ভারতীয় বক্সার। ইতিহাস গড়া যে শুধুই সময়ের অপেক্ষা সে আত্মবিশ্বাস ছিল মেরি কমের। এমনকী তাঁর প্রতিপক্ষ ইউক্রেনের হান্না ওখোতাও জানতেন এ দেশের মাটিতে মেরি কমকে হারানো ‘মুশকিলই নয়, নামুনকিন’। মাস তিনেক আগে অলিম্পিকে ব্রোঞ্জজয়ী এই ভারতীয় বক্সারের কাছে মুখ থুবড়েও পড়েছিলেন হান্না। মনে মনে যেন জানতেনই যে সে ঘটনারই পুনরাবৃত্তি হতে চলেছে। তাই হারের আগেই একপ্রকার হেরে বসেছিলেন হান্না। আর শনিবার ৪৮ কেজি লাইট ফ্লাইওয়েট বিভাগের লড়াই শুরু হতেই গোটা বিশ্বের কাছে বিষয়টা স্পষ্ট হয়ে গেল। মেরি কম ও তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বীর ভাবনা মিলে গেল অক্ষরে অক্ষরে। সর্বসম্মতভাবে জানিয়ে দেওয়া হয় ৫-০ ব্যবধানে জিতে গেলেন ভারতীয়। বয়স যে তাঁর কাছে নেহাতই সংখ্যা, তা আরও একবার প্রমাণ করে দিলেন মণিপুরি তারকা বক্সার।

[কলিঙ্গ সেনার হুমকির মুখে কিং খান, কিন্তু কেন?]

এর আগে ২০০২, ২০০৫, ২০০৬, ২০০৮ এবং ২০১০ সালে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলেন মেরি কম। তারও আগে ২০০১ সালে এই প্রতিযোগিতায় ঘরে তুলেছিলেন রুপো। এভাবে টানা বিশ্ব বক্সিংয়ে পদক জিততে কোনও মহিলা বক্সারকে দেখা যায়নি। তাই বিশ্ব চ্যাম্পিয়নের মঞ্চে মেরি কমকে ঘিরে অন্যরকম আকর্ষণ ও উত্তেজনা থাকে প্রতিবারই। এবার ফাইনালের টিকিট পাকা হতেই চোখে পড়ে একই উন্মাদনা। কিন্তু বয়সটাই একটা ফ্যাক্টর ছিল। তবে ৩৫ বছরের মেরি কম বুঝিয়ে দিলেন, কঠোর পরিশ্রম ও একাগ্রতা থাকলে সবই সম্ভব। বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপের ইতিহাসে আইরিশ বক্সার কেটি টেলরের রেকর্ড (৫ সোনা ১ রুপো) তিনি স্পর্শ করেছিলেন আগেই। এদিন তাঁকেও টপকে গেলেন। প্রথম মহিলা বক্সার হিসেবে ছটি সোনার মালিক হলেন মেরি কম। জয়ের পর সোনার পদক দেশকে উৎসর্গ করলেন তিনি।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শুভেচ্ছার বন্যায় ভাসছেন বক্সার। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় টুইট করে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মেরি কমকে।

এদিকে 57 কেজি ফেদারওয়েট বিভাগের ফাইনালে হেরে রুপো নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হল আরেক ভারতীয় বক্সার সোনিয়া চাহালকে।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং