৩০ কার্তিক  ১৪২৬  রবিবার ১৭ নভেম্বর ২০১৯ 

BREAKING NEWS

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

৩০ কার্তিক  ১৪২৬  রবিবার ১৭ নভেম্বর ২০১৯ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ৬ বছর পর ফের ছন্দা গায়েনের স্মৃতি উসকে দিল বাঙালি ২ পর্বতারোহী। কাঞ্চনজঙ্ঘা শৃঙ্গ জয়ের পর ফেরার পথে হারিয়ে গেলেন দুই বাঙালি পর্বতারোহী বিপ্লব বৈদ্য ও কুন্তল কাঁড়ার। অসুস্থ আরও দুইজন। নিখোঁজদের খোঁজে তল্লাশি শুরু করে উদ্ধারকারী দল।

[আরও পড়ুন: মজিদ মাস্টারের উঠোনে মমতার ‘সবুজসাথী’]

৪ এপ্রিল কাঞ্চনজঙ্ঘা জয়ের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছিলেন ৫ বাঙালি অভিযাত্রী। মঙ্গলবার প্রায় সাত হাজার মিটার উচ্চতার ক‍্যাম্প-৩ থেকে সাড়ে সাত হাজার মিটার উচ্চতার ক্যাম্প-৪ অর্থাৎ সামিট ক‍্যাম্পের পথে রওনা দেন বাংলার পাঁচ অভিযাত্রী বিপ্লব বৈদ‍্য, রমেশ রায়, কুন্তল কাঁড়ার, রুদ্রপ্রসাদ হালদার এবং শেখ সাহাবুদ্দিন। নিরাপদে সামিট ক‍্যাম্পে পৌঁছে কয়েক ঘন্টা বিশ্রাম নিয়ে বিকেল চারটে নাগাদই শৃঙ্গ জয়ের চূড়ান্ত অভিযানে বেরিয়ে পড়েন তাঁরা। বুধবার সকালে শৃঙ্গজয়ের খবরও মেলে। কিন্তু সেখান থেকে ফেরার সময় সামিট ক্যাম্পে পৌঁছানোর পথে আবহাওয়ার অবনতি হতে শুরু করে। তুষারঝড়ের মুখে পড়েন তাঁরা। জানা গিয়েছে, এরপর থেকেই নিখোঁজ বিপ্লব ও কুন্তল। গুরুতর অসুস্থ রমেশ রায় ও রুদ্রপ্রসাদ হালদার।

[আরও পড়ুন: কুরুচিকর ভুয়ো ভিডিও ফেসবুকে ছড়ানোর অভিযোগ, পুলিশের দ্বারস্থ সাজদা আহমেদ]

শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী, এখনও বিপ্লব ও কুন্তলের খোঁজ পায়নি উদ্ধারকারীরা। তবে যে জায়গায় ওই দুই পর্বতারোহী নিখোঁজ হয়েছেন বলে জানা গিয়েছে, সেখান থেকে তাঁদের প্রাণ নিয়ে ফেরা কার্যত অসম্ভব বলেই মনে করছেন অনেকে। পর্বতারোহী সত্যরূপ সিদ্ধান্ত এ প্রসঙ্গে জানিয়েছেন, “সামিট ক্যাম্পে পৌঁছানোর পথে যে জায়গায় তুষারঝড়ের কবলে পড়েছিলেন ওই অভিযাত্রীরা। সেখান থেকে বেঁচে ফেরার সম্ভাবনা প্রায় নেই বললেই চলে।” যদিও উদ্ধারকাজ শেষ হওয়ার আগে বিপ্লব, কুন্তলের বর্তমান পরিস্থিতি জানা সম্ভব নয়। প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালের ১৮ মে কাঞ্চনজঙ্ঘা জয় করেছিলেন বাঙালি পর্বতারোহী ছন্দা গায়েন। এরপর দ্বিতীয় অভিযানে যাওয়ার পথে নিখোঁজ হয়ে গিয়েছিলেন তিনি। এরপর মিলেছিল তাঁর মৃত্যু সংবাদ। ফের একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি। ফের কাঞ্চনজঙ্ঘার কোলে হারিয়ে গেলেন ২ বাঙালি।  

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং