১২ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

করোনার গ্রাসে আমাজন, COVID-19 পজিটিভ হয়ে মৃত্যুর কোলে অরণ্যবাসী জনজাতির কিশোর

Published by: Subhamay Mandal |    Posted: April 11, 2020 12:22 pm|    Updated: April 11, 2020 12:28 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বিপদ আঁচ পাওয়া গিয়েছিল আগেই। আমাজনের গভীর জঙ্গলে, একেবারে প্রকৃতির কোলে থাকা জনজাতি গোষ্ঠীর মধ্যেও নোভেল করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ
ছড়িয়েছিল। এবার সেখান থেকে মৃত্যুর খবর মিলল। করোনা পজিটিভ এক কিশোরের মৃত্যু হয়েছে আমাজনে। খবরের সত্যতা স্বীকার করেছে ব্রাজিলের স্বাস্থ্য মন্ত্রক। বৃহস্পতিবার রাতে রোরেইমার
হাসপাতালে আইসিইউ-তে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়েছে। যদিও মৃত্যুর সঠিক কারণ নিয়ে মুখে কুলুপ এঁটেছে ওই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এই ঘটনার পর আমাজনের এই অরণ্যচারীদের ভবিষ্যত
নিয়ে চিন্তা আরও বেড়েছে ব্রাজিল প্রশাসনের।

ব্রাজিলের উত্তরাংশ এবং ভেনেজুয়েলারর দক্ষিণাংশে আমাজনের গভীরে থাকা প্রাচীন জনজাতি গোষ্ঠী ইয়ানোমামি। অরণ্যের অধিকার এবং এদের নিজস্ব সংস্কৃতি, জীবনযাত্রা রক্ষায় সদর্থক পদক্ষেপ নিয়েছে সারভাইভাল ইন্টারন্যাশনাল নামে এক সংস্থা। তাই এঁরা আধুনিক জীবনযাপনের ছন্দ থেকে এখনও বহু যোজন দূরে। প্রায় ৩৮০০০ সদস্য জঙ্গল জীবনেই অভ্যস্ত। ব্রাজিল প্রশাসন সূত্রে খবর, গত ৩ এপ্রিল ইয়ানোমামি উপজাতির বছর পনেরোর এক কিশোর গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ায় তাঁকে নিকটবর্তী রোরেইমার হাসপাতালে ভরতি করা হয়। এরপর উপসর্গ দেখে চিকিৎসকরা COVID-19 পরীক্ষা করান। রিপোর্ট পজিটিভ আসে। তারপরই তাঁদের মধ্যে আশঙ্কা ছড়িয়ে পড়েছিল। এদিকে, এই কিশোরের শারীরিক অবস্থা ক্রমশ খারাপ হতে থাকে। ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে নিয়ে তাঁকে বাঁচানোর আপ্রাণ চেষ্টা বিফলে যায়। বৃহস্পতিবার রাতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করে সে। আমাজনের জঙ্গলে করোনার প্রথম বলি।

[আরও পড়ুন: ভারতে এখনও গোষ্ঠী সংক্রমণ হয়নি, ভুল শুধরে জানাল WHO]

ইয়ানোমামি গোষ্ঠীর মধ্য করোনা সংক্রমণের খবর প্রকাশ্যে আসতেই প্রশ্ন উঠছিল, লোকালয় থেকে এত দূরে একেবারে প্রকৃতির মাঝে থাকা অরণ্যবাসীদের কীভাবে গ্রাস করল নোভেল করোনা ভাইরাস? তারই উত্তর দিয়েছে সোশিও-এমভায়রনমেন্টাল ইনস্টিটিউট। নিজেদের ওয়েবসাইটে তারা জানিয়েছে, আমাজনের যে অঞ্চলে ইয়ানোমামিদের বাস, সেখানে পাচারকারীদের অন্যতম পছন্দের জায়গা। অন্তত ২০ হাজার চোরাচালানকারীর অবাধ যাতায়াত এখানে। তাই তাদের কারও থেকেই করোনা সংক্রমণ উপজাতিদের মধ্যেও ছড়িয়ে পড়েছে। এ বিষয়ে তারা নিশ্চিত বলেও জানিয়েছে ওই সংস্থাটি। তাদের আশঙ্কা, এই জনজাতির অন্যদের মধ্যেও যদি করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ে তাহলে বিপদের শেষ নেই। জঙ্গল জীবন থেকে সরিয়ে এনে আধুনিক চিকিৎসা পরিষেবা দিতে না পারলে, ওই সংঘবদ্ধ জীবনযাপনের কারণেই খুব দ্রুত বিলুপ্ত হয়ে যেতে পারে গোটা প্রজাতি।

[আরও পড়ুন: ১০১ দিনে বিশ্বে মৃতের সংখ্যা ছাড়াল এক লক্ষ, অশনিসংকেত দেখছেন গবেষকরা]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement