৩০ ভাদ্র  ১৪২৬  মঙ্গলবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: চলন্ত বাসে দুই সমকামী মহিলাকে নিয়ে প্রথমে বেশ কিছুক্ষণ ধরে চলল রসিকতা৷ তাঁদের দিকে ছোঁড়া হল কয়েন। এখানেই শেষ নয়৷ প্রকাশ্যে চুমু খাওয়ার জন্য জোর করা হয়েছিল দুই সমকামী মহিলাকে৷ কিন্তু তাঁরা রাজি হননি৷ এই ‘অপরাধে’ মহিলাদের লন্ডনের বাসে বেধড়ক মারধর করল বেশ কয়েকজন যুবক৷ আক্রমণকারীদের হামলায় দুই মহিলার নাক, চোখ, মুখ ফেটে গিয়েছে। আপাতত হাসপাতালে ভরতি রয়েছেন তাঁরা৷ নিগৃহীত এক মহিলা ফেসবুক পোস্ট করে বাসের ভয়াবহ অভিজ্ঞতা জানান৷ গত সপ্তাহের এই ঘটনাটি শুক্রবারই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে৷ এখনও পর্যন্ত ওই যুবকরা গ্রেপ্তার হয়নি৷

[ আরও পড়ুন: ব্রেক্সিট বিফলতার জের, দলীয় নেত্রীর পদ ছাড়লেন টেরেসা মে]

৩০ মে গভীর রাতে বাসে চেপে দুই মহিলা যাচ্ছিলেন ক্যামডেন টাউনে। বাসের আপার ডেকে পাশাপাশি বসেছিলেন তাঁরা৷ ডেটিংয়ে যাচ্ছিলেন বলে কথা৷ তাই আবেগে একে-অপরের বেশ খানিকটা কাছাকাছি চলে এসেছিলেন৷ চুমুও খাচ্ছিলেন দুজনে৷ ঠিক সেই সময়েই কয়েকজন যুবক বাসে ওঠে। ক্রিস এবং মেলানিয়ার সামনে চলে আসে তারা। দুই সমকামী মহিলাকে নিয়ে মশকরা করতে শুরু করে। ওই চার যুবক মেলানিয়া এবং ক্রিসকে সকলের সামনে চুমু খেতে বলে। জড়িয়েও ধরতে বলে। এমনকী জোর করে তাঁদের চুমু খেতে যায় ওই যুবকরা। মেলানিয়া সোশ্যাল মিডিয়ায় লেখেন, ‘‘প্রথমে যুবকদের সঙ্গে মজা করছিলাম৷ ভেবেছিলাম মজা করলে ওরা চলে যাবে। ক্রিস অসুস্থ হয়ে পড়ার ভানও করে৷ তবে তাতেও কিছু হয়নি৷ তা সত্ত্বেও ওরা মশকরা করতে থাকে৷ আমাদের দিকে কয়েন ছুঁড়ে দেয়। গালিগালাজও করতে থাকে তারা। চুমু খেতে না চাইলে আমাদের একের পর এক ঘুষি মারতে শুরু করে৷ আমার আর ক্রিসের নাক, মুখ থেকে রক্ত বেরতে শুরু করে৷ তারপর বাস থামতেই ওরা নেমে গেল।’’

[ আরও পড়ুন: নজরে চিন, উপহারের ডালি নিয়ে মালদ্বীপ-শ্রীলঙ্কা সফরে মোদি]

সমকামী দুই মহিলার মারধরের পাশাপাশি তাঁদের মোবাইল এবং ব্যাগ নিয়ে চম্পট দেয় যুবকেরা। জখম দুজনেই আপাতত হাসপাতালে ভরতি৷ কাউকে গ্রেপ্তার করা যায়নি৷ অন্যান্য বাসযাত্রীদের সঙ্গে কথা বলছে পুলিশ। ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন লন্ডনের মেয়র সাদিক খান। সমকামীদের বিরুদ্ধে এমন অত্যাচার সহ্য করা হবে না বলেই জানিয়েছেন তিনি৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং