৩ কার্তিক  ১৪২৬  সোমবার ২১ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির তীব্র সমালোচকদের যদি তালিকা তৈরি করা যায়, তাহলে সর্বাগ্রে উচ্চারিত হবে অমর্ত্য সেনের নাম। বিভিন্ন সময়ে, নানাভাবে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি তথা বিজেপি সরকারের যাবতীয় নীতির সমালোচনা করেছেন তিনি। এবার খোদ প্রধানমন্ত্রীর জ্ঞানের পরিধি নিয়েই প্রশ্ন তুলে দিলেন নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ। অমর্ত্য সেনের দাবি, ভারতকে বোঝার মতো সম্যক ধারণাই নরেন্দ্র মোদির নেই।

[আরও পড়ুন: কালো টাকা নিয়ন্ত্রণে সাফল্য, সুইস ব্যাংকে ভারতীয়দের অ্যাকাউন্টের তথ্য পেল কেন্দ্র ]

সম্প্রতি একটি মার্কিন সংবাদপত্রকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ভারত প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন অর্থনীতিবিদ। তাঁর মতে, ভারতে গণতন্ত্রের অবস্থা ভাল নয়। গোটা দেশ ভয়ে আছে। সংবাদমাধ্যমও স্বাধীন নয়। যা আগামীর জন্য মোটেই সুখবর নয়। তবে, তিনি আশাবাদী যে ভারত এই পরিস্থিতি থেকে ঘুরে দাঁড়াবে। তিনি বলছেন, “গণতন্ত্র মানে আলোচনার ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেওয়া। কিন্তু, আলোচনাকেই ভয় পাচ্ছে সরকার। ভোট যে পদ্ধতিতেই নেওয়া হোক, আলোচনাকে ভয়ের বস্তু ভাবলে, গণতন্ত্র অর্জন করা সম্ভব নয়।” অর্থনীতিবিদের আক্ষেপ, “ভারতে এখন কট্টর হিন্দুত্ববাদের দাপট চলছে। মোদি বহু ধর্ম ও জাতির দেশ ভারতকে ঠিক করে বোঝেনই না।”

[আরও পড়ুন: রাহুলের উপর নজরদারি! গান্ধী পরিবারের নিরাপত্তা নিয়ে বড়সড় সিদ্ধান্ত কেন্দ্রের]

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সবচেয়ে বড় সাফল্য সম্পর্কে বলতে গিয়ে অর্থনীতিবিদ বলছেন, “গোধরা মামলা থেকে নিজেকে মুক্ত করা মোদির সবচেয়ে বড় সাফল্য। হাজারের বেশি মানুষের খুনের ঘটনায় যে তিনি যুক্ত ছিলেন, আজকাল অনেকে সেটাই বিশ্বাস করেন না।” ভারতে সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা, বিরোধীদের কণ্ঠরোধ প্রসঙ্গেও এদিন সরব হন অর্থনীতিবিদ। তবে তিনি আশাবাদী, শীঘ্রই এই পরিস্থিতি বদলাবে। তিনি বলছেন, “এখনই সবকিছু শেষ হয়ে যায়নি। এখনও কিছু সাহসী সংবাদপত্র ঝুঁকি নিয়ে খবর করছে। কিছু টিভি চ্যানেল সরকারের সমালোচনা করছে। প্রকাশ্যে বিরোধীরা এখনও সভা করতে পারছে। তাছাড়া ভারত যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামো। সব রাজ্যে বিজেপি শক্তিশালী নয়। এটাই আশার কথা।”

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং