২৮ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৬ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

রাশিয়ার মধ্যস্থতায় গলল বরফ! যুদ্ধবিরতিতে রাজি আর্মেনিয়া ও আজারবাইজান

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: October 10, 2020 4:23 pm|    Updated: October 10, 2020 5:51 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দীর্ঘ ১০ ঘণ্টা ধরে বৈঠকের পর নাগর্নো-কারাবাখ এলাকায় যুদ্ধবিরতিতে রাজি হয়েছে আর্মেনিয়া ও আজারবাইজান। শনিবার একথাই জানালেন রাশিয়ার বিদেশমন্ত্রী সের্গেই লাভরভ (Sergei Lavrov)। যদিও এখনও পর্যন্ত এই বিষয়ে কোনও মন্তব্য করা হয়নি আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের তরফে। লাভরভ জানিয়েছেন, আজ মাঝরাত থেকেই যুদ্ধবিরতি শুরু হবে।

গত ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হওয়া ওই যুদ্ধ থামাতে প্রথম থেকে সচেষ্ট ছিল ভ্লাদিমির পুতিনের প্রশাসন। তারই ফলশ্রুতিতে গতকাল রাশিয়ার বিদেশমন্ত্রী সের্গেই লাভরভের উপস্থিতিতে বৈঠকে বসেন আর্মেনিয়ার বিদেশমন্ত্রী জোহরাব মান্টসাকানইয়ান ও আজারবাইজানের বিদেশমন্ত্রী জেহুন বায়রামভ। দীর্ঘ ১০ ঘণ্টা ধরে বৈঠক চলার পর রাত তিনটের সময় যুদ্ধবিরতিতে রাজি হয় দু’পক্ষ। এরপরই এপ্রসঙ্গে রাশিয়ার বিদেশমন্ত্রী সের্গেই লাভরভ বলেন, আর্মেনিয়া (Armenia) ও আজারবাইজান (Azerbaijan) যুদ্ধবিরতিতে সম্মত হয়েছে। নাগর্নো-কারাবাখ এলাকায় দু’পক্ষের যে সৈনিকরা নিহত হয়েছেন তাঁদের দেহগুলি ও যুদ্ধবন্দিদের হস্তান্তরের বিষয়ে দুই রাষ্ট্রের প্রতিনিধিরা একমত হয়েছে। এমনকী যে বিষয়ের কারণে বিবাদের সূত্রপাত হয়েছিল তা সমাধানের জন্য উভয়পক্ষই আলোচনায় করবে বলে জানিয়েছে। ওই আলোচনায় মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকা পালন করতে পারে অর্গানাইজেশন ফর সিকিউরিটি অ্যান্ড কো-অপারেশন ইন ইউরোপ (OSCE)-এর একটি গোষ্ঠী।

[আরও পড়ুন: ভারত সীমান্তে ৬০ হাজার সেনা মোতায়েন করছে চিন, দাবি মার্কিন বিদেশ সচিবের ]

নাগর্নো-কারাবাখ (Nagorno-Karabakh) অঞ্চল নিয়ে আজ়ারবাইজান ও আর্মেনিয়ার বিবাদ দীর্ঘদিনের। গত ২৭ সেপ্টেম্বর এই অঞ্চলে ফের যুদ্ধ শুরু হয়। এর জেরে এখনও পর্যন্ত ৩০০ মানুষ নিহত হয়েছেন। ঘরবাড়ি হারিয়ে সর্বহারা হয়েছেন হাজার হাজার মানুষ। এরপরই এই যুদ্ধ থামাতে তৎপর হন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। দুই দেশের শীর্ষ নেতাদের ফোন করে বলেন, ‘মানবিক কারণে নাগর্নো-কারাবাখ অঞ্চলে যুদ্ধ বন্ধ করা উচিত। উভয়পক্ষকেই সেখানে শান্তি ফেরানোর জন্য চেষ্টা করতে হবে।’ শেষপর্যন্ত তাঁর অনুরোধে সাড়া দিয়েই শুক্রবার মস্কোতে আয়োজিতে শান্তি বৈঠকে অংশ নিয়েছিলেন আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের বিদেশমন্ত্রী।

[আরও পড়ুন: ভারচুয়াল বিতর্কে ‘না’ ট্রাম্পের, বাতিল হয়ে গেল আমেরিকার দ্বিতীয় প্রেসিডেন্সিয়াল ডিবেট]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement