BREAKING NEWS

১৯  আষাঢ়  ১৪২৯  সোমবার ৪ জুলাই ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

ভারতের ঘরে রাফালে আসতেই কাঁপুনি ধরেছে চিন-পাকিস্তানের, কান্নাকাটি শুরু ইসলামাবাদের

Published by: Subhamay Mandal |    Posted: July 31, 2020 5:32 pm|    Updated: July 31, 2020 5:32 pm

China And Pakistan fears Rafale Fighter Jet inclusion in IAF

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ভারতের ঘরে পাঁচটি ফরাসি যুদ্ধবিমান রাফালে (Rafale) আসতেই থরহরি কম্প পাকিস্তান (Pakistan)। শক্তি বেড়েছে ভারতীয় বায়ুসেনার আর দুই পড়শি দেশ চিন ও পাকিস্তানের ঘুম উড়েছে দুশ্চিন্তায়। পাকিস্তান মনে করছে, ভারত অযথা ও অসঙ্গতিপূর্ণভাবে অস্ত্র মজুত করছে। চিনের (China) আবার দাবি, ভারত আগ্রাসী হয়ে উঠেছে। দুই পড়শি দেশের গাত্রদাহ এখন রাফালে ফাইটার জেট। হরিয়ানার আম্বালা এয়ারবেসে রাফালে নামার সঙ্গে সঙ্গেই চিন আর পাকিস্তানের সঙ্গে স্নায়ুযুদ্ধ শুরু হয়ে গিয়েছে ভারতের। পাকিস্তান তো ভয়ে কেঁপে আন্তর্জাতিক মহলের কাছে ভারতের সম্পর্কে নালিশও করেছে। অন্যদিকে, জল মাপছে চিন।

কী অভিযোগ করেছে পাকিস্তান? পাক বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র আয়েশা ফারুকি জানিয়েছেন, অকারণে অসঙ্গতিপূর্ণ ভাবে অস্ত্র মজুত করতে শুরু করেছে ভারত। দক্ষিণ এশিয়ায় শান্তির ভারসাম্য এতে নষ্ট হতে পারে। আন্তর্জাতিক মহলের কাছে তাঁর আবেদন, ভারতকে যেন এভাবে অস্ত্রভাণ্ডার মজুত করা থেকে নিরস্ত করা হয়। মুখপাত্র আরও বলেন, আদতে নিজেদের নিরাপত্তার জন্য যতখানি প্রয়োজন তার চেয়ে কয়েক গুণ বেশি সমরাস্ত্র মজুত করছে ভারত। এতে ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে। এদিকে, ১৯৯৭ সালে রাশিয়ার কাছ থেকে Sukhoi-30 যুদ্ধবিমান কেনার ২৩ বছর পর ফের রাফালে কেনার সিদ্ধান্তে চমকে গিয়েছে পড়শি দেশগুলি। ভারতের সার্বভৌমত্ব যারা নষ্ট করতে চায় তাঁদের সাবধান করে বার্তা দিয়েছিলেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং। চিনের বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র তো পালটা খোঁচা মেরে বলেছেন, “চিন আশা করে, ভারতের প্রাসঙ্গিক লোকজন এধরনের কথাবার্তা বলার আগে আঞ্চলিক শান্তি ও স্থিতাবস্থা বজায় রাখার স্বার্থ মাথায় রাখবেন অবশ্যই।”

[আরও পড়ুন: সংস্কৃত শ্লোকে ‘গেম চেঞ্জার’ রাফালেকে স্বাগত মোদির, চিন-পাকিস্তানকে কড়া বার্তা রাজনাথের]

কেন রাফালেকে ভয় পাচ্ছে দুই দেশ? এক সাক্ষাৎকারে প্রাক্তন এয়ার চিফ মার্শাল ধানোয়া (B S Dhanoa) জানান, চিনের তৈরি অত্যাধুনিক পঞ্চম জেনারেশন J-20 যুদ্ধবিমান রাফালের সামনে ফিকে। পূর্ব লাদাখে চিন আগ্রাসন চালালে রাফালে যুদ্ধের পরিণতি নির্ণয় করে দিতে সক্ষম। ধানোয়ার দাবি, বিমানবাহিনী যদি প্রতিপক্ষের বায়ুর প্রতিরোধ ভেঙে দেয় তাহলে চিনা সেনা হোতান ও লাসায় থাকবে, ফলে তাদের সহজেই নিশানা করা যাবে। হোতানে ৭০টি ও লাসায় ২৬টি বিমান মোতায়েন করেছে লালফৌজ বলে জানিয়েছেন প্রাক্তন এয়ার চিফ মার্শাল। তাঁর মতে, চিনের J-20 যুদ্ধবিমানগুলি আধুনিক। তবে রাফালে ও সুখোইয়ের মাধ্যমে ভারত খুব সহজেই তার মোকাবিলা করতে পারবে। ধানোয়ার প্রশ্ন, যদি চিনের যুদ্ধবিমান এতই ভাল হয়, তবে বালাকোটে পাকিস্তান মার্কিন F-16 বিমান ব্যবহার করল কেন, চিনা যন্ত্রের উপর আস্থা না রেখে সুইডেনের রাডার ও তুরস্কের টার্গেট পড ব্যবহার করে পাকিস্তান।

[আরও পড়ুন: রাফালের নেপথ্য নায়ক, দেশের কাছে হিরো কাশ্মীরের এই বায়ুসেনা অফিসার]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে