১৫ অগ্রহায়ণ  ১৪২৭  বুধবার ২ ডিসেম্বর ২০২০ 

Advertisement

জিনপিং প্রশাসনের অত্যাচার থেকে বাঁচতে পবিত্র ধর্মগ্রন্থ নদীতে ফেললেন মুসলিমরা

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: October 25, 2020 4:59 pm|    Updated: October 25, 2020 4:59 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: উইঘুর মুসলিমদের নির্মূল করতে দীর্ঘদিন ধরে নানা উপায়ে অত্যাচার চালাচ্ছে চিনের সরকার। মহিলাদের জোর করে গর্ভপাত করানো থেকে শুরু করে ছেলে-মেয়েদের উভয়কেই বন্দিশিবিরে আটকে রাখা হচ্ছে। নির্মম অত্যাচার চালানোর পাশাপাশি উইঘুর সম্প্রদায়ের মানুষের কিডনি খুলে বিক্রি করার অভিযোগও উঠেছে শি জিনপিংয়ের প্রশাসনের বিরুদ্ধে। এবার জানা গেল মুসলিমদের পবিত্র ধর্মগ্রন্থ কোরান বাজেয়াপ্ত করছে চিনের কমিউনিস্ট পার্টির সরকার। শুধু তাই নয়, যাঁর কাছ থেকে কোরান পাওয়া যাচ্ছে তাঁর উপর অকথ্য অত্যাচারও চালাচ্ছে। সম্প্রতি এই এরকম একটি ঘটনার সময় পবিত্র ধর্মগ্রন্থ জলে ফেলে দেন মুসলিম সম্প্রদায়ের কয়েকজন মানুষ। পরে এই ঘটনার কথা প্রকাশ্যেই আসতেই বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, কিছুদিন ধরেই শি জিনপিং (Xi Jinping) -এর প্রশাসন মুসলিমদের পবিত্র ধর্মগ্রন্থ কোরান (Quran) বাজেয়াপ্তের পর নষ্ট করছে বলে অভিযোগ। সম্প্রতি চিনের আলমাটি অঞ্চলের পানফিলভ জেলার এড্যারলি গ্রামে প্রশাসনের হাত থেকে বাঁচতে কয়েকজন মুসলিম স্থানীয় ইলি নদীতে কোরান ফেলে দেন। আর এই ঘটনার খবর প্রকাশ্যে আসতে বিশ্বজুড়ে বিতর্ক তৈরি হয়েছে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করলেও চুপ রয়েছে পাকিস্তান।

[আরও পড়ুন: আফগানিস্তানের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ISIS-এর আত্মঘাতী হামলা, মৃত কমপক্ষে ৩০]

ওই প্রতিবেদনে আরও উল্লেখ করা হয়েছে, এই ঘটনা শুধু ওই এলাকার নয় শিনজিয়াং প্রদেশের বিভিন্ন এলাকাতে প্রতিদিন এই ঘটনাই ঘটছে। বিভিন্ন বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে কোরান বাজেয়াপ্ত করছে চিনের প্রশাসন। এর পাশাপাশি অকথ্য অত্যাচারও চালাচ্ছে। তাই বাধ্য হয়ে বেশিরভাগ উইঘুর মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষ কোরানের পবিত্রতা রক্ষার জন্য তাকে প্লাস্টিকের মধ্যে মুড়ে নদীতে ফেলে দিচ্ছে।

ইতিমধ্যে বিভিন্ন দেশের পক্ষ থেকে এবিষয়ে নিন্দা করা হলেও পাকিস্তানের তরফে কোনও মন্তব্য করা হয়নি। ফলে ইসলামাবাদের মুসলিমপ্রীতি যে কতটা লোক দেখানো তার প্রমাণ পাওয়া গেল।

[আরও পড়ুন: তিক্ততা ভোলানোর চেষ্টা, দশেরার শুভেচ্ছা জানাতে পুরনো ম্যাপই ব্যবহার করল নেপাল]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement