২ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

‘আমি জানি কিম কেমন আছে’, ‘বন্ধু’র স্বাস্থ্য নিয়ে রহস্য বাড়ালেন ট্রাম্প

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: April 28, 2020 11:15 am|    Updated: April 28, 2020 11:15 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: উত্তর কোরিয়ার (North Korea) কমিউনিস্ট শাসক তথা বিশ্বের সর্বকনিষ্ঠ স্বৈরাচারী রাষ্ট্রপ্রধান কিম জং উনের (Kim Jong Un) স্বাস্থ্য নিয়ে রহস্য যেন কিছুতেই কাটছে না। তিনি আদৌ জীবিত আছেন? থাকলে কী অবস্থায়? এমন হাজার প্রশ্ন ঘোরাফেরা করছে বিশ্বব্যাপী। এরই মধ্যে কিমের স্বাস্থ্য নিয়ে চাঞ্চল্যকর দাবি করলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প (Donald Trump)। মার্কিন প্রেসিডেন্টের দাবি, ‘বন্ধু’ কিমের স্বাস্থ্য সম্পর্কে সবটাই তিনি জানেন।

সোমবার হোয়াইট হাউসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে ট্রাম্প বলেন, “আমার কিম জং উনের সঙ্গে খুব ভাল সম্পর্ক। আমি যদি আজ মার্কিন প্রেসিডেন্ট না হতাম তাহলে এতদিন কোরিয়ার সাথে যুদ্ধ করতে হত আমেরিকাকে। আমি আবারও বলছি, আমি প্রেসিডেন্ট না হলে এতদিন উত্তর কোরিয়ার সাথে আমাদের যুদ্ধ করতে হত। আমি জানি ও এখন কেমন আছে। কিছুদিন পরই আপনারাও জানতে পাবেন। এখন আমি কিছু বলতে পারব না। আশা করি ও ভালই আছে।” মার্কিন প্রেসিডেন্টের এই বক্তব্যকে অনেকেই কিমের জীবিত থাকার ইঙ্গিত বলে মনে করছেন। কারণ বাস্তবিকই কিমের সঙ্গে ট্রাম্পের সম্পর্ক ভাল। উত্তর কোরিয়ার শাসককে নিজের বন্ধু হিসেবে পরিচয় দেন ট্রাম্প। প্রথম মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে উত্তর কোরিয়ার মাটিতে পাও রেখেছিলেন তিনি। সেকারণেই ট্রাম্পের দাবি নাকচ করা যাচ্ছে না।

[আরও পড়ুন: ‘কিম বহাল তবিয়তেই রয়েছেন’, দক্ষিণ কোরিয়ার দাবি ঘিরে নয়া জল্পনা]

উল্লেখ্য, চলতি মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে প্রকাশ্য আর দেখা যায়নি উত্তর কোরিয়ার শাসক কিম জং উনকে। তারপর শোনা যায়, তিনি অসুস্থ। হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন। অস্ত্রোপচারের শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ার খবরও জানতে পারে গোটা বিশ্ব। আর তারপরই গুজব ছড়িয়ে পড়ে, কিম প্রয়াত। আমেরিকাও কিমের শারীরিক অবস্থার খোঁজ নিতে শুরু করে। উত্তর কোরিয়ার তরফে অবশ্য কিমের মৃত্যু সংবাদ অস্বীকার করে জানানো হয়, প্রেসিডেন্ট ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠছেন। গত সপ্তাহে একটি উপগ্রহ চিত্রে দেখা যায়, কিম এবং তাঁর পরিবারের জন্য যে ব্যক্তিগত ট্রেন রয়েছে, সেটি দাঁড়িয়ে দেশের পূর্ব উপকূলের নির্জন ওনসান শহরে। মনে করা হয়, তিনি সেখানেই রয়েছেন। এসব জল্পনার মধ্যেই মুখ খুললেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement