৫ মাঘ  ১৪২৬  রবিবার ১৯ জানুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo ফিরে দেখা ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ৩৪ বছর। রাজনীতির নিরিখে বয়সটা নিতান্তই কম। এই বয়সে বেশিরভাগ নেতানেত্রীকেই হয়তো যুব নেতা বা যুব নেত্রী হিসেবে বড়দের ছত্রছায়ায় কাজ করতে হয়। কিন্তু, এই যুবতীর উত্থান সব ছত্রছায়া পেরিয়ে মহিরূহের মতো। মাত্র ৩৪ বছর বয়সেই ইনি আস্ত একটা রাষ্ট্রের প্রধানমন্ত্রী হয়ে গিয়েছেন। কথা হচ্ছে, ফিনল্যান্ডের নব নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী সানা মারিনের। মাত্র ৩৪ বছর বয়সেই তিনি নেতৃত্ব দেবেন ফিনিশদের।


সদ্যপ্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অ্যান্তি রিনোর পদত্যাগের পরই সানাকে নেতা নির্বাচন করেছে তাঁর দল সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি। রবিবার তাঁকে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত করা হয়। এর আগে গত মঙ্গলবারই আস্থা ভোটে হারেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী আন্তি। প্রধানমন্ত্রী হওয়ার আগে ফিনল্যান্ডের পরিবহণ মন্ত্রীর দায়িত্ব সামলেছেন সানা। প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মনোনীত হওয়ার পর প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে সানা সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘জনগণের আস্থা ফিরিয়ে আনতে আমাদের অনেক কাজ করতে হবে।’ নিজের বয়স প্রসঙ্গে সানার বক্তব্য, ‘আমার বয়স নিয়ে কখনও ভাবি না। কেন আমি রাজনীতিতে এসেছি, আমি কেবল সেই কারণ নিয়েই ভাবি।’

Sana-V

[আরও পড়ুন: ‘কোনও স্টুপিড কোর্ট স্পর্শ করতে পারবে না, আমি পরম শিব’, ভাইরাল নিত্যানন্দের ভিডিও]

মজার কথা হল যে পাঁচটি দল নিয়ে ফিনল্যান্ডের নতুন সরকার গঠিত হচ্ছে, তাঁদের প্রত্যেকটির শীর্ষপদে রয়েছেন মহিলা। এবং অধিকাংশ ক্ষেত্রেই তাঁরা বয়সেও তরুণ। বামপন্থী জোটের নেতৃত্বে ৩২ বছর বয়সি লি অ্যান্ডারসন, গ্রিন লিগের নেতৃত্বে ৩৪ বছর বয়সি মারিয়া ওহিসালো, মধ্যপন্থী জোটের নেতৃত্বে ৩২ বছর বয়সি কাট্রি কুলমুনি, এবং সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটিক দলের নেতৃ্ত্বে সানা নিজেই। এরা প্রত্যেকেই তরুণ। একমাত্র সুইডিশ পিপলস পার্টি অব ফিনল্যান্ডের নেতৃত্বে আছেন ৫৫ বছর বয়সি অ্যানা-মাজা হেনরিকসন। এককথায় তারুণ্য খচিত সরকার গঠিত হতে চলেছে ফিনল্যান্ডে। ক্ষমতার শীর্ষে আছেন মহিলারা। সেদিক থেকে বলতে গেলে, মহিলাদের ক্ষমতায়ন এবং উন্নয়নের নিরিখে গোটা বিশ্বের কাছে উদাহরণ হয়ে উঠতে পারে এই ফিনল্যান্ড।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং