BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

অপেক্ষার অবসান, সাধারণ নাগরিকদের জন্য ‘স্পুটনিক ফাইভ’ বাজারে আনল রাশিয়া

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: September 8, 2020 9:41 am|    Updated: September 8, 2020 9:41 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: অপেক্ষার অবসান। এবার সাধারণ মানুষের হাতের নাগালে চলে এল রাশিয়ার তৈরি করোনার ভ্যাকসিন স্পুটনিক ফাইভ। রাশিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে, ইতিমধ্যেই স্পুটনিক ফাইভের প্রথম ব্যাজ সাধারণ নাগরিকের জন্য বাজারে আনা হয়েছে। আর কয়েকদিনের মধ্যেই এলাকাভিত্তিক ডেলিভারি শুরু হয়ে যাবে। রাশিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রক আশাবাদী যে, দ্রুত এই টিকা  বেশি বেশি নাগরিকের কাছে পৌঁছে দেওয়া যাবে।

স্পুটনিক-ফাইভ (Sputnik V)। রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রক এবং আরডিআইএফ (রাশিয়ান ডিরেক্ট ইনভেস্টমেন্ট ফান্ড)-এর সঙ্গে হাত মিলিয়ে ভ্যাকসিনটি তৈরি করেছে গামালিয়া সায়েন্টিফিক রিসার্চ ইনস্টিটিউট অফ এপিডেমিয়োলজি অ্যান্ড মাইক্রোবায়োলজি (Gamaleya National Research
Center of Epidemiology and Microbiology)। রাশিয়ার দাবি অনুযায়ী এটিই পৃথিবীর প্রথম কার্যকরী করোনা ভ্যাকসিন। যদিও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা-সহ বিশ্বের একাধিক দেশ এই ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছে। এমনকী, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এই ভ্যাকসিনে এখনও ছাড়পত্র পর্যন্ত দেয়নি। আমেরিকা-সহ একাধিক দেশের অভিযোগ, কোনও নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করেই টিকা তৈরির ইঁদুরদৌড়ে নিজের ক্ষমতা প্রকাশ করতে চাইছে রাশিয়া। তবে সেসব বিরোধিতায় পাত্তা না দিয়ে নিজেদের মতো ভ্যাকসিন উৎপাদন শুরু করেছিল রাশিয়া। সোমবারই ভ্যাকসিনটির প্রথম ব্যাজ সাধারণ নাগরিকদের জন্য বাজারে আনা হয়েছে।

[আরও পড়ুন: কোভিডের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়তে পারছে না অ্যান্টিবডি, দাবি নয়া গবেষণায়]

রাশিয়া আগেই দাবি করেছিল, গুণগত মান পরীক্ষার পরই এই টিকা সাধারণ মানুষের জন্য বাজারে আনা হবে। গত শুক্রবারই সায়েন্স জার্নাল ‘দ্য ল্যানসেট’ টিকাটির প্রাথমিক ট্রায়ালের রিপোর্ট প্রকাশ্যে এনেছে। যাতে দাবি করা হয়েছে, করোনা টিকার প্রাথমিক পর্যায়ের ট্রায়ালে অ্যান্টিবডি তৈরি করতে সফল ‘স্পুটনিক ফাইভ’ (Sputnik V)। ল্যানসেটের রিপোর্ট প্রকাশ্যে আসার দিন চারেকের মধ্যেই স্পুটনিকের প্রথম ব্যাজ সাধারণ মানুষের জন্য বাজারে আনল রাশিয়া। সেদেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানিয়েছে, গামালিয়া সায়েন্টিফিক রিসার্চ ইনস্টিটিউট অফ এপিডেমিয়োলজি অ্যান্ড মাইক্রোবায়োলজির তৈরি করোনা ভ্যাকসিনের প্রথম ব্যাজ গুণগত মান সংক্রান্ত সমস্ত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে এবং তা সাধারণ মানুষের জন্য খোলা বাজারে আনা হয়েছে। আগামী কয়েক মাসের মধ্যেই মস্কোর বেশিরভাগ নাগরিক এই ভ্যাকসিন পেয়ে যাবেন, আশাবাদী স্থানীয় প্রশাসন। 

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement