BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  শুক্রবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

সংখ্যালঘু বলেই খুন করা হয়েছে, অভিযোগ পাকিস্তানে মৃত হিন্দু যুবতীর পরিবারের

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: September 17, 2019 5:17 pm|    Updated: September 17, 2019 5:17 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: পাকিস্তানে রহস্যজনক ভাবে মৃত্যু হল এক ডাক্তারি পড়ুয়ার। হোস্টেলের ঘর থেকে তাঁর ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার হওয়ার পরেই খুনের অভিযোগ তুলেছে ওই যুবতীটির পরিবার। মৃত যুবতীর নাম নম্রিতা চান্দানি বলে জানা গিয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে পাকিস্তানের লারকানা শহরের বিবি আসিফা ডেন্টাল কলেজের হোস্টেলে। পুলিশ তদন্ত শুরু করলেও এটি খুন না আত্মহত্যা তা এখনও জানায়নি।

[আরও পড়ুন: ‘জাকির প্রসঙ্গে মোদির সঙ্গে কথা হয়নি’, হঠাৎ ভোলবদল মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রীর]

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, সিন্ধুপ্রদেশের ঘোটকি জেলার মীরপুর মাথেলো এলাকার বাসিন্দা নম্রিতা বিবি আসিফা ডেন্টাল কলেজের ফাইনাল ইয়ারের ছাত্রী ছিলেন। পড়াশোনার জন্য কলেজের হোস্টেলেই থাকতেন। সোমবার রাতে
তাঁর ঘরের দরজা ভিতর থেকে বন্ধ ছিল। হোস্টেলের অন্য ছাত্রীরা অনেকক্ষণ ধরে ডাকাডাকি করলেও দরজা খোলেনি। সন্দেহ হওয়ায় দরজার ফাঁক দিয়ে ঘরের ভিতরে উঁকি মেরে পরিস্থিতি বোঝার চেষ্টা করেন তাঁরা। আর তখনই চোখে পড়ে খাটের উপর গলায় দড়ি বাঁধা অবস্থায় ঝুলছেন নম্রিতা। পরে ঘরের দরজা ভেঙে ভিতরে ঢোকে হোস্টেলের নিরাপত্তারক্ষীরা। তাঁর মৃতদেহটি উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে ময়নাতদন্তের জন্য নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু, করাচি থেকে যুবতীটির পরিবার না আসা পর্যন্ত ময়নাতদন্ত শুরু করতে দেয়নি পুলিশ।

এই খবর শোনার পরেই বোনকে খুন করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন যুবতীটির দাদা ডা. বিশাল সুন্দর। বলেন, আমার বোনের গায়ে ওড়না ছিল। কিন্তু, ‘ওর দেহ যখন উদ্ধার হয় তখন গলায় কেবল তারের দাগ ছিল। মৃতদেহের অন্য কয়েকটি জায়গাতেও বিভিন্ন ক্ষত ছিল। দেখে মনে হচ্ছিল কেউ ওকে খুন করে দেহটা ঝুলিয়ে দিয়েছে। আমরা সংখ্যালঘু। তাই ওকে খুন হতে হয়েছে। দয়া করে আমাদের পাশে দাঁড়ান।’

[আরও পড়ুন: ফের ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকা পালন করতে বার্তা ট্রাম্পের]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement